মেঘনার ভাঙন থেকে লক্ষ্মীপুরের ২ উপজেলাকে রক্ষার দাবি

0
9

 

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

মেঘনা নদীর ভাঙন থেকে লক্ষ্মীপুরের দুই উপজেলাকে রক্ষার দাবিতে রাজধানীতে মানববন্ধন করেছে কমলনগর-রামগতি বাঁচাও মঞ্চ নামে একটি সংগঠন।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, বর্তমানে মেঘনা নদীর ৩২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

২০০৯ সালে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর-রামগতি উপজেলা রক্ষায় ৩৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প অনুমোদন করা হলেও ১০ বছরে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বক্তরা।

কমলনগর-রামগতি বাচাঁও মঞ্চের আহ্বায়ক আবদুস সাত্তার পালোয়ান জানান, যদি বর্ষার আগে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করা না যায়, অন্তত বালুভর্তি জিও ব্যাগ ডাম্পিং করলেও বর্ষাকালে ভাঙনরোধ করা সম্ভব।

ভাঙনের ক্ষয়ক্ষতি উল্লেখ করে কমলনগরের সাবেক চেয়ারম্যান এ এন এম আশরাফ উদ্দিন জানান, ইতোমধ্যেই মেঘনা নদীর করাল গ্রাসে দুই উপজেলার ৩১টি বড় হাট বাজার, ৩৫টি স্কুল, মাদ্রাসা, ৩০টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, ৫২টি মোবাইল টাওয়ার, ৪শ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা সড়ক, ৩৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ, ৫০ হাজার একর ফসলি জমি, ৪৫ হাজার ঘরবাড়িসহ কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ বিলীন হয়েছে।

বক্তরা বলেন, অবিলম্বে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করা না গেলে দেশের মানচিত্র থেকে কমলনগর এবং রামগতি উপজেলা হারিয়ে যাবে।

এই দু’উপজেলার সাত লাখ মানুষকে রক্ষায় দ্রুত বাঁধ নির্মাণের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন বক্তারা।

বাংলাদেশ সময়: ১২১২ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৫, ২০১৯

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
52 জন পড়েছেন