কুমিল্লায় পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ২ ডাকাত নিহত, গ্রেফতার ৫, আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার

0
27

জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল, কুমিল্লা প্রতিনিধি। ২৭ জুলাই ১৮

কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় গোয়েন্দা পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে ২ ডাকাত নিহত হয়েছে।দুপক্ষের গোলাগুলিতে আহত হয়েছে অন্তত ৪ পুলিশ সদস্য।এসময় আরো ৫ ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।২টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিভিন্ন ধরনের দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।গত রাতে(বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে) এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

কুমিল্লা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মোঃ শাখাওয়াত হোসেন জানান, তিতাস উপজেলার বাতাকান্দি-আছমানিয়া সড়কের নারায়নপুর কবরস্থানের কাছে ডাকাতির প্রস্তুতি চলছে এমন এক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযান চালায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতারা পুলিশের উপর গুলি ছোঁড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে উভয় পক্ষের গোলাগুালিতে আল আমিন ওরফে কাওসার ও এরশাদ মিয়া নামে দুই ডাকাত নিহত হয়।নিহত আল আমিন তিতাস উপজেলার মানিকনগর গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে এবং এরশাদ মিয়া কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার কংশনগর গ্রামের নুরুল ইসালের ছেলে। নিহত ও গ্রেফাতরকৃতদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ডাকাতির মামলা রয়েছে বলেও পুলিশ জানায়। এসময় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআ মোহাম্মদ শাহ কামাল আকন্দ পিপিএম ও এসআই মোঃ সহিদুল ইসলাম পিপিএম সহ চার পুলিশ আহত হয়। পুলিশ ২১ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে।

আটক ডাকাতরা হলো, কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার ভাটপারা এলাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে মোঃ আরঙ্গজেব (৫০), মনোহরগঞ্জ উপজেলার নাথের পেটুয়ার বিনাইঘর এলাকার আবুল খায়ের এর ছেলে মোঃ মিলন(৩৫), সদর দক্ষিণ উপজেলার কাজী পাড়া এলাকার আনু মিয়ার ছেলে নাছির(২৭), তিতাস উপজেলার রায়পুর গ্রমের (সরকার বাড়ী) মৃত খোরশেদ আলমের ছেলে মোঃ শরীফুল ইসলাম (২৯),মুরাদনগর উপজেলার ছালিয়াকান্দি গ্রামের পানজত আলীর ছেলে আবু মিয়া।

পুলিশ জানায়, নিহত ডাকাত এরশাদের বিরুদ্ধে ৯ টি এবয় কাউছারের বিরুদ্ধে ০৫ টি ডাকাতি মামলা বিচারাধীন ধৃত ডাকাত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে তিন এর অধিক মামলা রয়েছে।

নিহতদের মরদেহ প্রথমে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে কুমিল্লার তিতাস থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও পুলিশ জানায়।

চাঁদপুর রিপোর্ট/কুমিল্লা/২৭ জুলাই ২০১৮/জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল/….

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
263 জন পড়েছেন