গণধর্ষণের পর হত্যা, ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

0
25

আপডেট: ০৩:০৭ পিএম, ২৮ মে ২০১৮

জেলা প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার আলোচিত পোশাক শ্রমিক আসমা আক্তারকে গণধর্ষণের পর হত্যার মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) 01777988889 অথবা
01762240650
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

একইসঙ্গে দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেকের কাছ থেকে এক লাখ টাকা করে জরিমানা আদায় করে নিহতের পরিবারকে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া এ মামলায় ৪ জনকে খালাস দেয়া হয়েছে।

সোমবার দুপুর ১২টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মো. জুয়েল রানা আসামিদের উপস্থিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- বন্দর উপজেলার কুশিয়ারা এলাকার নুরুদ্দিনের ছেলে নাসির উদ্দিন বিটল (৪০), মৃত আ. সালামের ছেলে খোকন মিয়া (৩২), আবু মিয়ার ছেলে ছুফুন (৩৪)।

আর খালাস প্রাপ্তরা হলেন- সালামত, মিজান, হাসান কবির মেম্বার ও আ. মজিদ।

আদালতের স্পেশাল পিপি রকিব উদ্দিন জানান, ২০০৮ সালের ১২ মার্চ বন্দর উপজেলার ভদ্রাসন এলাকায় পোশাক শ্রমিক আসমা আক্তারকে (২৮) অপহরণ করে গণধর্ষণ ও হত্যার পর মরদেহ ডোবায় ফেলে দেয় আসামিরা।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা রাজা মিয়া বাদী হয়ে প্রথমে অপহরণ মামলা করেন। মরদেহ পাওয়ার পর তদন্তে হত্যার রহস্য খুঁজে পায় পুলিশ।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
183 জন পড়েছেন