কোনো লোভ-লালসার জন্যে এই নির্বাচনে আসিনি : রোমান

0
32

আমার নেত্রী দলের স্বার্থে যাকে দলের নেতা বা প্রার্থী দিবে তার জন্য আমি কাজ করবো এটাই হচ্ছে আমার নীতি আদর্শ ……………ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভঁ‚ইয়া

কোন লোভ লালসার জন্য এই নির্বাচনে আসেনি, দল আমাকে পাঠিয়েছে, আমি দলের সেই মর্যাদা দেওয়ার চেষ্টা করবো ………….অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

আনিছুর রহমান সুজন, ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি:
ফরিদগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী জয় সু-নিশ্চিত করার লক্ষে গতকাল বুধবার এক বিশেষ বর্ধিত সভায়, আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূঁইয়া বলেন বলেছেন- আমি বিগত সময় চেষ্টা করেছি জেলা ও উপজেলা আওয়ামীগের নেতা-কর্মীদের সু-সংগঠিত করে রাখার। দল বা এখানের এমপি আমি না থাকলেও এই দল বা পরিবারের কেউ ক্ষতিগ্রস্থ্য হলে আমি আমার সর্বচ্চো শক্তি দিয়ে তাকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো। আমার নেত্রী দলের স্বার্থে যাকে দলের নেতা বা প্রার্থী দিবে তার জন্য আমি কাজ করবো এটাই হচ্ছে আমার নীতি আদর্শ।

তিনি বলেন- উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন যোগ্য প্রার্থীকেই দলের দলীয় মনোনয় দিয়েছেন। জাহিদুল ইসলাম রোমান সাহেব’র মরহুম বাবা আমার শ্রদ্ধেয় প্রিয় নেতা এড. সিরাজুল ইসলাম সাহেব আ’লীগ পরিবার ও চাঁদপুর জেলাবাসীর এক নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। তিনি এই দেশের স্বাধীনতা সংগ্রম থেকে শুরু করে সকল গতান্ত্রিক আন্দোলনে সফল ভূমিকা রেখেছেন। তাঁরই সু-যোগ্য সন্তান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রার্থী হয়েছে আমি এবং আমার দল এই প্রার্থীর জয়ের জন্য সর্বচ্চো ত্যাগ স্বীকার করবো।

একই সভায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের দলীয় প্রার্থী এড. জাহিদুল ইসলাম রোমান বলেন- আমি কোন দিন প্রতিহিংসার রাজনীতি করি না। আমি এদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের অগ্রনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। একই সাথে স্বাধীন বাংলাদেশের মানুষের ক্ষুদা দারিদ্্র মুক্ত ও আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা সাথে তারই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নীত আদর্শ ও আমার মরহুম বাবার লালিত আওয়ামীগের রাজনীতি করি। এতে কোন কৃত্রিমতা নেই।

তিনি বলেন- আমার মরহুম বাবা এড. সিরাজুল ইসলাম ১৯৬৪ সালে বিমান বাহিনীর লোভনীয় চাকুরী ছেড়ে দিয়েছেন, শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার যে স্বপ্ন দেখেছেন তাঁর সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার জন্য একজন সৈনিক হিসেবে কাজ করার জন্য। তিনি তাঁর পুরোজীবনে স্বাধীনতার সংগ্রম থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত আওয়ামীলীগ ও এই এলাকার মানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন। সুতরাং আমি তার সন্তান হিসেবে তাঁর আদর্শের প্রতি অগাদ বিশ্বাস রেখে এই এলাকার গণমানুষের উন্নয়ণে কাজ করার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন- আমি আওয়ামীলীগের সু-সময়ের কর্মী নয় দলের ও নেতা-কর্মীদের র্দূদিনের কর্মী হিসেবে সব সময় কাছে থেকে কাজ করার চেষ্টা করেছি। একসাথে আমি কখনো উপজেলা আ’লীগের রাজনীতিতে আশার চিন্তাও কখনো করেনি। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক দিয়ে আপনাদের কাছে পাঠিয়েছেন। আপনারা আমি রোমানের নির্বাচন করবেন না। শুধুমাত্র স্বাধীনতার প্রতীক নৌকা ও জননেত্রী শেখ হাসিনার সম্মানের প্রতি লক্ষ্য রেখে নির্বাচনে কাজ করবেন। মনে রাখবেন, কোন লোভ লালসার জন্য এই নির্বাচনে আসেনি, দল আমাকে পাঠিয়েছে, আমি দলের সেই মর্যাদা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

উপজেলা আ’লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন স্বপনের পরিচালনায় বিশেষ বর্ধিত সভায় তাদের বক্তব্যে এই কথা বলেন।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশীদ সাগর, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাশেম, জেলা আ’লীগের সদস্য এড. সাইদুল ইসলাম বাবু, উপজেলা আ’লীগের সহ সভাপতি, আবুল হোসেন বাবুল পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আবু সাহেদ সরকার, ভাইস চেয়ারম্য্যান ওয়াহিদুর রহমান রানা, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সহিদুল্ল্যাহ তপদার, পৌর আ’লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন রতন, ইউনিয়ন সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্য্যানদের পক্ষে হারুনুর রশীদ ও শওকত বিএসসি, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম, উপজেলা যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা রাজিয়া, ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান সোহাগ প্রমুখ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের সদস্য সাইফুল ইসলাম রিপন ও মশিউর রহমান মিটুসহ বিভিন্ন সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
110 জন পড়েছেন