‘সুশিক্ষা অর্জনের ফলে অল্প সময়ে দেশ উন্নত হতে পারে’

0
19

হাইমচর আইডিয়াল স্কুলে অভিভাবক সমাবেশ, ফলাফল প্রকাশ ও ছাত্র ছাত্রীদের সংবর্ধনা
একজন মায়ের সন্তানকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্যে যে শ্রম কষ্ট ত্যাগ করেন তা অন্যকারো পক্ষে সম্বব নয় …………….ইউএনও মো. মাসুদুর রহমান

সাহেদ হোসেন দিপু, হাইমচর প্রতিনিধি :
হাইমচর উপজেলার ডিজিটালাইজড শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাইমচর আইডিয়াল স্কুলে অভিভাবক সমাবেশ, ফলাফল প্রকাশ ও কিন্ডার গার্টেন এসোসিয়েশন কর্তৃক ২০১৭ সালের অনুষ্ঠিত বৃত্তি প্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহি অফিসার মো. মাসুদুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, মা যদি তার সন্তানের প্রতি সচেতন হন তাহলেই ওই সমাজ, রাষ্ট্র পরিবর্তন হয়। সুশিক্ষা অর্জনের ফলে খুব অল্প সময়ে সেই দেশ উন্নত হতে পারে। একটি সন্তান তার মা’য়ের কাছে সম্পূর্ন নিরাপদ। একজন মা’ যতই দরিদ্রতার বিতরে জীবনযাপন করেনা কেন, সে তার সন্তানকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে আগলে রাখার । একজন মা’ তার সন্তানকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য যে শ্রম কষ্ট ত্যাগ করেন, তা অণ্য কারো পক্ষে সম্বব না।এমনকি একজন বাবার পক্ষেও তা সম্বব হয় না। যার কারনে মা’য়ের বিকল্প শুধুই মা। তাই একজন মা’ই পারে তার সন্তানকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে দেশ জাতির হাল ধরাতে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

তিনি বাবা’দের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা যে সময়টুকু চায়ের দোকানে বসে ব্যায় করেন, তা ঐখানে ব্যায় না করে আপনার সন্তানদের পিছনে ব্যয় করুন। তাহলে দেখবেন একদিন আপনার সন্তান আপনার তথা এ দেশের মুখ উজ্জল করবে।

আজ ১৪ মে’ সোমবার সকাল ১০টায় হাইমচর আইডিয়াল স্কুলের হল রুমে অনুষ্ঠিত সভায় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ হাফেজ আহমেদ গাজির সভাপতিত্বে ও বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোঃ তাজুল ইসলামের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন হাইমচর থানা অফিসার ইনচার্জ রনোজিত রায়, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আহসানুজ্জামান লুলু, প্রকৌশর্লী মোঃ ইমাম হোসেন, হাইমচর প্রেসক্লাব সহ-সভাপতি মো. ফারুকুল ইসলাম, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আঃ করিম মিয়া, সহকারি শিক্ষক মো. সায়েদ হোসেন। পরে অতিথি বৃন্দ বৃত্তি প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেষ্ট, সনদপত্র ও পুরস্কার তুলে দেন। এসময় বিদ্যালয়ের শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
518 জন পড়েছেন