ফরিদগঞ্জে বাড়তি ভাড়া আদায় ॥ গাড়ীর কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি

0
27

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি :

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের ৭দিন পার হয়ে গেলেও ফরিদগঞ্জের সিএনজি অটো রিক্সা চালকদের ঈদ উৎসবের নামে কয়েকগুন বেশি ভাড়ায় আদায় বন্ধ হয় নি। ঈদের ৩/৪দিন পুর্ব থেকে চাঁদপুর লঞ্চ ঘাট থেকে ফরিদগঞ্জ, রায়পুরসহ আশপাশের বিভিন্ন স্থানে গন্তব্যে যাওয়ার জন্য সিএনজি অটোরিক্সা নির্ধারিত ভাড়ার চাইতে কয়েকগুন বাড়তি ভাড়া আদায় শুরু করে। ঈদের পর এখন উল্টো চাঁদপুর লঞ্চঘাট যাওয়ার জন্য ফরিদগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ড সহ আশেপাশের এলাকায় যাত্রীদের কাছ থেকে কয়েকগুন ভাড়া আদায় করছে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

শুক্রবার ফরিদগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ড থেকে চাঁদপুর লঞ্চ ঘাট পর্যন্ত জনপ্রতি যাত্রী ভাড়া সর্বোচ্চ ৬০ টাকা হলেও আদায় করা হচ্ছে ১৫০/২০০/২৫০ টাকা করে। বিষয়টি কিছু বিক্ষুব্ধ যাত্রী জেলা, উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ ফরিদগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ডে অবস্থান নিয়ে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগে বেশ কয়েকটি সিএনজি অটোরিক্সাকে আটক করে । এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ইমরান হোসেন বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ শাহী কাউন্টারের এক টিকেট বিক্রেতা মামুনসহ কয়েকজন সিএনজি চালককে আটক করলেও বাড়তি ভাড়া আদায় করবে না এই মর্মে মুচলেকা নেয়।

চাঁদপুর গামী যাত্রী পবির , ইমাম হোসেন, পলি আক্তার, ইলিয়াছ জানান, সকালে তারা ফরিদগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ডে আসলে কোন সিএনজি অটোরিক্সা চালক চাঁদপুর ২শত টাকার নিচে যাবে না বলে জানায়। ফলে তারা ৪০ টাকার ভাড়া ২০০ টাকা দিয়েই যেতে বাধ্য হন।

এদিকে পুলিশ ও ম্যাজিষ্ট্রেটের অভিযানের কারণে সিএনজি অটোরিক্সা চালকরা যাত্রী বহন না করে বাসষ্ট্যা- তেকে সটকে পড়ায় গাড়ীর কৃত্রিম সংকটে পড়ে যাত্রীরা। এছাড়া পর্যাপ্ত সংকট গণ পরিবহন না থাকাতে এ সংকট আরো তীব্র হয়। ফলে বাধ্য হয়ে অনেক যাত্রীকে পিকআপ ভ্যানে করে চাঁদপুর যেতে দেখা গেছে।

অপর দিকে কয়েকজন সিএনজি অটোরিক্সা চালক জানান, গ্যাস সংকটের কারণে তারা অকটেন দিয়ে গাড়ী চালাচ্ছেন, তাই বাড়তি ভাড়া নতে হচ্ছে।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার এ. এইচ.এম মাহফুজুর রহমান জানান, সিএনজি অটোরিক্সা চালকদের ঈদ উপলক্ষে ঈদের তিনদিন পুর্বে ও ঈদের তিনদিন পর্যন্ত চাঁদপুর পর্যন্ত ভাড়া নির্ধারিত করে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা তা মানছেন না বলে অভিযোগ রয়েছে। আমরা এই বাপারে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
757 জন পড়েছেন