চাঁদপুরে মাদ্রাসার ছাত্রীকে অচেতন করে রাতভর ধর্ষণ আটক ৪

0
59

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯নং বালিয়া ইউনিয়নে সপ্তম শ্রেণীর মাদ্রাসা ছাত্রীকে অচেতন করে রাতভর ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষণকারী রিপন শেখ (২০) বাঁচাতে সমঝোতার কথা বলে ধর্ষিতা মেয়ের ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার অভিযোগে দুই পক্ষের চারজন শালিশকারকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ বালিয়া ইউনিয়নের শেখ বাড়িতে অভিযান চালায়।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত, মেহ-প্রমেহ) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন :
হাকীম মিজানুর রহমান
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

এ সময় দুই পক্ষের সালিশি মোঃ জলিল মাঝি (৫০) মোস্তফা মাঝি (৪২), আইয়ুব আলী শেখ (৪০), মোস্তফা গাজী (৪৫) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

গত ৯ জুন রবিবার সন্ধ্যায় বালিয়া ইউনিয়ন ৩ নং ওয়ার্ড শেখ বাড়ি মালেক শেখের ছেলে বখাটে রিপন শেখ ও তার দুই বন্ধুসহ বালিয়া দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী খাদিজা আক্তারকে ফোন করে বাইরে ডেকে এনে মুখে চাপ দিয়ে পার্শ্ববর্তী বিলের মধ্যে জঙ্গলে নিয়ে যায়।

তাকে জোর করে সেভেন আপ এর সাথে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে দিয়ে অচেতন করে রাতভর ধর্ষণ করে।

ঘটনার দিন রাতে ধর্ষিতা মাদ্রাসা ছাত্রীকে বাড়িতে না পেয়ে তার পরিবারের লোকজন আশেপাশের সকল জায়গায় খোঁজ খবর নিতে থাকেন। পরদিন সোমবার ভরে জ্ঞান ফিরে মাদ্রাসার ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বাড়িতে ফিরে আসে। এ সময় তার পরিবারের লোকজন সব কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে ঐদিন রাতের ধর্ষণের ঘটনাটি তাদেরকে জানায়। এই ঘটনা মেয়ের বাবা বখাটে ছেলের পরিবারকে জানালে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য এলাকার কিছু দালাল চক্র উঠে পড়ে লাগে। পরে আটক ৪ সালিশি নিজেরা ঘটনাটি মীমাংসা করার কথা বলে সময় দীর্ঘস্থায়ীতো করে ধর্ষিতা মেয়ের ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার চেষ্টা করে।

ঘটনা সমাধান না করায় মেয়ের বাবা রুহুল আমিন বাদী হয়ে ৬ জনকে আসামি করে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, ধর্ষণের ঘটনায় যারা জড়িত রয়েছে ও তাদেরকে যারা সহযোগিতা করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মামলার প্রধান আসামি রিপন শেখকে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তবে এলাকাবাসী জানিয়েছেন ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক আসামীদেরকে গ্রেফতার করে দ্রত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবী জানিয়েছেন।

 

প্রকাশিত : ১৬ জুন ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, রোববার

চাঁদপুর রিপোর্ট-এমআরআর

 

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
130 জন পড়েছেন