ফরিদগঞ্জে জোরপূর্বক জমি দখল ॥ আহত ১

ফরিদগঞ্জে আদালতের স্থিতিবস্থা ভঙ্গ করে জোরপূর্বক জমি দখল ॥ আহত ১

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি ঃ ফরিদগঞ্জে উপজেলার ৬নং গুপ্টি ইউনিয়নের সাইসাঙ্গা গ্রামের সর্দার বাড়ীতে আদালতের স্থিতিবস্থা ভঙ্গ করে জোর পূর্বক জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে।

সরজমিন ও অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, ফরিদগঞ্জস্থ্য সাইসাঙ্গা মৌজায় সিএস- ১২২ নং, বিএস- ২০ নং খতিয়ান ভুক্ত সাবেক ২৪৪ নং হালে ৪৮১ নং দাগের অন্দরে .০৩০০ একর ভুমি উক্ত বাড়ির মোঃ মাহাবুবুর রহমান গংরা দীর্ঘ দিন থেকি ভোগ দখল করে আসছে।

একই বাড়ীর মোঃ শাহাদাত হোসেন গংরা উক্ত ভুমি জোর পূর্বক দখল করে স্থায়ী রাস্তা ও পাকা ঘর নির্মানের কাজ শুরু করে। এতে মাহাবুর রহমান বাদী হয়ে ০৭/০২/২০১৮ইং তারিখে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দাখিল করেন। (মামলা নং- ৩৯২/২০১৮ইং)। উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত ঐ ভুমির উপর ১৪৫ ধারা অর্থাৎ স্থিতিবস্থার আদেশ দেন। কিন্তু শাহাদাত হোসেন গংরা আদালতের আদেশ কে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে নিজেকদের খেয়াল খুশি মতো জোর পূর্বক কাজ করে যাচ্ছেন।

এতে মাহাবুবুর রহমানের ভাগিনা মিজানুর রহমান বাবলু গত ৫ জুন মঙ্গলবার দুপুরে বাঁধা দিলে শাহাদাত হোসেন, মোঃ আলী, মোঃ খোরশেদ ও বারেক খলিফা দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে তার উপর হামলা করে তাকে মারাত্মক আহত করে এবং এ বিষয়ে কোন অভিযোগ করলে প্রানে মেরে ফেলার হুমকী দেয়। উক্ত শাহাদাত হোসেন নিজেকে পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তা দাবী করে প্রকাশ্য নিজে ও অন্যান্যদেরকে দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে। তাদের ভয়ে মাহাবুবুর রহমান ও তার আত্মীয় স্বজন নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে, যে কোন সময় তাহারা বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটানোর সম্ভাবনা রহিয়াছে।

এবিষয়ে একই বাড়ীর আবদুর রহমান জানান, দীর্ঘ ৫০ থেকে ৬০ বছর যাবত উক্ত শাহাদাত হোসেন গংদের অত্যাচারে বাড়ী ও এলাকাবাসীর সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। তাদের বাবা/চাচারা ও পুলিশে চাকুরী করতো, সেই দাপটে তারা বাড়ীর সাধারণ মানুষের উপর অন্যায় অত্যাচার করে আসছে। আমি নিজেও তাদের অত্যাচারে অত্যাচারিত একজন ভোক্তভোগী। বার বার আইনের ধারস্থ্য হয়েও কোন প্রতিকার পাই নি।

এবিষয়ে সাবেক ইউপি সদস্য শ্রী দীপক চন্দ্র ও মোঃ মাসুদ আলম পাটওয়ারী (আমিন) বলেন, উক্ত সমস্যার বিষয়ে গত ৪ জুন আমার বাড়ীতে একটি বৈঠক হয়। উক্ত বৈঠকে কাগজ পত্র পর্যালোচনায় দেখা যায় নালিশী ভুমি মাহাবুবুর রহমান গংদের কিন্তু শাহাদাত হোসেন গং জোর পূর্বক কাজ করে যাচ্ছে। চলমান কাজ বন্ধ করে ঈদের পর নালিশী ভুমির এওয়াজ নামা দলিল করে বিরাজমান সমস্যা সমাধান করে কাজ করা হবে। বৈঠকের একটি খড়শা কাগজ ও করা হয়। কিন্তু শাহাদাত হোসেন গংরা উক্ত বৈঠকের সিন্ধান্ত অমান্য করে পরদিনই নালিশী ভুমিতে কাজ শুরু করে। এটি এলাকার শালিশদের অপমানিত করার শামিল। যাহা মোটেই শোভনিয় নয়।

তাই উক্ত শাহাদাত হোসেন গংদে অন্যায় অত্যাচার থেকে বাড়ী ও এলাকার সাধারণ মানুষদেরকে মুক্ত করার জন্য প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছেন ভোক্তভোগী ও এলাকার সচেতন মহল।

429 জন পড়েছেন

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়