দ্রুত ওজন কমানোর কার্যকরী টিপস

0
109

 

লাইফস্টাইল ডেস্ক :

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ওজন কমাতে আমরা কতকিছুই না মেনে চলি। মাপা খাবার, মাপা ঘুম সেইসঙ্গে নিয়ম করে শরীরচর্চা আর হাঁটা। অনেকে দ্রুত ওজম ঝরাতে দু’বেলা হাঁটতে বের হন। কিন্তু তাতেও সেভাবে ফল পান না অনেকেই।

বিশেষজ্ঞদের মতে, শুধু ওজন কমাতেই নয়, উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসের মতো সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতেও হাঁটা অত্যন্ত কার্যকরী।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত, মেহ-প্রমেহ) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন :
হাকীম মিজানুর রহমান
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

চিকিত্সকদের মতে, নিয়মিত হাঁটতে পারলে অনেক রোগ-ব্যাধিকেই সহজে দূরে সরিয়ে রাখা সম্ভব। কিন্তু ঠিক কতক্ষণ আর কীভাবে হাঁটলে ওজন কমবে, সে সম্পর্কে তেমন কোনো ধারণা আমাদের অনেকেরই নেই। আমরা অনেকেই জানি না যে, ঠিক কতটা আর কী ভাবে হাঁটলে ওজন কমবে! চলুন জেনে নেওয়া যাক-

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, শরীরের বাড়তি ওজন ঝরাতে প্রতিদিন হাঁটার প্রয়োজন নেই। সপ্তাহে মাত্র তিন দিন হাঁটলেই চলবে। তবে এই তিন দিন অন্তত ৩০ মিনিট স্বাভাবিকের তুলনায় একটু বেশি গতিতে হাঁটতে হবে।

হৃদরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, টানা ৩০ মিনিট ঘণ্টায় ২.৫ কিলোমিটার থেকে ৩.৩ কিলোমিটার গতিতে হাঁটলেই হৃৎপিণ্ড তার স্থায়ী গতিশীল অবস্থায় পৌঁছে যায়। দীর্ঘ সময় ধরে হৃৎপিণ্ডের এই স্থায়ী গতিশীল অবস্থা আমাদের ওজন কমাতে সাহায্য করে।

সুতরাং, সপ্তাহে তিন দিন অন্তত ৩০ মিনিট ঘণ্টায় ২.৫ কিলোমিটার থেকে ৩.৩ কিলোমিটার গতিতে হাঁটার অভ্যাস করলেই কেল্লা ফতে!

শুধু হাঁটলেই হবে না। সেইসঙ্গে প্রয়োজন স্বাস্থ্যকর খাবার আর নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন। খাবার পাত থেকে অতিরিক্ত লবণ বা চিনি বাদ দিতে হবে। এবিষয়ে আরও বিস্তারিত জানতে পুষ্টিবিদ বা চিকিত্সকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

হাকীম মিজানুর রহমান (ডিইউএমএস)

ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, চাঁদপুর।

মুঠোফোন : 01762240650

প্রকাশিত : ০১ জুন ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার : ০২:০১ পিএম

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমআরআর

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
113 জন পড়েছেন