পাঙ্গাস মাছের থাকা উপাদান শরীরকে ধীরে ধীরে শেষ করে

0
28

আরো পড়ুন : শ্বেতী রোগের কারণ, লক্ষ্মণ ও প্রতিকার

০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১১:২১:০০

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

অনেকেরই পছন্দের একটি মাছ হচ্ছে পাঙ্গাস, শরীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ওমেগা ফ্যাটি অ্যাসিডের চাহিদা মেটাতে ছোট মাছের বিকল্প নেই। পাঙ্গাস রান্না করা সহজ, কাঁটা বেশি থাকে না, খেতে সুস্বাদু। আপাত সস্তাও। সবই ঠিক আছে।

কিন্তু পাঙ্গাস মাছ থেকে সাবধান। পারলে এখনই খাওয়া বন্ধ করুন। তা না হলে অ্যাস্থমা, করোনারি ডিজিজ, হাড় ক্ষয়ের মতো নানা রোগ এমনকি ক্যান্সারের মতো মারণ রোগও অচিরেই বাসা বাঁধতে পারে শরীরে।

আরো পড়ুন : যৌন সমস্যার সমাধানে করণীয়

কিন্তু বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি গবেষণায় পাঙ্গাস সম্পর্কে মারাত্মক তথ্য উদ্ঘাটন করেছেন। দেখা গিয়েছে, পাঙ্গাস মাছের থাকা উপাদান শরীরকে ধীরে ধীরে শেষ করে। এক কথায়, স্লো পয়জন।

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস থেকে মুক্তির সহজ উপায়

কেন পাঙ্গাস বিপজ্জনক? পাঙ্গাস মাছ বড় হয় সাধারণ অবস্থাতেই। কিন্তু চাষ করা হয় ফার্মে। আমরা বাজার থেকে যে পাঙ্গাস কিনি, সেগুলি সবই নির্দিষ্ট কারখানায় চাষ করা হয়। আর এখানেই বিষ হয়ে যায় পাঙ্গাস । ফার্মে পাঙ্গাস স্বাদ বাড়ানোর ও সংখ্যায় বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করা হয় নানা রকম রাসায়নিক সার। সঙ্গে বিষাক্ত কীটনাশক। দেখা গিয়েছে, ফার্মে পাঙ্গাস চাষে ব্যবহার করা হয় এমন কিছু রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়, যা থেকে ক্যান্সার হয়। তাই চিকিৎ‌সকদের পরামর্শ, সুস্থ ভাবে বাঁচতে অবশ্যই মাছ খান তবে পাঙ্গাস নয়।

চাঁদপুর রিপোর্ট-এ আপনিও লিখুন :

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত, রাজনীতি, অর্থনীতি, সাহিত্য, সংস্কৃতি, বিনোদন, প্রবাস, সাক্ষাৎকারসহ যে কোনো বিষয় নিয়ে আপনিও লিখতে পারেন চাঁদপুর রিপোর্ট-এ। আপনার আশেপাশের নানা ঘটনা, বাল্যবিয়ে, প্রতারণা, নারী নির্যাতন, পুরুষ নির্যাতন, সামাজিক অনাচার-অবিচার, অসামঞ্জস্যতা নিয়ে লিখতে পারেন।

আরো পড়ুন : পাইলস থেকে মুক্তি পেতে করণীয়

এছাড়াও প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা chandpurreports@gmail.com

লেখা পাঠানোর সাথে আপনার ছবি, নাম, ঠিকানা, মুঠোফোন নাম্বার যোগ করবেন।

লেখা প্রকাশ হলেই আপনার জন্যে থাকবে উপযুক্ত সম্মানী এবং বছর শেষে বিশেষ সম্মাননা।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
297 জন পড়েছেন