হলি আর্টিজান ইস্যুতে আটকে গেল ফারুকীর সিনেমা

0
165

বিনোদন প্রতিবেদক
‘ডুব’র পর নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী নির্মাণ করেছেন ‘শনিবার বিকেল’ সিনেমাটি। আন্তর্জাতিক বাজারকে টার্গেট করে ছবিটির ইংরেজি নাম রাখা হয়েছে ‘স্যাটারডে আফটারনুন’। গত বছর সিনেমাটির শুটিং শেষ হয়। সম্পাদনা শেষে ছবিটি জমা পড়েছিলো সেন্সর বোর্ডে। সেখানে প্রদর্শিত হওয়ার পর ৯ জানুয়ারি সিনেমাটি সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পাচ্ছে বলে জানা যায়। ছবিটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে বিষয়টি জানানো হয়।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

কিন্তু অবশেষে আজ (১৬ জানুয়ারি) বিকেলে জানা গেল, ছবিটি এখনই ছাড়পত্র পাচ্ছে না। স্থগিত করা হয়েছে সেন্সর বোর্ডের পুরনো সিদ্ধান্ত। অভিযোগ উঠেছে ছবিটি নির্মিত হয়েছে ২০১৬ সালে ঢাকার হলি আর্টিজানে ঘটা নির্মম সন্ত্রাসী হামলার ছায়া ধরে। বিষয়টি ফারুকী সরাসরি স্বীকার করেননি কখনই। শুধু এই কারণে, নাকি আরও কিছু কারণ রয়েছে সে বিষয়ে জানা যায়নি এখনও।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সেন্সর বোর্ডের আরেক জ্যেষ্ঠ সদস্য মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘ছবিটির বিষয়বস্তুর সঙ্গে আইন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যুক্ত। তাই বাড়তি সতর্কতার জন্য এটির ছাড়পত্র স্থগিত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে ছবিটির বিষয়ে আরও পর্যবেক্ষণ করবে বলেই মনে হয়। আপাতত ছাড়পত্র স্থগিত করা হলো।’

মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর নতুন এ ছবিতে অভিনয় করেছেন ফিলিস্তিনের অভিনেতা ইয়াদ হুরানি, নুসরাত ইমরোজ তিশা, জাহিদ হাসান, নাট্যজন মামুনুর রশীদ ও কলকাতার পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। ছবিটি বাংলাদেশ থেকে প্রযোজনা করছে জাজ মাল্টিমিডিয়া ও ছবিয়াল, আরও আছেন ভারতের শ্যাম সুন্দর দে।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে ঢাকার গুলশান হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় ৯ ইতালীয়, ৭ জাপানি, ১ ভারতীয় ও ২ বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হন। রাতভর সন্ত্রাসী ও জঙ্গি হামলার পরদিন (শনিবার) সকালে সেনাবাহিনীর অপারেশন সার্চ লাইটের মাধ্যমে এর সমাপ্তি ঘটে। পরে সেখান থেকে পাঁচ জঙ্গির সঙ্গে রেস্তরাঁর প্রধান শেফ সাইফুল ইসলামের লাশ উদ্ধার হয়। আর সাইফুলের সহকারী জাকির হোসেন শাওন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

প্রকাশিত: ০৬:২৯ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
342 জন পড়েছেন