ফেন্সী হত্যা মামলা: অভিযুক্ত অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলামকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ

0
3

চাঁদপুর শহরে চাঞ্চল্যকর ও লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ড গল্লাক আদর্শ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শাহিন সুলতানা ফেন্সির খুনের ঘটনায় আটক ফেন্সির স্বামী অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাঁকে জেলা কারাগার থেকে হাসপাতালে আনা হয়। আজ মঙ্গলবার তাকে ২ দিনের রিমান্ডে নেয়া হতে পারে। এ জন্যেই তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় বলে জানা গেছে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

গত ৪ জুন সোমবার চাঁদপুর শহরের ষোলঘর পাকা মসজিদের বিপরীতে শেখ বাড়ি রোডস্থ নিজ বাসায় অধ্যক্ষ শাহিন সুলতানা ফেন্সি নির্মমভাবে খুন হন।

খুনের ঘটনায় পুলিশ ফেন্সির স্বামী অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে ঘটনাস্থল থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করে। পরদিন মঙ্গলবার নিহত ফেন্সির ভাই ফোরকান উদ্দিন বোনের খুনের ঘটনায় অ্যাডঃ জহিরুল ইসলাম ও তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী জুলেখা বেগমসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। সে দিন থেকে অ্যাডঃ জহিরুল ইসলাম ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী চাঁদপুর জেলহাজতে রয়েছেন।

জানা গেছে, গত রোববার অ্যাডঃ জহিরুল ইসলাম কারাঅভ্যন্তরে কিছুটা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন কারাচিকিৎসক ও ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আসিবুল ইসলাম তার প্রাথমিক চিকিৎসা করেন এবং ব্যবস্থাপত্র প্রদান করেন।

গতকাল সোমবার বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে অ্যাডঃ জহিরকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে প্রিজন ভ্যানযোগে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতাল অভ্যন্তরে মডেল থানা পুলিশ, জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও ডিএসবির কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সকাল থেকেই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন ছিলো। বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে নিয়ে আসা হয়।

এর পূর্ব থেকে পুলিশ সদস্যরা তার চিকিৎসার বিষয়ে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আসিবুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করেন। অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে প্রথমেই ডাঃ আসিবুল ইসলামের কাছে নেয়া হয়। সেখান থেকে ইসিজি করানোর জন্যে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে তাকে কিছু সময় রাখা হয়।

ইসিজি শেষ করে অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে হাসপাতালের ২য় তলায় ডাঃ মনিরুল ইসলামের চেম্বারে পাঠানো হয়। ডাঃ মনিরুল ইসলাম তখন চিকিৎসার কাজে ব্যস্ত থাকায় পুনরায় তাকে ১১১নং কক্ষে ডাঃ আসিবুল ইসলামের কাছে নিয়ে আসা হয়। দুপুর প্রায় ১টা পর্যন্ত এখানেই তাকে মেডিকেল পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানো হয়। এই পরীক্ষা-নিরীক্ষায় যুক্ত হন বিএমএ চাঁদপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মাহমুদুন নবী মাসুম। দুপুর ১টায় অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে পুনরায় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

ডাঃ আসিবুল ইসলাম এ প্রতিবেদককে জানান, অ্যাডঃ জহিরুল ইসলাম একজন ভিআইপি ব্যক্তি। তিনি কারাগারে রোববার দুপুরে কিছুটা অসুস্থবোধ করেন। তখন সেখানে গিয়ে আমি তাঁর প্রেসার মেপে দেখতে পাই প্রেসারে কিছুটা সমস্যা দেখা দিয়েছে। কারাগারের বাইরে থাকা অবস্থায় তিনি প্রেসারের ঔষধ সেবন করতেন। কারাঅভ্যন্তরে ঔষধ সেবন করতে না পেরে কিছুটা অসুস্থবোধ করেন। এ জন্যে আজকে তাকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখা গেছে অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামের শারীরিক অবস্থা ভালো আছে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে গত বুধবার আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মহিউদ্দিন আবেদন করেন। বিজ্ঞ বিচারক ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আজ মঙ্গলবার অ্যাডঃ জহিরুল ইসলামকে ২ দিনের রিমান্ডে আনা হতে পারে।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
26 জন পড়েছেন