এমএলএম ব্যবসার নামে কোটি টাকা লুট, গ্রেফতার ৪

0
16

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :
ই-কমার্স ও ডিরেক্ট মার্কেটিংয়ের নামে লাইসেন্সবিহীন মাল্টিলেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসার মাধ্যমে কোটি টাকা হতিয়ে নেওয়া প্রতারক চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

গ্রেফতাররা হলেন- সাইফুল ইসলাম ওরফে সোহেল (৩৭), মো. মশিউর রহমান খান (৪৩), বিশ্বজিৎ গুহ (৩৬) ও মো. এমদাদুল হক মিলন (৩৫)। ওই সময় তাদের কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি কম্পিউটার, একটি গাড়ি, একটি প্রজেক্টর, বেশ কিছু পণ্য ও এমএলএম ব্যবসা সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন : হাকীম মিজানুর রহমান, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01742057854, +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বুধবার আটকের বিষয়টি জানান ডিএমপির উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান।

তিনি জানান, মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) ক্ষতিগ্রস্থদের একজন পল্লবী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলার ভিত্তিতে ডিবির অর্গানাইজড ক্রাইম প্রিভেনশন টিম পল্লবীর একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে চার প্রতারককে গ্রেফতার করে।

তিনি আরো জানান, গ্রেফতাররা ২০১৬ সাল থেকে নোভেরা প্রোডাক্টস লি. নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতারণা শুরু করে। তারা ই-কমার্স ও ডিরেক্ট মার্কেটিংয়ের নামে এমএলএম ব্যবসার মাধ্যমে উচ্চ আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সাধারণ জনগণের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে।

কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদে ডেসটিনি-২০০০ লি. এর কর্মকর্তা ও ডিস্ট্রিবিউটর রয়েছে। যারা মূলত ডেসটিনির ব্যবসা পদ্ধতি অনুসরণ করে সহজ সরল বেকার লোকদের অধিক লাভ ও উচ্চ আয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এ ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে প্রলুব্ধ করতো। পরবর্তী সময়ে তাদের বিনিয়োগকৃত টাকার পণ্য, কমিশন ও বেতন না দিয়ে সব টাকা হাতিয়ে নিতো।

কোম্পানির নিজস্ব সফটওয়ার থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত কোম্পানিটি ৯২ হাজার ২০৯ জন ডিস্ট্রিবিউটরের কাছ থেকে ৪৩ কোটি ৫২ লাখ ৩৬ হাজার ৪৯৫ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

প্রকাশিত : ২৪ এপ্রিল ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমকেজেড

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
113 জন পড়েছেন