রাজশাহীতে একই গ্রামে তিনদিনে চারজনের মৃত্যু

0
63

 

রাজশাহীর তানোর উপজেলার একটি গ্রামে তিনদিনে এক শিশুসহ চারজন মারা গেছেন। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন ওই গ্রামের মানুষ। গ্রামবাসীর ধারণা, অজ্ঞাত কোনো রোগে আক্রান্ত হয়ে এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

তবে স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, এতে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার বাধাইড় ইউনিয়নের বহরইল ভান্ডাইল নামের ওই গ্রাম পরিদর্শনে যান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রোজি আরা। সেখান থেকে তিনি মোবাইল ফোনে বলেন, যারা মারা গেছে তাদের সবারই কোনো না কোনো শারীরিক সমস্যা ছিল।

গ্রামের বাসিন্দারা জানায়, গত শনিবার দিবাগত রাতে নুরি বিবি (৯০) নামের এক বৃদ্ধা মারা যান। একই রাতে মারা যান ওই গ্রামের বাসিন্দা জনাব আলী (৫০)।

তাদের মৃত্যুর খবর গ্রামে ছড়ানোর পর রবিবার সকালে রুবেল হোসেন নামে এক ব্যক্তির চারদিন বয়সী এক শিশু মারা যায়।

রবিবার সকালে একসঙ্গেই ওই তিনজনের নামাজে নামাজ শেষে দাফন করে গ্রামের লোকজন।

পরে সোমরার সকালে জমিতে কাজ করতে গিয়ে সমশের আলী (৭০) নামে আরেক বৃদ্ধ মারা যান। গ্রামে একের পর এক মানুষের মৃত্যুর বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে স্থানীয়রা।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবদুল লতিফ জানান, একসঙ্গে গ্রামের চারজন মানুষ মারা যাওয়ায় গ্রামেজুড়ে ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে। কেউ বলছে জ্বীনের আচড়। কেউ বলছে অজ্ঞাত কোনো রোগ। তাই দুই দিন ধরে গ্রামের মানুষ সন্ধ্যা হলেই বাড়িতে অবস্থান করছেন। বিশেষ করে নারীরা এসব মৃত্যুর কারণে খুব ভয় পাচ্ছেন বলে জানান তিনি।

বিষয়টি জেনে ওই গ্রাম পরিদর্শন করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রোজি আরা।

তিনি জানান, গ্রাম ঘুরে তারা জেনেছেন নূরি বিবি পা ভেঙে বিছানায় পড়ে ছিলেন। জনাব আলী ছিলেন মাদকসেবী। তার হৃদরোগ এবং কিডনিতেও সমস্যা ছিল। সমশের আলীর ছিল উচ্চ রক্তচাপ। আর যে শিশুটি মারা গেছে তার জন্ম হয়েছিল সাড়ে ৬ মাসেই। এসব কারণে তারা মারা গেছেন। তারপরেও তারা বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন।

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, ১৪:২৫

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
188 জন পড়েছেন