ফরিদগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে নাতে ধরলেন গৃহবধূ

Published : Tuesday, 31 July, 2018 at 6:00 PM

ফরিদগঞ্জে ছিনতাইকারীদের হাতে নাতে ধরলেন গৃহবধূ ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে আরেকটি ব্যাংকে জমা দেয়ার জন্য আসার পথে স্বর্ণ বিক্রির কথা বলে কৌশলে তাঁর থেকে টাকা ও স্বর্ণালংকার হাতিয়ে নেয়ার তিনমাস পর ওই চক্রটির তিন সদস্যকে হাতে নাতে ধরলো সর্বস্ব হারানো নারগিস নামে এক গৃহবধু। সোমবার থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার পর মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে আদালতে সোর্পদ করে পুলিশ।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে এই ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। আটককৃত হলো, কচুয়া উপজেলার হারুনুর রশিদ(৪৫), হাইমচর উপজেলার খোরশেদ আলম (৩৮) ও মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার সুমন সরকার (৩৪)।

জানা গেছে, গত এবছরের ৮ এপ্রিল পৌর এলাকার গৃহবধু নারগিস এনসিসি ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএসের টাকা জমা দেয়ার জন্য যাওয়ার সময়, আটককৃতরা স্বর্ণ বিক্রি করবে, আরেকজন স্বর্ণ ক্রয় করবে এবং অপর জন স্বর্ণের বালা নারগিস বেগমকে দেখানোর কথা বলে টিস্যুসহ বালাটি তার নাকের কাছে নেয়ার পর তিনি কিছুটা অস্বাভাবিক হয়ে যান। পরে তাদের কথামতো ইসলামী ব্যাংকে গিয়ে ৫০ হাজার উঠানোর পর ওই তিনজন নারগিস বেগমকে উপজেলা পরিষদের ভিতরের এক কোনে নিয়ে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকার হাতিয়ে নিয়ে যায়। এই ঘটনার তিনমাস পর ৩০ জুলাই সোমবার নারগিস বেগম ফরিদগঞ্জ উপজেলা সদরের সোনালী ব্যাংকের সামনে ওই প্রতারক চক্রের তিনজনকে দেখে চিনতে পারে। পরে তাদের পিছু পিছু যেয়ে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আটক করে পুলিশে সোর্পদ করে।

থানা পুলিশ জানায়, থানায় আটক করার পর আটককৃতরা নারগিস বেগমের টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই করার কথা স্বীকার করে। এক পর্যায়ে তারা ছিনতাইকৃত ৫০ হাজার টাকা এলাকা থেকে নিয়ে এসে বাদীর হাতে তুলে দেয়। পরে নারগিস বেগম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করলে মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি নেয়ার জন্য আদালতে পাঠায় পুলিশ।

এব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি শাহ আলম জানান, আটককৃতরা সম্মিলিত ভাবে প্রতারক চক্রের সদস্য। এরা বিভিন্ন সময়ে স্বর্ণালংকার দেখিয়ে মানুষের সর্বস্ব লুটে নেয়। এই ব্যাপারে মামলা দেয়ার পর তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। নারগিস বেগমের সহায়তায় আমরা ছিনতাই হওয়া নগদ অর্থ উদ্ধার করতে সমর্থ হয়েছি।

558 জন পড়েছেন

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়