Herbal remedies for Vitiligo Treatment

0
48

by Dr.Ravish Kamal

Treatment of Vitiligo & Leucoderma always remains challenging due to its unusual spreading behavior. Buts herbs and herbal medicines are proved to be providing most safe and successful treatment for it. Modern Ayurvedic Doctors made the treatment somewhat to the point, easy to intake, presentable and more result oriented as herbal extracts are being used to formulate Anti Vitiligo medicines now. The aspect of Ayurvedic treatment for vitiligo has changed towards providing faster results with rapid spread control of the white spots.

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Herbal remedies for white spot treatment are considered safe as herb based medicines not only works on providing pigmentation but it also works on body metabolism correctly to rectify immunity system. It actually balances the immunity so that immunological disorders as leucoderma get healed fast. For these reasons Ayurveda is considered and widely known as a treatment which works on root cause.

Vitiligo Treatment
Vitiligo Herbal Remedies
Cause of Vitiligo is best known as ‘autoimmunity’. It is a condition of self cell destruction by body immune system. The condition is caused due to various reasons which includes odd food combinations intake regularly, use of much chemicals in food, sudden increase in intake of sour items, intake of unwashed vegetables treated with pesticides and insecticides. Regular junk food intake can also be a reason especially in small children as those may contain harmful chemicals which have adverse effect on immune system.

Some abrupt lifestyles activities are also considered to be one of the reasons behind white spots. Prolonged chlorinated water swimming or a visit to water park can cause skin reaction and in few cases starts white spots. This is mostly seen in cases of small children as the cause of a white spot.

Maintaining food habits by completely following a vitiligo food and diet plan is also guided in vitiligo treatment by herbs. Mainly restrictions of sour food items, vitamin c containing fruits and juices, fermented food products, carbonated drinks are guided during herbal treatment of Leucoderma. Punctuality with Anti vitiligo medicines is advised to the patients for proper action of the treatment. Generally initial positive results can be observed in 6-8 weeks in an Ayurvedic Leucoderma treatment. Then monthly results can be seen with due course of treatment with strict diet restrictions.

One thing has to be understood that Vitiligo and Leucoderma are complex diseases in nature and along with the herbal Anti vitiligo medicines it requires proper diet restrictions as advised by the Ayurvedic Vitiligo Specialist.

autoimmunity, ayurhealthline, Herbal Treatments for vitiligo leucoderma, leucoderma, leucoderma cure, leucoderma treatment, lucoderma, New Research on Vitiligo treatment, Vitiligo care, vitiligo cure, vitiligo treatment, vitiligo.leucoderma, white patch treatment, white patches

Vitiligo Food & Diet
Diet restriction has much important role in Vitiligo & Leucoderma. Vitiligo & Leucoderma treatment also require food restriction for proper healing of patches. The diet restrictions mentioned below also helps in control of spread in Vitiligo.
Diet related –

Curd, Tamarind, Raw Tomato, Raw Onion, Raw garlic, Brinjal, Papaya, Green chili, Pickles, Citrus fruits & Citrus fruit items / juices as oranges, lemon even grapes are strictly restricted. Fish and red meat should also be restricted. Oily / spicy food & non vegetarian food intake should be lowered. Milk & milk product intake to be lowered (not in case of kids). One should not take medicines containing Amla (Gooseberry – a rich source of Vit. C). . . Any eatable made of soda bi carb, stored sour things, junk food, tinned foods or drinks, chocolates, coffee or cocoa products should not be taken regularly.

Lifestyle related –

Tight fittings, which give marks on the skin, like elastic must be avoided which disturbs the skin blood circulation. Scratching, itching must be avoided. Any injury will give rise to new patch. Plastic and rubber wear should be avoided. Plastic Ornaments, Bindi or any Stickers on the skin should be avoided. Avoid playing or swimming in the sun between 11 a.m. to 4 p.m.

Diet chart for Vitiligo patients:
The ascorbic acid in citrus fruits tends to reduce melanin pigmentation. So the vitiligo patients are restricted to take the citrus foods. Non vegetarian food is also to be avoided as they act as a foreign body to pigment cells & animal protein could reduce repigmentation rate. It is better to avoid even the milk and milk products to some extent as the milk protein may decrease repigmentation rate. Chickpeas (black/red gram or desichana), Greens and Red Radish, Beetroots, Carrots and Black dates may be taken. These are helpful in coverage of a white patch.

Please note that these diet restrictions are based on various scientific reasons and our experience in relation to vitiligo. These diet restrictions are not only the demand of our treatment but it’s recommanded to any person who is suffering from Vitiligo or Leucoderma. The affect of diet restrcions will be better with Ayurhealthline’s Anti vitiligo treatment.

Disclaimer *Please note that we do not claim to cure each and every case, nor do we guarantee any magical cure*

 

দেশ বিদেশে হাজার হাজার মানুষ এ রোগে ভুগছে। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে কেউ কেউ এক বছর থেকে দশ-পনেরো বছর পর্যন্ত বয়ে চলছেন অসুখটি। কিন্তু অনেক সময় অনেক চিকিৎসা করেও সঠিক চিকিৎসার অভাবে এবং এ বিষয়ে সঠিক জ্ঞান ও প্রয়োগের অভাবে রোগ থেকে পরিত্রাণ পাচ্ছেন না। এই নিবন্ধে আমরা চেষ্টা করেছি সেই সঠিক তথ্যাদি আপনাদের সামনে তুলে ধরতে, যাতে আপনারা বিষয়টি সম্পর্কে সঠিকভাবে জেনে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন।  শ্বেতী রোগ আক্রান্তদের মনের কষ্ট বুঝতে পেরে তাদের সহযোগিতায় আমাদের এ ছোট্ট নিবেদন। এই প্রবন্ধের শেষের দিকে আরো কিছু রোগের কারণ ও প্রতিকারের বর্ণনা দেয়া হয়েছে। এসকল রোগ থেকে আরোগ্য লাভের নানা পন্থা সম্পর্কে বর্ণনা রয়েছে। আপনারা এ রোগ থেকে মুক্ত হন, এটাই আমাদের কামনা। 

———–ডা. মিজানুর রহমান , (বি.এ.এম.এস) ইউনানী (হারবাল) মেডিসিনে অভিজ্ঞ  মুঠোফোন : 01777988889

শ্বেতী – বড় অদ্ভুত একটি রোগ, তবে ভয়াবহ নয় মোটেও! শুধুমাত্র রোগটি সম্পর্কে অজ্ঞতার কারণে শ্বেতী রোগীকে দেখলে আঁতকে ওঠেন অনেকেই। অনেকেই ভ্রূ কুঞ্চিত করেন ভাবনায়, ছোঁয়াচে নয়তো! একবারও কি ভেবে দেখেছেন, আপনার এই অভিব্যক্তি দেখে শ্বেতী রোগীর মনে কী ধরনের প্রতিক্রিয়া হয়? কেউ হয়তো অপমানিতবোধ করেন, কেউ বা পান কষ্ট!

শ্বেতী রোগের চিকিৎসা একটি সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এ রোগ হলে প্রাথমিক অবস্থায়  Recap ক্রিম সহ Vitiligo Natural সেবন করলে তা ব্যবহারে ভালো হয়ে যায়। তবে যাদের ২/৪ থেকে ৫-১০ বছর যাবত এ রোগটি শরীরে বাসা বেঁধে আছে তাদেরকে ডাক্তারের পরামর্শ মতো কমপক্ষে এক বছর ধরে  এ চিকিৎসা গ্রহণ করতে হয়। এতে ধৈর্য হরালে চলবে না। রীতিমতো ঔষধ সেবন করতে হয়, যাতে শরীরে পর্যাপ্ত মেলানিন উৎপন্ন হয়ে শ্বেতী আক্রান্ত স্থানে পূর্বের মতো ত্বকের বর্ণ ধারণ করতে পারে।

এ রোগ হলে প্রাথমিক অবস্থায় ৩টি Recap ক্রিম, Vitiligo Natural ও Antiligo ক্যাপসুল খেলে শরীরে মেলানিন উৎপন্য হতে শুরু করে এবং আক্রান্ত স্থান ক্রমে কমে শরীরের অন্যান্য স্থানের মতোই সুন্দর হয়ে উঠে এবং শ্বেতী রোগের পরিসমাপ্তি ঘটে। সেই সাথে ভবিষ্যতে আবার যাতে শ্বেতী আক্রান্ত না হতে হয় সেজন্য ডাক্তারের নির্দেশমতো চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে। ফলে পরবর্তীতে এ রোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা আর থাকে না।

যাদের শ্বেতী রোগ আছে তারা এ চিকিৎসা সেবা নিতে পারেন৷ এটা একটা ভাল মানের চিকিৎসা সেবা।

কারো কারো শ্বেতীরোগ চিকিৎসায় ভালো হতে একটু সময় লাগে।কারো কারো এক বছর বা দেড়-দুই বছরও সময় লাগে। কারো কারো কম সময়ে ভাল হয়। তবে শ্বেতীরোগের পরিমানের উপর সময় কম বা বেশী লাগে। তাই নিরাশ না হয়ে চিকিৎসা সেবা নিলে ভাল ফল পাবেন।

বর্তমান চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের নিরলস সাধনায় অনেকটা নিরাময়যোগ্য ওষুধের আবিষ্কার হয়েছে। কীভাবে বুঝবেন শ্বেতী হয়েছে? এই রোগে আক্রান্ত রোগীর চামড়া সাদা হয়ে যায়। এতে সর্বপ্রথম সাদা বিন্দুর দাগ পড়ে এবং ধীরে ধীরে অধিক স্থানজুড়ে সাদা হয়ে পড়ে।

প্রাথমিক পর্যায় হলে সম্প্রতি আবিষ্কৃত Recap নামের ঔষধ ব্যবহারে এর সফল চিকিৎসা আছে।  সেই সাথে Vitiligo Natural এবং Antiligo খেতে হবে। এটি শ্বেতী রোগের মহৌষধ। এতে মেলানিন সৃষ্টি হয় এবং ত্বকের বর্ণ স্বাভাবিক পর্যায়ে আনতে সহায়তা করে।

রোগের বয়স দীর্ঘ বা ক্রনিক হলে দীর্ঘদিন ওষুধ সেবন করতে হয়। এক্ষেত্রে চিকিৎসক ও রোগী দু’জনকে ধৈর্যের পরিচয় দিতে হয়। কারণ শ্বেতী একটি জটিল রোগ। এ রোগ থেকে মুক্তি পেতে ধৈয্যের পরিচয় দিতে হয়।

যাদের এ রোগটি শুরুর সাথে সাথেই চিকিৎসা শুরু করা যায় অর্থাৎ ঔষধ প্রয়োগ করা যায় এবং নিম্নে বর্ণিত খাবার বিধি-নিষেধের বিষয়ে সচেতন হওয়া যায়। তাদের এ রোগ সহজেই নির্মূল হয়। আর এ রোগটি দু’তিন বছর যারা লালন পালন করছেন। খাবার দাবার বিধি-নিষেধমতো গ্রহণ করছেন না, ঔষধ প্রয়োগ করছেন না তাদের সুস্থ হতে তিন, চার বা ছয়মাস এমনকি দু’এক বছর সময় লাগতে পারে। তবে ঔষধ প্রয়োগের বিষয়ে ধৈর্য হারাবেন না। ঔষধ ব্যবহার করতে হবে এবং খাবার-দাবারের বিষয়ে নিম্নে বর্ণিত বিধি নিষেধগুলো মেনে চলতে দ্রুত এ রোগ থেকে আরোগ্য লাভ করা যায়।

করণীয় :

কোষ্ঠকাঠিন্য দোষ থাকলে দূর করতে হবে। দুধ, ছানা, মাখন, স্নেহজাতীয়, ফলের রস ও অন্যান্য পুষ্টিকর খাদ্য বেশি বেশি খাবেন। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা ভালো।

যা বেশি বেশি খাবেন :

খুরমা খেজুর, সবুজ মটরশুটি, শালগম, পালং শাক, এপ্রিকট, মেথি, ডুমুর, সবুজ শাকশবজি, আম, পেয়াজ, পেস্তা, আলু, পিউর ঘি, মুলা, লাল মরিচ, শাকসবজি, আখরোট, গম

যা একদম খাবেন না :

জাম, অরেঞ্জ, ব্লু বেরিজ, অ্যালকোহল, মাখন, কাজুবাদাম, চকোলেট, সামুদ্রিক মাছ, রসুন, আঙ্গুর, পেয়ারা, লেবু, সামুদ্রিক তৈলজাত খাবার, পেপে, নাশপাতি, বরই, গরুর গোস্ত,  সোডা জাতীয় যে কোনো কোমল পানীয় (যেমন পেপসি, কোকাকোলা, সেভেন আপ ইত্যাদি) , টমেটো, তরমুজ। ধূমপান, এলকোহল সেবন, উগ্রমশলাযুক্ত খাবার বর্জনীয়।

Vitiligo খাবার ও পথ্য
পথ্য সীমাবদ্ধতা Vitiligo ও ধবল রোগীদের মধ্যে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। Vitiligo ও ধবল চিকিৎসার সঠিক নিরাময়ের জন্য খাদ্য সীমাবদ্ধতা প্রয়োজন। খাদ্য ছাড়াও নিচে উল্লিখিত সীমাবদ্ধতা Vitiligo মধ্যে বিস্তার নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

পথ্য সম্পর্কিত  :

দই, তেঁতুল, কাঁচা টমেটো, কাঁচা পেঁয়াজ, কাঁচা রসুন, বেগুন, পেঁপে, কাঁচা মরিচ, আচার, সাইট্রাস ফল ও সাইট্রাস ফল আইটেম / কমলালেবু যেমন রস, লেবুর এমনকি আঙ্গুর কঠোরভাবে সীমিত হয়।

মাছ ও লাল মাংস এছাড়াও বর্জন করা উচিত। তৈলাক্ত / মসলাযুক্ত খাদ্য বর্জ ন করতে হবে। অ নিরামিষ খাবার খাওয়ার নত হবে। দুধ ও দুধ পণ্য ভোজন না করা (বাচ্চাদের ক্ষেত্রে নয়)। এক আমলার (ভিটামিন সি সমৃদ্ধ উৎস বৈঁচি) ধারণকারী ওষুধ গ্রহণ করা উচিত নয়।

সোডা দ্বি carb, সঞ্চিত চুকা জিনিষ, জাঙ্ক ফুড, কলাই খাবার বা পানীয়, চকলেট, কফি বা কোকো পণ্য তৈরি কোন ভক্ষণযোগ্য নিয়মিত গ্রহণ করা উচিত নয়।

লাইফস্টাইল সম্পর্কিত :

টাইট ফিটিং, যা ত্বকে দাগ দিতে, মত স্থিতিস্থাপক অবশ্যই এড়িয়ে চলতে হবে যা ত্বক রক্তসংবহন সমস্যার সৃষ্টি করে। প্রারম্ভিক, চুলকানি অবশ্যই এড়িয়ে চলতে হবে। কোন আঘাত নতুন প্যাচ বৃদ্ধি দিতে হবে। প্লাস্টিক ও রাবার পরিধান এড়িয়ে চলা উচিত। প্লাস্টিক অলঙ্কার, Bindi বা ত্বকে কোন স্টিকার এড়িয়ে চলা উচিত।

Vitiligo রোগীদের জন্য ডায়েট চার্ট:


সাইট্রাস ফল অ্যাসকরবিক অ্যাসিড মেলানিন চর্মাদির স্বাভাবিক রং কমাতে থাকে। সুতরাং vitiligo রোগীদের সাইট্রাস খাবার নিতে সীমাবদ্ধ. অ নিরামিষ খাদ্য রয়েছে যেমন তারা রঙ্গক কোষ ও প্রাণিজ আমিষের একটি বিদেশী শরীরের হিসাবে কাজ repigmentation হার কমাতে পারে এড়ানো হবে. এটা দুধ প্রোটিন repigmentation হার হ্রাস হতে পারে যেমন কতক এমনকি দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্যের এড়াতে উত্তম. ছোলা (কালো / লাল গ্রাম বা desichana), সবুজ শাক এবং লাল মূলা, বিটরুট, গাজর এবং ব্ল্যাক ডেট গ্রহণ করা যেতে পারে. এই একটি সাদা প্যাচ এর কভারেজ সহায়ক.

অনুগ্রহ করে লক্ষ্য করুন যে, এই খাদ্য নিষেধাজ্ঞা বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক কারণে এবং vitiligo সম্পর্ক আমাদের অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে করা হয়. এই খাদ্য নিষেধাজ্ঞা না শুধুমাত্র আমাদের চিকিৎসার চাহিদা আছে কিন্তু এটা কোনো ব্যক্তি Vitiligo বা ধবল ভুগছেন হয় recommanded এর. খাদ্যের restrcions রভায়ব Ayurhealthline বিরোধী Vitiligo চিকিত্সা সঙ্গে ভালো হতে হবে।

অর্থাৎ নিষেধকৃত খাবারগুলো খেলে আপনার ত্বকে মেলানিন সৃষ্টিতে বাধাগ্রস্ত হবে। ফলে সহসাই আপনার রোগটি ভালো হবে না। তাই চেষ্টা করতে হবে এসব খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে। ওপরে বর্ণিত বিষয়গুলো মেনে চললে এ রোগ চলে যাবে চিরতরে। এটি  একটি যুগান্তকারী ঔষধ।

শ্বেতী রোগের ঔষধগুলো পাওয়া যাবে অর্ডার করলে। অর্ডার দিতে হলে আপনার  নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার রোগের নামসহ  মেসেজ করুন এই নাম্বারে : 01777988889 অর্ডার করলে (আপনার সাথে যোগাযোগ করে) কুরিয়ার সার্ভিসে দু’তিন দিনেই মধ্যেই ঔষধ পেয়ে যাবেন। এছাড়াও শ্বেতী আক্রান্ত স্থানের ছবিসহ ই-মেইল করতে পারেন  medicinerecap@gmail.com এই অ্যাড্রেসে।

বিশেষ প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে হলে সকাল ১০টা থেকে ১২টা এবং বিকেল ৫টা থেকে সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে যোগাযোগ করতে পারবেন।

নাম, ঠিকানা ও মুঠোফোন নাম্বারসহ মেসেজ পেলে আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে এবং আপনার অর্ডার মতো আপনার ঠিকানায় ঔষধ পাঠানো যাবে। ঔষধের প্যাকেটে ব্যবহার বিধি ও নির্দেশনা দেয়া থাকবে। সে অনুযায়ী আপনি ঔষধ ব্যবহার করতে পারবেন। ৩টি Recap ক্রিম ও ১টি Vitiligo Natural মূল্য ২৩৩০/- টাকা।

এটা প্রাথমিক চিকিৎসা। এ চিকিৎসার পর আপনাকে আরো হাই পাওয়ারের ১০ থেকে ১৫টি রিক্যাপ ও Vitiligo Natural ব্যবহার ও পর্যাপ্ত ঔষধ খেতে হবে। যাতে সারাজীবন আর এই অসুখ আপনাকে আক্রান্ত করতে না পারে।

প্রাথমিক অবস্থায় রোগটি হলে এক বা দু’মাস চিকিৎসায় ভালো হয়ে যায়। তবে যাদের দু’তিন বছর বা তারও বেশি সময় ধরে শ্বেতী, তাদেরকে ৩ থেকে ৬ মাস এমনকি ২-৩ বছর পর্যন্ত এ চিকিৎসা গ্রহণ করতে হয়।

vitiligo-symptom

Recap সাবধানে ক্রিম প্রয়োগ এবং নাক, মুখ, চোখ সঙ্গে যোগাযোগ এড়ানো নিশ্চিত করুন। দৈনন্দিন (সকাল ও সন্ধ্যা) শরীরের আক্রান্ত এলাকায় Recap ব্যবহার করুন।

Recap ব্যবহার করার পদ্ধতি
Recap একটি সাময়িক মলম বা ক্রিম এবং আক্রান্ত ত্বক এলাকায় বাহ্যিকভাবে প্রয়োগ করা হয়। এই চিকিৎসা ব্যবহার করে পরে হাত ধোয়া নিশ্চিত করুন। একটি পাতলা স্তর প্রয়োগ এবং আলতো করে ঘষে পর্যন্ত এটা চামড়ার মধ্যে প্রয়োগ করুন।

এছাড়াও Recap ব্যবহারের আগে সকাল বেলা প্যাকেটের ভেতর দেয়া নির্দেশিত অতিরিক্ত একটি মিশ্রণ ব্যবহার করলে সুফল পাবেন গায়ের বর্ণ আগের মতো ফিরে পাবেন এবং শ্বেতী রোগ চলে যাবে ক্রমে ক্রমে।

শ্বেতি শরীরের কোন অংশে হয় :

মুখমণ্ডল, কনুই, বক্ষদেশ এসব জায়গাতেই প্রথমে শ্বেতী হতে শুরু করে। কখনো কখনো শ্বেতী চোখের পাশ দিয়ে, নাকের দুপাশে বা ঠোঁটের কোণ বা উপর দিয়েও শুরু হয়। কিছু ক্ষেত্রে শ্বেতী খুব একটা ছড়ায় না, একটা বিশেষ জায়গাতেই থাকে। আবার কখনো এমনভাবে মুখে, বুকে, হাতে, পায়ে ছড়িয়ে পড়ে যে বোঝাই না এক সময় গায়ের রং আসলে কী ছিল! দ্বিতীয় ধরনের শ্বেতীর দাগই মানুষকে শ্রীহীন করে তোলে।

কোন বয়সে হয় :

সদ্যোজাত শিশুর শ্বেতী একেবারেই ধরা পড়ে না। ৫০ শতাংশ শ্বেতী ধরা পড়ে বয়স বছর দশেক হলে। বাকিদের শ্বেতী হয় বয়স দশ বছর পার হয়ে জীবনের যেকোনো সময়ে।

চিকিৎসা :

ছোট আকৃতির শ্বেতী মলম বা ওষুধে সেরে যেতে পারে। Recap মলম লাগানো বা Vitiligo Natural ওষুধ সেবনের পাশাপাশি সকালবেলার রোদ লাগাতে হবে শ্বেতী-আক্রান্ত স্থানে। বড় আকারের শ্বেতী হলে Recape মলম আর Vitiligo Natural ওষুধে কাজ হতে প্রায় দু বছরও লাগতে পারে।

ওষুধপর্বে কাজ না হলে এর পরে রয়েছে অপারেশন পর্ব। শ্বেতী চিকিত্‍সায় অপারেশনের নাম পাঞ্চ গ্রাফটিং। এ চিকিত্‍সা স্থিতিশীল শ্বেতী সারাতে করা হয়। অর্থাৎ যে শ্বেতী বছর দুয়েক মোটামুটি একই জায়গায় অবস্থান করে সেটাই স্থিতিশীল শ্বেতী।

লক্ষ্য করুন :

– যত অল্প বয়সে শ্বেতীর চিকিত্‍সা করা যায় তত ভালো।
– শরীরের যেকোনো জায়গায় সাদা দাগ দেখা দিলে দ্রুত চিকিত্‍সকের সাথে যোগাযোগ করুন।
– ডায়াবেটিস, হাইপার থাইরয়েড – এসব যাদের আছে তাদের শ্বেতী হবার প্রবণতা বেশি থাকে।

শ্বেতি রোগ সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়েছেন শহীদ সোহ্‌রাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চর্মরোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এবং অধ্যাপক ডা. রাশেদ মোহাম্মদ খান।

কারণ: ম্যালাসেজিয়া ফারফার নামক এক ধরনের ছত্রাক শ্বেতি রোগের কারণ। শরীরের যে কোনে স্থানেই এই ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে। তবে সাধারণত মুখ, বুক, পিঠ, হাতে ও পায়ে এর সংক্রমন বেশি দেখা যায়।

ছত্রাক আক্রান্ত স্থানে তৈরি করে ‘অ্যাজালাইক অ্যাসিড’, যা ত্বকের রং নির্ধারক উপাদান ‘পিগমেন্ট’ খেয়ে ফেলে। ফলে ওই স্থানটি সাদা বর্ণ ধারণ করে। ত্বকের এই রং পরিবর্তন হওয়াকে ডাক্তারি ভাষায় বলা হয় ‘পিটেরেসিস ভার্সিকালার’। বিবর্ণ হওয়ার পাশাপাশি চুলকানিও থাকতে পারে।

medical Illustration of the effects of vitiligo
medical Illustration of the effects of vitiligo

তবে একটা বিষয় মনে রাখতে হবে জন্মগতভাবে যাদের শ্বেতি রোগ রয়েছে তাদেরটা ভালো হয় না।

সতর্কতা:

তবে দীর্ঘসময় ত্বক ভেজা থাকলে শ্বেতি ফিরে আসতে পারে। স্যাঁতসেঁতে পরিবেশও শ্বেতির একটি কারণ। এজন্য ঘামে ভেজা কাপড় বেশিক্ষণ পরে থাকা যাবে না। বাইরে থেকে এসে কাপড় খুলে বাতাসে মেলে দিতে হবে।

যারা দীর্ঘসময় পানি নিয়ে কাজ করেন, বিশেষ করে গৃহিনীরা কাজ শেষে হাত মুছে ফেলা উচিৎ। হাতের ও পায়ের আঙুলের ফাঁকগুলো যাতে ভেজা না থাকে সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
902 জন পড়েছেন