এত নির্যাতনের পরও এত ভালোবাসা

0
52

আপডেট: ০১:৪২ পিএম, ০৩ মে ২০১৮

জেলা প্রতিনিধি খাগড়াছড়ি

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

খাগড়াছড়িতে স্ত্রী নির্যাতনকারী পাষণ্ড স্বামী অবশেষে স্ত্রীর জিম্মাতেই মুক্ত হয়েছে। আটকের পর বুধবার রাতে খাগড়াছড়ি পৌরসভার কাউন্সিলর মো. মাসুদসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে রোকেয়া তার স্বামীকে থানা থেকে ছাড়িয়ে আনেন।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) 01777988889 অথবা
01762240650
মূল্য : নাইট কিং- ১০৫০/- টাকা, নাইট কিং গোল্ড ১৩৫০/- টাকা।

গৃহবধূ রোকেয়া বেগমকে আর নির্যাতন না করার শর্তে স্বামী অটোরিকশা চালক মো. মাসুদ ও তার বাবা মো. ফয়েজ আহমেদ যৌথভাবে মুচলেকা দিয়েছেন। এছাড়া ফের নির্যাতনের ঘটনা ঘটলে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবে এমন শর্তও যুক্ত হয় মুচলেকায়। পরে স্ত্রীর জিম্মায় তাকে থানা থেকে যেতে দেয়া হয়।

খাগড়াছড়ি সদর থানা পুলিশের ওসি মো. সাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, নির্যাতিতা গৃহবধূর আকুতিতে পাষণ্ড স্বামীকে ছেড়ে দিতে হয়েছে। এত নির্যাতনের পরও স্বামীর প্রতি রোকেয়ার ভালোবাসা দেখে আমরা অবাক।

প্রসঙ্গত, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার সকালে খাগড়াছড়ি শহরের মেহেদীবাগ এলাকার বাড়ির উঠানে ফেলে গৃহবধূ রোকেয়া বেগমকে পাশবিক নির্যাতন করে পাষণ্ড স্বামী অটোরিকশা চালক মো. মাসুদ।

এক যুবক এ নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। নির্যাতনের সময় রোকেয়া আক্তারের কোলে থাকা এক বছর বয়সী শিশুকে নিয়ে মাটিতে গড়াগড়ি ও নির্যাতনের দৃশ্য দেখে পাষণ্ড মাসুদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন সবাই। কিন্তু স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালবাসায় পাষণ্ড স্বামীকে শাস্তির বদলে ছেড়ে দিতে হয়েছে পুলিশকে।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
339 জন পড়েছেন