চুন ঢেলে চোখ উপড়ে ফেলায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

0
57

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

 

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় চুন ঢেলে চোখ উপড়ে ফেলায় অ্যাসিড সন্ত্রাস দমন আইনে ১০ আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (০১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সেশন জজ ও অ্যাসিড দমন অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. রাশেদুজ্জামান রাজা এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার রাউতগ্রামের আব্দুস সালাম, মো. নুরুল মিয়া, আলতাব মিয়া, রুবেল মিয়া, সামসুল ইসলাম সাদ্দাম, আব্দুর রহিম, আয়াত উদ্দিন, মাসুক মিয়া, মোহাম্মদ আলী ও আব্দুর রহিম। এদের মধ্যে দণ্ডপ্রাপ্ত রুবেল পলাতক রয়েছেন।

নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌন সমস্যার (যৌন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহবাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্যপাত, মেহ-প্রমেহ) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন :
হাকীম মিজানুর রহমান
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) +88 01762240650, +88 01777988889
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

মামলার সূত্রে জানা যায়, গোয়াইনঘাট উপজেলার রাউতগ্রামে সরকারি খাস জমিতে বাড়ি বানিয়ে প্রায় ৩০ বছর ধরে বসবাস করে আসছিলেন জমির উদ্দিন ও তার ভাইয়েরা। বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদের চেষ্টারত ছিল আসামিরা। এ ঘটনার বাদীর সঙ্গে আসামিদের মামলাও চলমান ছিল। মামলা দিয়ে উচ্ছেদ করতে না পেরে ২০১৩ সালের ২৬ মার্চ সন্ধ্যা ৭টায় গোয়াইঘাটের উত্তর রাউতগ্রামের আব্দুল মৃত জব্বারের ছেলে জমির উদ্দিনের বাড়িতে ঢুকে দেশিয় অস্ত্র দিয়ে হামলা করে আসামিরা। এ ঘটনায় জমির ও তার ভাইয়েরা গুরুতর আহত হন। আসামিরা বাদীর ভাই আজির উদ্দিন ও আলাউদ্দিনের চোখে চুন ঢেলে দিয়ে চোখ নষ্ট করে দেয়। এ ঘটনায় ওই বছরের ৩ এপ্রিল জমির বাদী হয়ে গোয়াইঘাট থানায় পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশে সংঘঠিত ঘটনায় ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ওই বছরের ৭ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হাবিবুর রহমান। পরবর্তীতে ওই বছরের ২৫ ডিসেম্বর অ্যাসিড নিক্ষেপের ঘটনায় ওই ১০ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন এসআই হাবিবুর। এ ঘটনায় পুলিশ নয় আসামিকে গ্রেফতার করে।

মামলাটি অ্যাডিস সন্ত্রাস নিমূল দমন ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের পর ২০১৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের পর বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। মামলায় ২৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণের পরে আদালত ২০০২ সালের অ্যাডিস সন্ত্রাস দমন আইনে আসামিদের প্রত্যেককে যাবজ্জীবন ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

জরিমানার টাকা ভিকটিমদ্বয়ের হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালতের বিচারক। এছাড়া পলাতক আসামির বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট তামিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর সামসুল ইসলাম সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

প্রকাশিত : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, রোববার

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর/

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
109 জন পড়েছেন