জাটকা ইলিশ রক্ষায় চাঁদপুরের মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির সফলতা

সফিকুল ইসলাম রানা, মতলব উত্তর প্রতিনিধি :

জাটকা সংরক্ষণ অভিযান চলাকালীন চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। অভিযান চলাকালিন সময়ে মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ মো. নাসির উদ্দিনের নেতৃত্বে ১২জন জেলে আটক, ১ লক্ষ ৫৮ হাজার মিটার কারেন্ট জাল, ৭৫ কেজি জাটকা, ৮টি মাছ ধরার ট্রলার ও ৫০মন বরফ জব্দ করে ধ্বংস করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য ২৭ লক্ষ ১৭ হাজার টাকা।

মার্চ-এপ্রিল দুই মাস নিষেধাজ্ঞা শেষে বুধবার (১ মে) থেকে পদ্মা-মেঘনায় মাছ ধরতে নামবে জেলেরা। ৩০ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। চাঁদপুর নৌ-সীমানায় নদীতে নিষেধাজ্ঞা শেষে। দীর্ঘ দুই মাস অলস সময় কাটানোর পর বুধবার থেকে নদীতে মাছ ধরতে নদীতে নামছে প্রায় ৪১ হাজার জেলে। এ কারণে স্বস্তি ফিরে এসেছে জেলে পরিবারগুলোতে। কর্তৃপক্ষের দাবি, জাটকা রক্ষার কর্মসূচি সফল হওয়ায় এ বছর ইলিশের উৎপাদন বাড়বে।

মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. নাছির উদ্দিন জানান, গত দুই মাসে আমরা ১২জন জেলেকে জাটকা আহরণকালে আটক করা হয়, আটককৃতদের ভ্রাম্যমান আদালতে ১ বছর করে বিনাশ্রম কারাদÐ প্রদান করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় ৭৫ কেজি মাছ জব্দ করা হয়, যান আনুমানিক মূল্য ৩০ হাজার টাকা। ১ লক্ষ ৫৮ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়, যার আনুমানিক মূল্য ২১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা। ৮টি মাছ ধরার নৌকা আটক করে নষ্ট করে দেয়া হয়, যার আনুমানিক মূল্য ৫ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। ৫০ মন বরফ জব্দ করে নষ্ট করা হয়, যার আনুমানিক মূল্য ৫০ হাজার টাকা। সর্বমূল্য আনুমানিক মূল্য ২৭ লক্ষ ১৭ হাজার টাকা। জাটকা রক্ষায় আমরা রাত দিন নিরলস ভাবে অভিযান পরিচালনা করেছি।

প্রকাশিত : ৩০ এপ্রিল ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার : ০৬:৫৭ পিএম

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমআরআর

329 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়