জেলা প্রশাসকের বদলির গুঞ্জনে চাঁদপুরের সাধারণ মানুষের মাঝে নীরব কান্না

0
66

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান বদলি হচ্ছেন-এমন গুঞ্জনে এ জেলার সাধারণ মানুষের মাঝে যেনো নীরব কান্না চলছে। এ মানুষগুলো বর্তমান জেলা প্রশাসককে তাদের একজন অভিভাবক এবং আশ্রয়ের জায়গা হিসেবে পেয়েছিলো। তারা তাদের যে কোনো প্রয়োজনে তাঁর কাছে ছুটে আসতো, কেউ খালি হাতে ফিরে যেতো না। দেখা গেছে যে, দুঃস্থ-অসহায় এবং সহায়-সম্বলহীন মানুষগুলো জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এসে তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করে তাদের অভাব-অভিযোগের কথা অনায়াসে বলতে পারতো।

জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খানও তাদেরকে নিজ কক্ষে এনে তাদের সুখ-দুঃখের কথা শুনতেন। এরপর যৌক্তিকভাবে সেগুলো সমাধানে উদ্যোগী হতেন। তখন দেখা যেত কাউকে তিনি নগদ অর্থ, কাউকে চাল, এমনকি কাউকে ঘর করার জন্যে ঢেউটিন পর্যন্ত দিয়েছেন। এগুলো তিনি সরকারের ত্রাণ শাখা থেকেই দিতেন। যা এসব অসহায় গরিবদেরই প্রাপ্য ছিলো। বিগত দিনে কোনো জেলা প্রশাসককে অসহায়-দুঃস্থদের প্রাপ্য সরাসরি এভাবে তাদের হাতে তুলে দিতে দেখা যায়নি।

http://picasion.com/

বর্তমান জেলা প্রশাসকের এমন জনহিতকর কাজ সকলের কাছে প্রশংসিত হয়েছে এবং তাঁকে এ কাজে অনেকেই উৎসাহ দিয়েছেন। এছাড়া তিনি বর্তমান সরকারের ভিশন-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে এ জেলাকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে গেছেন। এ জেলায় যোগদান থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত মাত্র ৭ মাসের কার্যকালেই তিনি দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন। জেলার প্রশাসনিক কাজে এখন বেশ গতি এবং স্বচ্ছতা রয়েছে বলে মনে করেন সচেতন মহল। প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে তাঁর বিগতদিনের কর্মকা-ের জন্যে তিনি এ জেলায় যোগদানের অল্প ক’দিনের মাথায় সরকারি কর্মকর্তাদের নোবেলখ্যাত ‘জনপ্রশাসন পদক’ও লাভ করেছেন। এমন একজন জনদরদী এবং করিৎকর্মা সৎ জেলা প্রশাসকের অনাকাঙ্ক্ষিত বদলির গুঞ্জনে এ জেলার সাধারণ মানুষ, সুধীমহল, সৎ জনপ্রতিনিধি এবং সৎ সরকারি কর্মকর্তাদের মাঝে অনেকটা হতাশা দেখা দিয়েছে। এমনকি অনেক অসহায় মানুষকে নীরবে কান্না করতেও দেখা গেছে। যদিও জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খানের বদলি সংক্রান্ত কোনো সরকারি আদেশ এখনও পর্যন্ত আসেনি। তাই তিনি বদলি হচ্ছেন কিনা সেটিও এখনো অনিশ্চিত। একটি স্বার্থান্বেষী দুষ্ট চক্র তাঁকে এ জেলা থেকে বদলি করতে উঠেপড়ে লেগেছে এবং তারাই এ গুঞ্জনটি বেশি রটাচ্ছে।

চলতি বছরের ৫ মার্চ চাঁদপুরের ১৯তম জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদান করেন মোঃ মাজেদুর রহমান খান। মাত্র ছয় মাসের দায়িত্ব পালনকালে তিনি চাঁদপুরের সাধারণ জনতা ও ভালো মানুষগুলোর মন জয় করে নিয়েছেন। যেখানেই সাধারণ মানুষের ভোগান্তি দেখেছেন, সেখানেই তিনি তা লাঘবের চেষ্টা করেছেন। পাশে দাঁড়িয়েছেন দুঃস্থ, অসহায় সাধারণ মানুষের। জেলার যে কোনো সমস্যায় তিনি ঘটনাস্থলে নিজে ছুটে গেছেন এবং তা সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছেন। তাই চাঁদপুরের সাধারণ মানুষ জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খানকে ‘নিজেদের একজন’ মনে করতে দেরি করেনি। এসব ছাড়াও সম্প্রতি ‘নিরাপদ সড়কে’র নামে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের যে গভীর ষড়যন্ত্র চলছিলো, তা জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান কৌশলে নস্যাৎ করে দিয়েছেন। তাঁর উল্লেখযোগ্য একটি সফলতা হচ্ছে-তিনি এ জেলায় যোগদানের এক মাসের মাথায়ই (১ এপ্রিল-২০১৮) মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আগমন হয় চাঁদপুরে। তাঁর এ আগমনে দুটি বিশাল কর্মসূচি হয় চাঁদপুর সদর ও হাইমচরে। একটি ছিলো সম্পূর্ণ সরকারি, আরেকটি ছিলো দলীয়। এ দুটি কর্মসূচিই শতভাগ সফলতার সাথে সম্পন্ন হয়েছে, যা চাঁদপুরের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এ দুটি কর্মসূচিসহ প্রধানমন্ত্রী চাঁদপুরে অবস্থানকালীন তাঁর সার্বিক নিরাপত্তার দায়-দায়িত্ব জেলা প্রশাসকের উপরই বর্তায়। এক্ষেত্রেও জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান শতভাগ সফল হয়েছেন বলে মনে করেন এ জেলার মানুষ। এটিও তাঁর কর্মদক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার অন্যতম দৃষ্টান্ত। এমন একজন দক্ষ ও জনদরদী জেলা প্রশাসকের হঠাৎ বদলির গুঞ্জনে জনসাধারণের মাঝে ব্যাপক বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। গতকাল তাঁর বদলির গুঞ্জনটি ‘টক অব দা ডিস্ট্রিক্টে’ পরিণত হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান অত্যন্ত সাদামাটা চলাফেরা করতে পছন্দ করেন। তাঁকে কখনো ট্রেনে চড়ে একা একা চট্টগ্রামে যেতে দেখা গেছে। কখনো নিজেই খোঁজ নিতে গেছেন জেলেপাড়ায়, বস্তি এলাকায় এবং নদীর পাড়ে ও ফুটপাতে যারা খোলা আকাশের নিচে দিনযাপন করছে তাদের কাছে। তাদের অভাব-অভিযোগ শুনে সরকারি বরাদ্দের সামর্থ্য অনুযায়ী তিনি নিজেই ওইসব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এতে করে সরকারের ভাবমূর্তি যেমনি সাধারণ মানুষের মাঝে অনেক বেড়েছে, তেমনি গরিবের প্রাপ্যও তাদের হাতে যথাযথভাবে পেঁৗছেছে।

সচেতন মানুষ মনে করছেন, মাত্র ছয় মাসে মাজেদুর রহমান খান কাজের মাধ্যমে এ জেলার মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন। এখানকার জন্যে তিনি মনপ্রাণ দিয়ে কিছু কাজ শুরু করেছেন মাত্র। তাঁর দ্বারা এ জেলায় সরকারের অনেক কাজ সুচারুরূপে বাস্তবায়ন সম্ভব বলে মনে করেন জেলার জনগণ। তাই তিনি বদলি হচ্ছেন এমন গুঞ্জন জেলাবাসীর কাছে অনাকাঙ্ক্ষিত ও বেদনাদায়ক। তবে তাঁর প্রতি একটি মহল অসন্তুষ্ট। সে মহলটি হচ্ছে চাটুকার, ধান্ধাবাজ, তদবিরবাজ, তোষামোদকারী এবং অসৎ ও দুর্নীতিবাজ। আর এ মহলটির সাথে যোগ হয়েছে সরকারের বিরোধী পক্ষ (ঘরে-বাইরে)। এ দুই শক্তিরই ষড়যন্ত্রের একটি অংশ হচ্ছে জেলা প্রশাসককে চাঁদপুর থেকে বদলির নীলনকশা এবং অপচেষ্টা। কারণ, ধান্ধাবাজ মহলটি বর্তমান জেলা প্রশাসকের কাছে তেমন একটা পাত্তা পেতো না, এতে করে তাদের ব্যক্তিগত স্বার্থ ও অসৎ উদ্দেশ্য হাসিল হতো না।

চাঁদপুরের সাধারণ মানুষসহ আপামর জনতা বর্তমান জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খানকে সরকারের চাকুরিবিধি অনুযায়ী পূর্ণ মেয়াদে এ জেলায় রাখার জন্যে সরকারের সর্বোচ্চ মহলে অনুরোধ জানিয়েছেন। (সূত্র : দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠ)

আপডেট : বাংলাদেশ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রি. মঙ্গলবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন এবং শেয়ার করুন …

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
924 জন পড়েছেন
http://picasion.com/