ফরিদগঞ্জে পুকুর ড্রেজিংয়ে ১২বসত ভিটা হুমকির মুখে : ড্রেজার মিশিন জব্দ

0
12

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি :
উপজেলার ৮নং পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের রামদাশেরবাগ শেখ বাড়িতে প্রশাসনকে বিদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পুকুর ড্রেজিং করে ১২টি পরিবারের বসতবাড়ি হুমকির মূখে পড়ায়, ভুক্তভোগীরা থানায় অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ সোমবার ৩টি ড্রেজিং মেশিন জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সম্পূর্ণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ামুক্ত ভেষজ ঔষধ পেতে যোগাযাগ করুন- হাকীম মিজানুর রহমান : 0162-240650, 01777988889, ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, চাঁদপুর। যোগাযোগ : সকাল দশটা হতে রাত দশটা। নামাজের সময় ব্যতীত। এছাড়াও যৌন সমস্যা, শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), হার্টের ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

সরেজমিনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো জানায়, আমরা অসহায় পরিবার। আমাদেরকে বার বার হুমকি দমকী দিয়ে রাজনৈতিক প্রভাব দেখিয়ে পুকুরটি জবর দখল করে ড্রেজিং করে প্রতিপক্ষের লোকজন মাহফুজ শেখ, ফরহাদ শেখ ,আলমগীর শেখ গংরা আমাদের বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে ফেলার উপক্রম করছে। আমরা প্রতিবাদ করতে গেলে আমাদের মধ্যে কবির শেখ ,ফয়েজ শেখ ও নজরুল শেখকে মারধোর করাসহ প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাইনি। হাজী মোঃ সেকান্দর খান জানান,পুকুরে আমার বসত ভিটার ভাংঙ্গা অংশ ১০ শতাংশসহ মোট ২৪ শতক জমি রয়েছে। আমাকে পুকুর ইজাড়ার ১লাখ ২৮ হাজার টাকা এ যাবৎ না দিয়ে টাল বাহানা করছে। আলী আহাম্মদ মাস্টার জানায়, পুকুরে আমার সাড়ে ১৯ শতাংশ সম্পত্তি রয়েছে। ইজাড়ার ১লাখ টাকা আমাকে ২ বছরেও দি”েছনা ।

ফয়েজ শেখ, তাহের শেখ, কবির শেখ ,নজরুল শেখ জানান আমরাও আমাদের অংশের টাকা পাইনি। আমাদের অবগত না করেই পুকুর ইজাড়া দেয় প্রতিপক্ষের লোকজন। শুধু এতেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, সম্প্রতি ঐ পুকুর হতে অবৈধ ভাবে ড্রেজিং করে তারা বালি বিক্রি করছে এবং আমাদের বসত ভিটা ঙেঙ্গে ক্ষয়-ক্ষতি করছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা আরোও জানান, আমরা নিরুপায় । আমাদেরকে বারবার পেশি শক্তি দিয়ে মারধোর করে আসছে প্রতিপক্ষের মাহফুজ শেখগংরা। আমরা প্রশাসনের কাছে আইনগত সহায়তা চা”িছ।

এ বিষয়ে ওসি আব্দুর রকিব জানান, অভিযোগের ভিক্তিতে ৩ টি ড্রেজার জব্দ করার কথা নিশ্চিত করেছেন।

 

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার : ০১:৫২ পিএম

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমআরআর

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
114 জন পড়েছেন