ফরিদগঞ্জ নবীন কচি-কাচাঁর মেলার রচনা প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

0
39

ফরিদগঞ্জ নবীন কচি-কাচাঁর মেলার রচনা প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান
“মুখস্থ করে নয়, নিজ মেধাকে কাজে লাগিয়ে রচনা লিখতে হয় এতে সৃজনশীলতা প্রকাশ পায় …………………. এএইচএম. মাহফুজুর রহমান

আনিছুর রহমান সুজন :
কেন্দ্রীয় কচি-কাচাঁর মেলার ৬২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ফরিদগঞ্জ নবীণ কচি-কাঁচার মেলার আয়োজনে নিজ গ্রাম-শীষক নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতা পুরষ্কার বিতরনী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

গতকাল শনিবার বিকেলে ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবে আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএইচএম মাহফুজুর রহমান।

এসময় তিনি বলেন, “মুখস্থ করে নয় নিজ মেধাকে কাজে লাগিয়ে রচনা লিখতে হয়। এতে সৃজনশীলতা প্রকাশ পায়। আমি যখন বিদেশে গিয়েছিলাম পড়তে ঠিক তখন আমাদের পরীক্ষার বদৌলতে রচনা লিখতে দেয়া হতো। বিভিন্ন বই পড়ে সেসব লেখা আমাদের লিখতে হতো। তাই বই পড়ার বিকল্প নেই। আমরা যখন ছোট বেলায় পরীক্ষা দিতাম তখন সুন্দর সুন্দর কোটেশন লিখতাম রচনায়, কখনো মুখস্ত করে রচনা লিখিনি”।

তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, “ তোমরা রচনা লিখবে নিজ থেকে। বইয়ের রচনা হুবহু মুখস্ত না করে নিজেদের মেধা খাটিয়ে রচনা লেখা শিখতে হবে। এতে করে তোমরা যখন বড় ক্লাসে উঠবে তোমাদের আর রচনা লিখতে সমস্যার সৃষ্টি হবে না।”
তিনি কচি-কাঁচার মেলা সম্পর্কে বলেন, ১৯৫৫ সালে ২ এপ্রিল দৈনিক ইত্তেফাকের মাধ্যমে কচি-কাঁচার আসর প্রকাশ শুরু হলে রোকনুজ্জামান খান পরিচালক হিসাবে দাদা ভাই ছদ্মনামটি ব্যবহার করেন। সেই থেকেই দাদা ভাই নামটি শিশু-কিশোরদের মাঝে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠে।

তিনি আরো বলেন, আমার ও এসব সংগঠন গুলোতে সাহায্য করতে এবং এদের পাশে দাঁড়িয়ে কাজ করতে মন চায়। বিভিন্ন কারণে সেটা হয়ে উঠে না। তবে তিনি সংগঠনটির উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, ভবিষ্যতে কোনো প্রকার সাহায্য-সহযোগিতা লাগলে আমি সাধ্যমত তা করতে চেষ্টা করবো।

নবীন কচি-কাঁচার মেলার যুগ্ম-পরিচালক মামুনুর রশিদ পাঠানের সভাপতিত্বে ও নবীন কচি-কাঁচার মেলার সংগঠক প্রবীর চক্রবর্তীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ফরিদগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাসিনা আক্তার ডলি, নবীন কচি-কাচাঁর মেলার যুগ্ম-সংগঠক নরুন্নবী নোমান, যুগ্ম-সংগঠক লিটন কুমার দাস, কোষাধ্যক্ষ নারায়ণ রবিদাস, রচনা উপকমিটির আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম ফরহাদ,সদস্য জাকির হোসেন সৈকত, ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সদস্য রিফাত কান্তি সেন, ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামের সভাপতি হোসেন মিলন প্রমুখ।

পরে নিজ গ্রাম শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জনকারীকে সনদ ও নগদ ১০ হাজার টাকা, দ্বিতীয় স্থান অর্জনকারীকে সনদ ও ৭ হাজার টাকা, তৃতীয় স্থান অর্জনকারীকে সনদ ও ৫ হাজার টাকা পুরস্কার এবং ১৩জন জনকে বিশেষ পুরস্কার হিসেবে সনদ ও দুই হাজার টাকা পুরস্কারের অর্থ তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

আপডেট : বাংলাদেশ সময় : ১২:১৫ পিএম, ০৮ অক্টোবর ২০১৮  খ্রি.সোমবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন এবং শেয়ার করুন …

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
398 জন পড়েছেন