মতলবে চেয়ারম্যানের কথা অমান্য করে ৮ম শ্রেণির ছাত্রীর বাল্যবিয়ে

0
27

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধি: ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কথা অমান্য করে ৮ম শ্রেণির ছাত্রীকে বাল্য বিয়ে দিলেন মা-বাবা। গত ২২ জুন রাতে মতলব দক্ষিণ উপজেলার উপাদী দক্ষিণ ইউনিয়নের ঘোড়াধারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে জানা যায়, ওই গ্রামের হাওলাদার বাড়ির লোকমান হাওলাদারের মেয়ে বহরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ফাহিমা আক্তারকে গোপনে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে খবর পান ইউপি চেয়ারম্যান। বাল্য বিয়ের কথা শুনে চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মফিজুল ইসলাম বাবুকে গ্রাম পুলিশসহ ওই মেয়ের বাড়িতে যেতে বলেন। দিনভর গ্রাম পুলিশ পাহাড়া শেষে রাতে চলে আসলে গভীর রাতে পাশের বাড়ির মৃত ইয়াছিন তালুকদারের ছেলে কবির হোসেন তালুকদারের সহযোগিতায় উপজেলার ডিঙ্গাভাঙ্গা গ্রামের ফয়জল হকের ছেলে জহিরের সাথে বিয়ে সম্পন্ন হয়। স্থানীয় চেয়ারম্যানের কথা অমান্য করে বাল্য বিয়ে দেওয়ার ঘটনায় প্রশাসনের ভয়ে ওই মেয়ের মা-বাবা সকালেই ঘরে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, ৮ম শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছে শুনে আমি ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। তারপরও তারা গভরী রাতে মেয়েটিকে বিয়ে দেন।

এদিকে ওই একই গ্রামে ওই রাতেই বকাউল বাড়ির খোরশেদ বকাউলের মেয়ে স্থানীয় হযরত শাহজালাল উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী মিতুর জন্মসনদ জাল করে বিয়ে দেয় তার মা-বাবা। কিন্তু জেএসসি সনদ ও নবম শ্রেণির রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী তার জন্ম তারিখ ৯ নভেম্বর, ২০০৩।

একই রাতে দুটি বাল্য বিয়ের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.শাহিদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। তাদের ব্যাপারে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
547 জন পড়েছেন