ছেলেকে ফাঁসিতে ঝোলালেন বাবা, ভিডিও করলো মেয়ে

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের প্রদেশ কর্ণাটকে স্ত্রী এবং মেয়ের সামনে ছেলেকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মেরেছেন এক বাবা। পরে স্ত্রীকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করেন তিনি। এ ঘটনার ভিডিও কাঁদতে কাঁদতে ধারণ করেছেন তার মেয়ে।

ছেলেকে ফাঁসিতে ঝুলানোর পর মা আত্মহত্যা করেছেন; এমন গল্প সাজানোর পরিকল্পনা ছিল ওই ব্যক্তির। কিন্তু মেয়ের ধারণকৃত ভিডিওতে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ড।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত, মেহ-প্রমেহ) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন :
হাকীম মিজানুর রহমান
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

ঘাতক ওই বাবার নাম সুরেশ বাবু। তিনি কর্ণাটকের রাজধানী ব্যাঙ্গালুরুর বাসিন্দা। ভিডিওতে দেখা যায়, ওই ব্যক্তি ছেলেকে ফ্যানের সঙ্গে একটি চাদর পেঁচিয়ে ঝুলিয়ে দিচ্ছেন। এ সময় স্ত্রী ও মেয়ে তাকে ক্ষমা করে দেয়ার জন্য কান্নাকাটি করছেন।

ব্যক্তিগত সমস্যা এবং ঋণের দায়ে জর্জরিত পেশায় সেলস এক্সিকিউটিভ ওই বাবা অমানবিক এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন। তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত সুরেশের মেয়ে বলেছেন, পরিবারের সদস্যদের সামনে প্রথমে ছেলেকে ফাঁসিতে ঝোলান তার বাবা। পরে স্ত্রী গীতা বাইকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করেন তিনি।

পুলিশ বলছে, ছেলেকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যার পর স্ত্রী আত্মহত্যা করেছেন বলে এই হত্যাকাণ্ড চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন সুরেশ। মেয়েকে স্ত্রী ফাঁসিতে ঝোলানোর সময় এগিয়ে এসে থামান তিনি, এমন গল্প মানুষকে বলার পরিকল্পনা ছিল তার।

কিন্তু ভিডিওতে পরিষ্কার দেখা যায়, ওই ব্যক্তিই জোর করে ছেলেকে ফাঁসিতে ঝোলাচ্ছেন। এমনকি ঝোলানো ঠেকাতে ছেলের পা জড়িয়ে তার শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করেন মা।

অত্যন্ত হৃদয়বিদারক এই ভিডিও ও মেয়ের জবানবন্দি নেয়ার পর ওই ব্যাক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ঘটনায় বিস্তারিত তদন্ত চলমান।

রোমহর্ষক এই ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

প্রকাশিত : ০৪ জুন ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার : ১০:০৪ পিএম

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমআরআর

412 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়