বুলবুল

হাইমচরে ঘূর্র্ণিঝড় বুলবুলের ক্ষয়ক্ষতি রোধে প্রশাসনের ব্যাপক প্রস্তুতি

 

সাহেদ হোসেন দিপু, হাইমচর করেসপন্ডেন্ট :
বঙ্গপোসাগরে সৃষ্ট ঘূর্র্ণিঝড় বুলবুলের ক্ষয়ক্ষতি রোধে সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে হাইমচর উপজেলা প্রশাসন। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর কারনে জরুরী খবর আদান প্রদান এবং দূর্যোগ সংক্রান্ত তথ্য জানার লক্ষ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।

কন্ট্রোল রুম নাম্বার গুলো হচ্ছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ০১৭৩০০৬৭০৭৪, ফায়ার সার্ভিস ০১৯৪২১৩৯৮৯৮, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা – ০১৭১৭৩৬৮৫৯৪, উপ সহকারী প্রকৌশলী -০১৬৮০৫০৪৭২৮।

হাইমচর উপজেলার সরকারি ব্যবস্থাপনায় আশ্রয়ণ কেন্দ্র গুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ব্যাপক প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে বেড়ি বাঁধের বাহিরে থাকা লোকজনদের আশ্রয়ণ কেন্দ্রে আসার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। নদীতে থাকা সকল জেলেদের নিরাপদ আশ্রয়ে চলে আসার জন্য এবং মেঘনায় চলাচলকারি যাত্রীবহনকারি ট্রলার সমূহকে নিরাপদে থাকার জন্য মাইকিং করেছে হাইমচর উপজেলা প্রশাসন। অপর দিকে হাইমচর ফায়ার সার্ভিস ইনচার্জ আমির হোসেনের নেতৃত্বে জনসাধারনকে সচেতন করার লক্ষে সকাল থেকে সাইলেন বাজিয়ে মহড়া দিতে দেখা গেছে।

gif maker

শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী ও উপজেলা নির্বাহি অফিসার ফেরদৌসি বেগমের নেতৃত্বে হাইমচর থানা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাসহ উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ বিভিন্ন আশ্রায়ন কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন। নদীর পাড় সংলগ্ন লোকজনদের মাঝে জনসচেতনা মূলক কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন হাইমচর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. জহিরুল ইসলাম খাঁন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আমিনুর রশিদ, হাইমচর ফায়ার সার্ভিস ইনচার্জ জিএম আমির হোসেনসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ক্ষয়ক্ষতি রোধে উপজেলার আশ্রয়ন কেন্দ্র, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে দুর্গত মানুষের আশ্রয়ের জন্যে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও সকল কমিউনিটি ক্লিনিককে দুর্গত মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্যে পস্তুতি রাখা হয়েছে। উপজেলার সকল মুদি দোকান, বেকারি ও খাবার হোটেলগুলোকে শুকনো খাবার মজুদ রাখার জন্যে অনুরোধ করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফেরদৌসি বেগম জানান, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ত্রাণসামগ্রী, শুকনো খাবার ও দুর্গত মানুষের সেবার জন্যে সবধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। আমরা আশা করি ঘূর্ণিঝড় বুলবুল যদি হাইমচরে আঘাত হানে আমরা তাৎক্ষণিক ক্ষতিগ্রস্ত জনসাধারণের সেবা দিতে পারবো।

প্রকাশিত : ০৯ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার :

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর/

299 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন