লিউকোরিয়া বা শ্বেতপ্রদর থেকে মুক্ত হওয়ার উপায়

0
44

শ্বেতপ্রদর বা লিউকেরিয়া সব মহিলার কাছে পরিচিত একটি রোগবিশেষ। ছোট শিশু থেকে বয়স্ক মহিলাদের এ উপসর্গ দেখা দিতে পারে। গ্রামবাংলার আঞ্চলিক ভাষায় এর বিভিন্ন নামকরণ হয়ে থাকে। এটি স্ত্রী-যোনি সংক্রান্ত একটি রোগ।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

কোনো কারণবশত স্ত্রী-যোনি থেকে সাদা বর্ণের পাতলা বা গাঢ় স্রাব নিঃসৃত হওয়াকে লিউকোরিয়া বলা হয়। ঋতুবর্তী স্ত্রীলোকের ঋতুস্রাবের আগে বা পরে এর পরিমাণের তারতম্য হতে পারে। দীর্ঘ দিন এ রোগে ভুগলে স্রাব হলুদ ও দুর্গন্ধযুক্ত হয়ে থাকে।

উল্লেখিত অবস্থাগুলো এ রোগের কারণ হতে পারে :
*স্ত্রী হরমোনের তারতম্যের ফলে।
* স্ত্রী-যোনিপথের কোনো প্রদাহের কারণে।
* অনিয়মতান্ত্রিক জীবনযাত্রা ও অস্বাস্থ্যকর অবস্থার জন্য হতে পারে। উগ্র পানীয় ব্যবহারে এ রোগের সম্ভাবনা থেকে যায়।
* যোনিদ্বারে কোনো আঘাত বা প্রচ- চুলকানির ফলে হতে পারে।
* ব্যাকটেরিয়া ও ফাঙ্গাস, প্যারাসাইট, ইনফেকশনের জন্য হতে পারে। যৌন রোগের সংক্রমণে এ রোগ হতে দেখা যায়।
* অজীর্ণ ও উদরাময়, রক্তশূন্যতা, অতিরিকাত রজস্রাবের কারণে হতে পারে।
* উৎকণ্ঠা, দুঃসহ জীবন, অনিদ্রা, মানসিক চাপ।
* কপারটি ব্যবহার ও বিভিন্ন কৃত্রিম উপাদানে প্রস্তুত জেলির ব্যবহারে।
* কোনো রোগের সহযোগী রোগ হিসেবে এ রোগ হতে পারে। জরায়ুর স্থানচ্যুতি। ক্যান্সার, ডিম্বকোষ প্রদাহ ইত্যাদি।
* অজানা কারণেও কারো মধ্যে এ রোগ দেখা যায়।
* সিফিলিস ও সাইকোসিস মিয়াজমের কারণে এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগ নির্ণয়
আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে সহজেই এ রোগ নির্ণয় করা সম্ভব।

প্রথমত, রোগীর সর্বদৈহিক অবস্থা জানা প্রয়োজন। কোনো রোগের সহযোগী অবস্থা হিসেবে এ শ্বেতপ্রদর হয়েছে কি না তা নির্ণয় করতে হবে।

দ্বিতীয়ত, বাহ্যিকভাবে পরীক্ষণ দ্বারা এ রোগ নির্ণয় করা যায়।

তৃতীয়ত, যৌনমুখ ও পথ থেকে রস নিয়ে পরীক্ষা করা। প্রয়োজনবোধে বায়োপসি করা যেতে পারে।

চতুর্থ, মূত্র পরীক্ষণ, রক্ত পরীক্ষণ দ্বারা সংক্রমণের অবস্থা নির্ণয় করা যেতে পারে।

চিকিৎসা
সর্বপ্রথম যে কারণে এ রোগের সৃষ্টি হয়েছে তার প্রতিকার করতে হবে। মূল রোগটির চিকিৎসা হলে অনেক সময় শ্বেতপ্রদরের অতিরিক্ত চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। রোগীর জীবনযাত্রা, খাদ্যাভ্যাস ও পরিচ্ছন্নতার প্রতি বিশেষ লক্ষ্য নিতে হবে। জন্মনিয়ন্ত্রণের কুফল থেকে সৃষ্টি হলে তা অবশ্যই বর্জন করতে হবে। অতিরিক্ত যৌনসঙ্গম পরিহার করতে হবে। রোগীকে মানসিকভাবে সাপোর্ট দিতে হবে।

ভাবী ফল
এ রোগের ভাবী ফল মারাত্মক নয়। শরীর বিধানের মধ্যে শীর্ণতা, চোখমুখ বসে যাওয়া ও মানসিক কিছু পরিবর্তন ছাড়া এ রোগে দেহের বিশেষ ক্ষতি সাধন করতে দেখা যায় না। তবে কোনো ম্যালিগন্যান্ট অবস্থার সাথে এ রোগ দেখা দিলে তা অবশ্যই সতর্কতার সাথে চিকিৎসা নিতে হবে।

For further information, please contact: Dr. Mizanur Rahman, (BUMS) Unani Medicine Experienced. Mobile: +88 01777988889

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
796 জন পড়েছেন