মতলবে রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর রোজির বিরুদ্ধে তদন্ত

0
14

স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকা সংবাদ প্রকাশের পর
মতলবে রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর রোজির বিরুদ্ধে তদন্ত

মতলব প্রতিনিধি: মতলব দক্ষিণ উপজেলার রিসোর্স সেন্টারের ইনস্ট্রাক্টর রাশেদা আতিক রোজির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত কার্যক্রম গত ৩০ জুলাই দুপুরে উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দূর্নীতির বিষয়ে স্থানীয় বেশ কয়েকটি পত্রিকা ও শিক্ষকদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করেন পিটিআই, কুমিল্লার সুপারিটেন্ডেন্ট (চলতি দায়িত্ব) মোঃ হারুনুর রশিদ ভূইয়া।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

জানা যায়, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইনস্ট্রাক্টর রাশেদা আতিক রোজির বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ, শিক্ষকদের সাথে র্দূব্যবহার, প্রশিক্ষণে ডেপুটেশন পরিবর্তন, অফিসের বিভিন্ন সামগ্রী নিজের বাসায় ব্যবহার, নৈশ প্রহরী জাফরকে হয়রানি মূলক বদলী, অফিস স্টাফদের নিজের ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার, দাম্ভিকতাসহ নানা অনিয়ম এবং দূর্নীতির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলার বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১০জন শিক্ষক । ১০জন শিক্ষকের সমন্বিত অভিযোগ এবং স্থানীয় ও জাতীয় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

অভিযোগকারীদের সূত্রে জানা যায়, তদন্ত কমিটি মতলব দক্ষিণ উপজেলা শিক্ষা অফিসার শহিদুল হক মোল্লা, ৩জন সহকারী শিক্ষা অফিসার, বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক যথাক্রমে সোহরাব হোসেন, মামুন মিয়া, পারভীন আক্তার, আবদুল্লাহ-আল মমিন, মিজানুর রহমান, কামরুল ইসলাম, আছমা আক্তার, নজরুল ইসলাম, নুরুনন্নাহার বকুল, সহকারী শিক্ষক মামুন মিয়া, নূরে আলম সিদ্দিকী, উত্তম দে, তাহমিনা, আবুল কালামসহ ২৫জন শিক্ষক, রিসোর্স সেন্টারের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর এবং মতলব সেন্টারের প্রাক্তন নিরাপত্তা প্রহরী (বর্তমানে হাইমচর) জাফর মিয়াসহ অন্যান্যদের কাছ থেকে লিখিত বক্তব্য গ্রহন করেন তদন্ত কমিটি। এছাড়া অভিযুক্ত রাশেদা আতিক রোজির কাছ থেকেও লিখিত বক্তব্য গ্রহণ করেন তদন্ত কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদনের ব্যাপারে পিটিআই, কুমিল্লার সুপারিটেন্ডেন্ট (চলতি দায়িত্ব) মোঃ হারুনুর রশিদ ভূইয়ার বলেন, তদন্তের স্বার্থে এখন কিছু বলতে পারবো না। তবে বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে দেখছি।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
271 জন পড়েছেন