বলিরেখা দূর করতে ঘরোয়া চিকিৎসা

0
24

 

বছর ২০ পেরতে না পেরতেই নারীদের চোখের তলায় বলিরেখা স্পষ্ট হতে শুরু করে। আর বয়স যত বাড়তে থাকে ততই যেন এই রেখাগুলো সৌন্দর্য হ্রাস করতে হাত ধুয়ে পেছনে পড়ে যায়। তাই তো প্রথম দিন থেকেই এর চিকিৎসা করা একান্ত প্রয়োজন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বেশি টাকা খরচ না করে বয়সজনিত এই রেখাগুলোকে মিলিয়ে দিতে কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা দারুণ কাজে আসে। বোল্ড স্কাই থেকে তেমন কিছু চিকিৎসার কথা বলা হলো—

পুদিনা পাতা ও লেবুর রস

এই দুটি উপাদান মিলিয়ে যদি চোখের তলায় লাগানো যায়, তাহলে বলিরেখা কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে ত্বক টানটান হয়ে সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পায়। এক মুঠো পুদিনা পাতা হাতে নিয়ে থেঁতো করে নিন, তারপর তাতে দু’চামচ লেবুর রস মেশান। এবার একটা তুলো নিয়ে এই মিশ্রণে চুবিয়ে যেখানে যেখানে বলিরেখা দেখা দিয়েছে, সেখানে লাগান। ১৫-২০ মিনিট তুলোটা লাগিয়ে রেখে সারা মুখ ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

দুধের সঙ্গে গোলাপ জল

এই মিশ্রণটি ত্বককে আদ্র করে বলিরেখা দূর করতে দারুণ কাজে আসে। আসলে এই দুই উপাদানই ত্বককে টানাটান করে। ফলে বলিরেখা আপনা থাকেই চলে যায়। সম পরিমাণে দুধ এবং গোলাপ জল মেশান। এবার সেই মিশ্রণে একটা তুলো চুবিয়ে বলিরেখার উপরে রাখুন। ১৫ মিনিট তুলোটা রেখে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

আনারসের রস ও গোলাপ জল

ত্বকের বয়স কমাতে অনারসের কোনও বিকল্প নেই। তাই তো বলিরেকা দূর করতে এটি ব্যবহার করা যেতেই পারে। সম পরিমাণে আনারসের রস এবং গোলাপ জল মিশিয়ে একটি মিশ্রন তৈরি করুন। এরপর তাতে একটা তুলো ডুবিয়ে চোখের তোলায় ২৫ মিনিট রেখে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এমনটা দিনে একবার বা দুবার নিয়মিত করলে ফল পাবেন হাতে-নাতে।

ডিমের সাদা অংশ, দুধ ও মধু

এই তিনটি উপাদান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ত্বককে টানটান করতে সাহায্য করে। তাই বলিরেখা কমাতে এই তিনটি জিনিস একসঙ্গে ব্যবহার করতেই পারেন। তিনটি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে চোখের তলায় লাগান। মাস্কটা কিছুক্ষণ রেখে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। তারপর একটা টোনার মুখে লাগান। এতে আপনার ত্বক আদ্র থাকবে, ফলে বাড়বে আপনার সৌন্দর্যতা।

আরোপড়ুন :

শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও প্রতিকার

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
139 জন পড়েছেন