ahsan

শিশু বলাৎকার করতে গিয়ে ধরা পড়লেন আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক আহসান উল্লাহ

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :
ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ ওরফে আহসান সাইয়েদের বিরুদ্ধে এক শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগে শনিবার রাতে চট্টগ্রাম নগরের চান্দগাঁও আবাসিকে তার বাসা অবরোধ করে স্থানীয়রা। পরে সপরিবারে এলাকা ছাড়ার শর্তে উদ্ধার পান তিনি।

Night King Sex Update
নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, মেহ-প্রমেহ, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

স্থানীয়রা জানান, ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ ঢাকায় থাকলেও তার পরিবার নগরের চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার ‘এ’ব্লকের ২ নম্বর সড়কে বসবাস করেন। আহসান উল্লাহ সাপ্তাহিক ছুটিসহ অবসরে চট্টগ্রামের বাসায় থাকেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, গত শনিবার সন্ধ্যায় তিনি (আহসান উল্লাহ) পার্শ্ববর্তী রাস্তা থেকে এক শিশুকে ফুঁসলিয়ে বাড়ির গ্যারেজে নিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা করেন। এ সময় বিষয়টি টের পেয়ে এলাকাবাসী সন্ধ্যা থেকে রাত ২ টা পর্যন্ত তার বাসা অবরোধ করে রাখে। পরে এলাকাবাসীর কাছে ওই শিশুকে বলাৎকারের চেষ্টার কথা স্বীকার এবং সপরিবারে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে রাজি হন তিনি।

জাহেদুল ইসলাম নামে এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, ‘শুধু এবারই নয়, আগেও এলাকার কয়েক শিশু অধ্যাপক আহসান উল্লাহর হাতে বলাৎকারের শিকার হয়েছে। তিনি বিভিন্ন সময় শিশুদের ফুঁসলিয়ে তাদের সঙ্গে কূরুচিপর্ণ আচরণ করতেন। বিষয়টি জেনেও এলাকাবাসী হাতেনাতে ধরার অপেক্ষা করছিলেন। শনিবারের ঘটনার পর তিনি নিজেই বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এরপর সপরিবারে এলাকা ছাড়ার শর্তে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহর মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

চান্দগাঁও থানার ওসি মো. আবুল বাশার বলেন, ‘এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে সেখানে ফোর্স পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকে পায়নি।’

এদিকে এলাকাবাসীর দাবি উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পুলিশের গাড়িতে করেই অধ্যাপক আহসান উল্লাহকে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে দেশের প্রথম সরকারি ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ এর উপাচার্য নিযুক্ত হন। এর আগে তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন।

আপডেট : বাংলাদেশ সময় : ০১:৪৪ এএম, ০৫ নভেম্বর ২০১৮ খ্রি.সোমবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন এবং শেয়ার করুন …

1,462 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন