‘আমি সব মন্ত্রীর বাপ’

0
115

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

কিছুদিন আগে মন্ত্রী হওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন ভারতের মধ্যপ্রদেশের বহুজন সমাজবাদী পার্টির (বিএসপি) বিধায়ক রমাবাই। কিন্তু এবার তিনি বললেন, আমার মন্ত্রী না হলেও চলবে। আমি তো সব মন্ত্রীর বাপ। মধ্যপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচনের পরে বিএসপি হয় কিং মেকার। বিএসপির সমর্থনেই কংগ্রেস সরকার গঠন করে বলে দাবি করেছেন তিনি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

মধ্যপ্রদেশের বিধানসভার ভোটের পর বার বার খবরের শিরোনামে এসেছেন রমাবাই। তিনি পাথারিয়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। ৭ জানুয়ারি তিনি মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের কাছে দাবি করেন, তাদের দলের বিধায়ক সঞ্জীব সিং কুশওয়াহাকে মন্ত্রী করতে হবে। তাকে করতে হবে প্রতিমন্ত্রী।

গত শুক্রবার তিনি বলেন, কমলনাথ কথা দিয়েছিলেন, বিএসপির বিধায়কদের মন্ত্রী করা হবে। তিনি যদি কথা না রাখেন, মধ্যপ্রদেশেও কর্ণাটকের মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে।

কর্ণাটকে কয়েক মাস আগে কংগ্রেসের সমর্থনে সরকার গঠন করে জেডিএস। কিন্তু সম্প্রতি কংগ্রেসের পাঁচ বিধায়ক ‘নিখোঁজ’ হয়ে যান। নিখোঁজ এই বিধায়করা মুম্বাইয়ের এক হোটেলে আছেন। বিজেপি নেতারা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। তারা কয়েকজন বিধায়ককে ভাঙিয়ে কর্ণাটকের সরকার ফেলে দিতে চান।

 

ভারতীয় একটি দৈনিক বলছে, বিজেপিও ভয় পাচ্ছিল, তাদের দু’-একজন বিধায়ককে লোভ দেখিয়ে দলে টানতে পারে কংগ্রেস। রাজ্যের সব বিজেপি বিধায়ককে রাখা হয়েছিল হরিয়ানার এক রিসোর্টে। রমাবাই কমল নাথকে বলতে চেয়েছিলেন, বিএসপির কয়েকজনকে মন্ত্রী না করলে মধ্যপ্রদেশেও কর্ণাটকের মতো অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, তাকে মন্ত্রী না করলেও জনস্বার্থে কাজ করে যাবেন। আমাকে যদি মন্ত্রী করা হয়, তাহলে ভালো কাজ করব। যদি মন্ত্রী না করা হয়, তাহলেও কাজ করে যাব। কারণ আমি তো সব মন্ত্রীর বাপ। আমিই তো সরকার তৈরি করেছি।

গত বিধানসভা ভোটে মধ্যপ্রদেশে কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ২৩০ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস পেয়েছিল ১১৪টি আসন। বিজেপি পেয়েছিল ১০৯টি। বিএসপি-র দু’জন, সমাজবাদী পার্টির একজন ও চার নির্দলীয় বিধায়ককে নিয়ে কংগ্রেস সরকার গঠন করে। কিন্তু বিএসপি বা এসপি-র কাউকে মন্ত্রী করা হয়নি।

কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশে জোট গড়েছে বিএসপি ও এসপি। সেই জোটে তারা নেয়নি কংগ্রেসকে। বিএসপি প্রধান মায়াবতী একসময় কংগ্রেস ও বিজেপিকে তাদের শত্রু বলেছিলেন। কিন্তু মধ্যপ্রদেশে ভোটের পর বিজেপিকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে কংগ্রেসকে সমর্থন করেন।

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০১৯

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
278 জন পড়েছেন