‘নিজের চোখে দেখলাম টয়লেটের ময়লা পানিতে আমড়া ধুয়ে আমড়াওয়ালা সেই আমড়া বিক্রি করছে’

0
256

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

গত দু’দিন আগে ঘটনাটি ভাইরাল হয়েছিল। অনেকেই বুঝে বা না বুঝে তা শেয়ারও করেছিলেন। অনেকেই অতি আবেগের বশতঃ ওই আমড়াওয়ালাকে খুঁজে বের করে বীর সম্মানও জানিয়েছিলেন। আমরা আসলেই ঘটনার পেছনের খবর না জেনেই অনেক কিছু করি, যা প্রকৃত পক্ষে প্রকৃত বিষয় না জানলে হিতে বিপরীত হয়ে দাঁড়ায়।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সারাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক’দিন আগে ভাইরাল হওয়া সেই আমড়া বিক্রেতার আমড়া নদীতে ফেলে দেয়া নিয়ে নানা মন্তব্য ওঠে। কিন্তু অনেকেই জানেন না আসলেই আমড়া বিক্রেতার আমড়া কেনো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নদীতে ফেলে দিয়েছিল। বিস্তারিত জেনে নিন এএসপি সৈয়দ মাহবুবুর রহমানের লেখনীতে।

ঘটনা এক :

একটি লঞ্চের কিছু যাত্রী অভিযোগ করলো তারা দেখেছেন একজন আমড়া বিক্রেতা আমড়া ছিলে লঞ্চের টয়লেট থেকে ময়লা ভাসা নদীর পানিতে সেগুলো ধুইছে। যা অত্যান্ত ঘৃণিত এবং আপত্তিকর কাজ। এই আমড়াগুলোই লঞ্চের যাত্রীদের নিকট বিক্রি করা হবে। পুলিশ সব শুনে আমড়াওয়ালাকে খুঁজতে লাগলো। কিন্তু অনেক সময় পার হয়ে গেল। পুলিশকে কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা গেল না।

একজন লঞ্চ যাত্রী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলো – “পুলিশের নিকট অভিযোগ করে কোন লাভ নেই। নিজের চোখে দেখলাম টয়লেটের ময়লা পানিতে আমড়া ধুয়ে আমড়াওয়ালা সেই আমড়া বিক্রি করছে। পুলিশের নিকট অভিযোগ দিলাম। এরপর আর পুলিশকে দেখলাম না। পুলিশ হয়তো নিজেই দুইটা ফ্রি খেয়ে কেটে পড়েছে। হায়রে পুলিশ!!”

এ স্ট্যাটাস দিয়ে তিনি লঞ্চের কেবিনে গিয়ে দরজা বন্ধ করে শুয়ে পড়লেন। পুলিশের চৌদ্দ গুষ্টি উদ্ধার করা কমেন্ট এবং শেয়ার করার হিড়িক দেখে তিনি আনন্দে আত্মহারা। প্রতিটি কমেন্টের রিপ্লাই দিতে দিতে তিনি ক্লান্ত।

ঘটনা দুইঃ

পুলিশ অনেক কষ্টে লঞ্চের নিচতলা থেকে উপরতলা পর্যন্ত খুঁজে খুঁজে অবশেষে সেই আমড়া বিক্রেতাকে ধরে নিয়ে লঞ্চের পল্টুনে আসলো। যারা অভিযোগ করেছিলেন তাদেরকে আর খুঁজে পাওয়া গেল না। বিভিন্ন প্রশ্নের মুখে আমড়া বিক্রেতা স্বীকার করলেন তিনি ময়লাযুক্ত নদীর পানিতে আমড়া ধুয়েছেন। পানিতে তখন‌ও মানুষের মল ভাসতেছে। সেই ময়লা দেখিয়ে আমড়া বিক্রেতাকে প্রশ্ন করা হলো এই পানিতে ভিজানো আমড়া সে নিজে খাবে কিনা? আমড়া বিক্রেতা কোন উত্তর দেয়না। তারপর বলা হলো সেই আমড়া তাঁকে খেতে। কিন্তু কোন ক্রমেই সে নিজের আমড়া নিজে খেতে রাজী হয়নি। সে নিজেই উপায়ন্তর খুঁজে না পেয়ে আমড়াগুলো নদীর পানিতে ফেলে দিতে উদ্যত হয়। এ দৃশ্য ক্যামেরাবন্দী করেন একজন সুশীল লঞ্চযাত্রী।

এ ছবি ফেসবুকে আপলোড দিয়ে তিনি লিখলেন :
“হায়রে পুলিশ! একজন মানুষের স্বপ্ন এভাবে নদীর পানিতে ফেলে দিলো। এ আমড়ার সাথে লুকিয়ে আছে আমড়া বিক্রেতার ঈদের রঙিন স্বপ্ন। এ আমড়া বেঁচে সে একটি গরু কিনে কুরবানী দিতে চেয়েছিল। তার সে স্বপ্ন ভেসে গেল নদীর পানিতে। আমরা কি এমন পুলিশ চেয়েছিলাম?”

এরপর তিনিও লঞ্চের কেবিনে গিয়ে দরজা বন্ধ করে শুধু কমেন্ট আর শেয়ারের বন্যা দেখতে দেখতে গন্তব্যে পৌঁছে গেলেন। ততক্ষণে শতশত কমেন্ট আর শেয়ার। কিন্তু ঘটনার শেষে কি ঘটেছিল তা থেকে গেল দুজনেরই অজানা।

সৈয়দ মাহবুবুর রহমান : Senior Assistant Superintendent of Police at Bangladesh Police

এর টাইমলাইন থেকে

প্রকাশিত : ১৩ আগস্ট ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর/

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
194 জন পড়েছেন