ফরিদগঞ্জে এক পদের দুই দাবীদার, বিপাকে নেতাকর্মীরা

0
24

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি :
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের পদ নিয়ে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। ওই পদের দাবীদার এখন দু’জন।

একজন প্রায় দেড় বছর পর প্রবাস ফেরত মিজান ভদ্র । সাধার সম্পাদকের অনুপস্থিতি জনিত কারণে অন্যজন সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে পদোন্নতি পাওয়া আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দ। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সি.যুগ্মসম্পাদকের স্বাক্ষরিত চিঠিতে মিজান ভদ্রকে তার পদে পুন:বহাল করে গত ১২ সেপ্টেম্বর পত্র প্রেরণ করেন। আবার দুই দিন পর ১৪ সেপ্টেম্বর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পাল্টা চিঠি দিয়ে আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দকে তার পদে বহাল রয়েছে বলে চিঠি প্রদান করেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে জীবিকার টানে মধ্যপ্রাচ্যে পাড়ি জমায় উপজেলার ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান ভদ্র। যাওয়ার প্রাক্কালে তিনি দায়িত্ব থেকে অব্যাহতির বিষয়টি দলকে অবহিত করে চিঠি প্রদান করেন। পরবর্তীতে তার চিঠি গ্রহণ করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগে সভায় সিদ্ধান্ত মোতাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটি উপজেলার গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করে চিঠি প্রদান করেন। সেই থেকে আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

কিন্তু চলতি বছরের মার্চ মাসে মিজানুর রহমান ভদ্র দেশে ফিরে এসে তার দলীয় পদ ফিরে পাওয়ার জন্য আবেদন করেন। সেই থেকে ঝামেল শুরু হয়। সাংগঠনিক বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া জন্য সংসদ সদস্যের নেতৃত্বে গঠিত ১০ সদস্যের উপকমিটির কাছে প্রেরণ করা হয়।

সর্বশেষ গত ২৮ আগস্ট উপজেলা আওয়ামীলীগের জরুরী কার্যনিবার্হী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভার সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে গত ১২ সেপ্টেম্বর ফরিদগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল খায়ের পাটওয়ারী ও সি. যুগ্মস্পাদক আলমগীর হোসেন স্বপন স্বাক্ষরিত দলীয় প্যাডে মিজানুর রহমান ভদ্রকে স্বপদে পুন:বহাল করেন।

চিঠিতে উল্লেখ করেন, মিজান ভদ্র প্রবাসে গেলে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন আখন্দকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পদে যেভাবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে তা সাংগঠনিক ভাবে বিধি সম্মত হয়নি। ফলে কার্যনির্বাহী কমিটি সদস্যদের মাতমতের ভিত্তিতে মিজানুর রহমান ভদ্রকে ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক পদে পুন:বহাল করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। একই সাথে খোকন আখন্দকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালনের কথা বলা হয়।

এর দুই দিন পর গত ১৪ সেপ্টেম্বর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাহেদ সরকার দলীয় প্যাডে পাল্টা চিঠিতে আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দ তার পদে এখনো বহাল বলে জানান।

তিনি তার চিঠিতে উল্লেখ করেন, ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের একটি শক্ত ঘাঁিট। তাই দলীয় বিশৃংখলা এড়াতে ও দলের স্বার্থে অসাংগঠনিক সিদ্ধান্ত দলের জন্য ক্ষতিকর হবে। এমপি মহোদয়ের নির্দেশে সাংগঠনিক বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণে গঠিত উপকমিটির কোন প্রকার সুপারিশ না পাওয়া পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে উপস্থাপন পূর্বক অনুমোদন সাপেক্ষে ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের রেজুলেশন সিদ্ধান্ত মোতাবেক অনুসরণ করে উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক ১৫/২/২০১৭ যৌথ স্বাক্ষরিত আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দকে দায়িত্ব পালনের যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে সেই মোতাবেক ইউনিয়নের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলবে। ফলে গত ১২/৯/২০১৮ তারিখে ফেইস বুক মাধ্যমে যে প্রচার হয়েছে তা সঠিক নয়।

এব্যাপারে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও যুগ্মসম্পাদকের স্বাক্ষরিত একটি চিঠি এসেছে। তবে আমি এখানো ঢাকায় অবস্থান করায় তা দেখি নি।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল গনি বাবুল পাটওয়ারী জানান, সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত মোতাবেক দল চলবে। এর বেশি কিছু জানি না।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য মশিউর রহমান মিটু বলেন, সর্বশেষ কার্যনিবার্হী কমিটির সভায় এই ধরনের সিদ্ধান্ত হয় নি। তাছাড়া খোকন আখন্দকে সাধারণ সম্পাদক পদে আসিন করার সিদ্ধান্তটিও সঠিক নয়।

প্রচার সম্পাদক সুলতান আহমেদ রিপন জানান, সভায় সিদ্ধান্ত হয়, ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নিয়ে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে তা বসে দ্রুত নিরসন করার।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাহেদ সরকার জানান, ‘আমার প্রদান করা চিঠিই সঠিক।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল খায়ের পাটওয়ারী বলেন, নিয়ম মনে সব করা হয়েছে। সম্পাদক মিথ্যাচার করছে।

অন্যদিকে মিজানুর রহমান ভদ্র সভাপতির চিঠি এবং আনোয়ার হোসেন খোকন আখন্দ সম্পাদকের চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। ফলে এক পদ নিয়ে দুই দাবীদার নিয়ে বিভ্রান্ত নেতাকর্মীরা।

আপডেট : বাংলাদেশ সময় ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  খ্রি.শনিবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন এবং শেয়ার করুন …

 

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
301 জন পড়েছেন