সৌন্দর্য ধরে রাখতে বাদ দিন এই ৭ অভ্যাস

0
831

লাইফস্টাইল ডেস্ক

নিজেকে সুন্দর দেখতে কে না চায়! প্রত্যেক নারীই এমনভাবে থাকার চেষ্টা করেন যেন তাকে সবার চোখে দেখতে সুন্দর লাগে। সৌন্দর্যের প্রশংসা শুনলে খুশি হন না এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

কিন্তু আমাদেরই প্রতিদিনের কিছু বদ অভ্যাসের কারণে সৌন্দর্য কমতে থাকে। আপনি হয়তো জানেনও না কিন্তু আপনার সেই কাজগুলোই সৌন্দর্য নষ্টের জন্য দায়ী।

জেনে নিন এমন সাতটি অভ্যাস সম্পর্কে-

ব্রণ খোঁচাখুঁচি: ব্রণ হলো মেয়েদের ত্বকের সবচেয়ে পরিচিত সমস্যা। এটি হলে সৌন্দর্য কিছুটা কমে যাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু একে দূর করার জন্য সারাক্ষণ খোঁচাখুঁচি শুরু করলে ব্রণের দাগ স্থায়ীভাবে বসে যাবে। তাই ব্রণ দেখলেই খোঁচাখুঁচির অভ্যাসটা বাদ দিন।

gif maker

বারবার চুলের রং পাল্টানো: চুলের রং নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে ভালোবাসেন? এই মেরুণ তো এই পার্পেল? এমনটা করলে আপনার চুলের সৌন্দর্যের বারোটা বাজতে আর দেরি নেই। এতে চুলের স্বাস্থ্য দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়, উজ্জ্বলতা হারায় ও দেখা দেয় চুল পড়ার সমস্যা। তাই এই অভ্যাস থাকলে তা বাদ দিন।

বারবার আইব্রো প্লাক: আইব্রো চেছে সৌন্দর্য বাড়ানোর অভ্যাস থাকে বেশিরভাগ মেয়েরই। এটি যদি নিয়ম মেনে মাসে একবার করেন তাহলে সমস্যা নেই। কিন্তু অনেকেই আছেন যারা কয়েকদিন পরপরই আইব্রো প্লাক করে থাকেন। এর ফলে ভ্রুর নিচের চামড়া ঝুলে গিয়ে সৌন্দর্য নষ্ট হয়। তাই এই অভ্যাসও বাদ দিন।

দেরি করে ও অতিরিক্ত ঘুম: প্রকৃতির নিয়মটাই এমন যে রাতের সময়টা হলো বিশ্রামের। তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়া এবং তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার উপকারিতা অনেক। কিন্তু নানা কাজের ব্যস্ততায় ঘুমাতে যেতে দেরি করেন বেশিরভাগ মেয়েই। আবার সকালে অনেকটা সময় বিছানায় কাটান। এমন অভ্যাসও আপনার সৌন্দর্য নষ্ট করার জন্য যথেষ্ট।

যখন তখন জাঙ্ক ফুড: শরীর ভেতর থেকে ভালো রাখতে পুষ্টিকর খাবারের বিকল্প নেই। কিন্তু জাঙ্ক ফুডে পুষ্টি উপাদান নেই বললেই চলে। তাই এ ধরনের খাবার আমাদের শরীরের জন্য মোটেই উপকারী নয়। এটি আমাদের ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট করে, ওজনও বাড়িয়ে দেয় দ্রুত। তাই যখন তখন জাঙ্ক ফুড খাওয়ার অভ্যাস থাকলে তা বাদ দিন।

মুখ অপরিষ্কার রাখা: সাজুগুজু করে খুব বেড়িয়ে এলেন কিন্তু এসে আর মেকআপ করতে মন চাইলো না! এমন অলসতাই আপনার সৌন্দর্য নষ্টের কারণ। মুখ অপরিষ্কার রাখলে বাড়তে পারে ব্রণসহ নানা ত্বকের সমস্যা। তাই নিয়মিত মুখ পরিষ্কার করুন।

অতিরিক্তি চা-কফি: হাসির রয়েছে আলাদা সৌন্দর্য। কিন্তু প্রতিদিন অতিরিক্ত চা বা কফি খেলে আপনার দাঁত দ্রুতই হলদেটে হয়ে যাবে। তখন দাঁতের সৌন্দর্যের পাশাপাশি নষ্ট হবে হাসির সৌন্দর্যও। তাই চা-কফি খান পরিমিত।

আপনার বয়সের সৌন্দর্য ধরে রাখতে যেসব খাবার খাবেন

স্বাভাবিক ভাবেই সময়ের সাথে সাথে চেহারায় বয়সের ছাপ পড়বে। আয়নার সামনে দাঁড়াতে ইচ্ছে হয় না ,ত্বকে বলিরেখা কিংবা মাথায় পাকা চুলের দেখা যায়। আমাদের ত্বকে আর চুলেই বয়সের ছাপ সবচেয়ে আগে পড়ে। তবে এমনকিছু খাবার আর পানীয় আছে যেগুলোনিয়মিত খেলে চেহারায় দীর্ঘদিন পর্যন্ত বয়সের ধরে রাখা যেতে পারে। চলুন সেগুলি সম্বন্ধে জেনে নেওয়া যাক-

gif maker

পঁয়ত্রিশ পেরোলেই হাড় দুর্বল হতে থাকে। বাত বা অস্টিওপরেসিসের মতো সমস্যা দেখা দেয়। তাতে চেহারায় ‘বুড়োটে’ ছাপ পড়ে যায়। ক্যালসিয়াম দ্দ্বারা এই সমস্যা ঠেকানো যেতে পারে। আর টক দইয়ের মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম। তাই হাড় সুস্থ রাখতে প্রতিদিন পাতে রাখুন ১ বাটি টক দই।
ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে তার ডিটক্সিফিকেশন অত্যন্ত জরুরি। ব্রকোলিতে রয়েছে এমন অনেক উপাদান যা শরীর থেকে ক্ষতিকর উপাদান বের করে দিয়ে কোষকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে। সপ্তাহে অন্তত দুই থেকে তিন দিন পাতে রাখুন ব্রকোলি।

চেহারার তারুণ্য ধরে রাখতে বাদামের ব্যবহার কোনো কথা হবে না। বাদাম, বিশেষ করে আখরোটে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যা ত্বককে মসৃণ করে ভিতর থেকে উজ্জ্বল করে তোলে। আখরোটে কোলেস্টেরলের মাত্রা একেবারে সামান্যই থাকে।

অলিভ অয়েল ত্বকের শুষ্কতা দূর করে এবং একই সঙ্গে যে কোনো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন রান্নায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন। তাছাড়া ১ চামচ অলিভ অয়েল নিয়ে প্রতিদিন অন্তত দু’বার করে ত্বকে মালিশ করুন।

টমেটোতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে লাইকোপেন। এই লাইকোপেন এমন একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান যা বিভিন্ন চর্মরোগ প্রতিরোধে খুবই কার্যকর। এটি ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। যার ফলে ত্বক থাকে উজ্জ্বল।

হলুদে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আর অ্যান্টি ইনফ্লামমেটরি উপাদান যা আমাদের হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এরই সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের শুষ্কতা দূর করে উজ্জ্বল, দীপ্তিময় করে তোলে ।

প্রকাশিত: ০১:২৯ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০১৯

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
242 জন পড়েছেন