চাঁদপুরে গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগ, হাসপাতালে ভর্তি

0
19

শাহরাস্তি ব্যুরো :

চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তিতে যৌতুকের নির্যাতনে এক সন্তানের জননী হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

নির্যাতিত পরিবার সূত্রে জানা যায়, মেহের উত্তর ইউপির দেবীপুর গ্রামের ব্রাহ্মণ বাড়ীর মোঃ দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে শিপন আক্তার (২০), পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডের নোয়াগাঁও নতুন বাড়ীর বিল্লাল হোসেনের ছেলে বাহার উদ্দিন ভুঁইয়া (পলাশ)-এর সাথে গত ৯ জুলাই ২০১৬ খ্রি. বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিবাহের সময় কনের বাবা প্রায় ২ লাখ টাকার আসবাবপত্র এবং ১ লাখ স্বর্ণালংকার দিয়েছেন। কিন্তু বিয়ের কয়েক মাস পর থেকে পলাশ ও তার মা এবং বোন মিলে শিপন আক্তারের উপরে পুনরায় যৌতুকের দাবি নিয়ে অমানবিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে। সে থেকে শিপন আক্তার কাউকে কিছু না জানিয়ে নিরবে স্বামীর সংসার করে আসছে। দিনদিন স্বামী পলাশ ও তার মা পেয়ারা বেগম, বাবা বিল্লাল হোসেন এবং বোন বিউটি আক্তার ও ফাইমা আক্তার শিপন আক্তারকে ১ লক্ষ টাকা যৌতুকের দাবী করে বেদম মারধর করছে। এর মধ্যে তাদের সংসারে একটি পুট-পুটে একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন। কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার পর থেকে তাদের নির্যাতন আরো বেড়ে চলেছে।

এক পর্যায়ে গত ১৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখ শিপন আক্তারের উপরে একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাবার বাড়ী থেকে যৌতুকের ১ লক্ষ টাকা নিয়ে আসার জন্য স্বামী পলাশ ও তার পরিবারসহ তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে।

যার ফলে শিপন আক্তারের চোখ ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্ত ফুলা জখম দেখা দেয়। খবর পেয়ে তার বাবা, ভাইসহ কয়েকজন লোক তাকে আনতে গেলে তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে এবং তাদের চলে যাওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে থাকেন। ওই সময় তারা কয়েকজন লোককে জানিয়ে পাষ- স্বামী পলাশের বাড়ী থেকে শিপন আক্তারকে এনে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেয়। ডাক্তার তার চোখের চিকিৎসার অবনতি দেখে চাঁদপুর চক্ষু হাসপাতালে রেফার করে। বর্তমানে সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে শিপনের পরিবার স্থানীয় প্রশাসন যৌতুক লোভী স্বামী পলাশ ও তার পরিবারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

আপডেট : বাংলাদেশ সময় ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন এবং শেয়ার করুন …

 

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
347 জন পড়েছেন