sex medicine health

১০টি রোগে কোন কোন খাবার খাবেন, কোন খাবার খাবেন না

হাকীম মিজানুর রহমান :

মানুষ মাত্রই যে কোনো মুহূর্তে অসুস্থতার মধ্যে পড়তে পারে। কারণ আমাদের শরীরের বডি ফ্লুইড এর মধ্যে সমস্যা হলেই রোগ অনিবার্য। এসব রোগে আপনি প্রতিনিয়ত কোন কোন খাবার খাবেন, কোন কোন খাবার আপনার জন্য বেশ উপযোগী তাই নিয়েই আমার আজকের আয়োজন।

যদি আমার আলোচ্য বিষয়গুলো আপনার ভালো লাগে তাহলে শেয়ার করে অন্যদেরকে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

আসুন জেনে নেই প্রধান দশটি রোগে আপনি কোন কোন খাবার খাবেন :

 

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ :
হাই ব্লাড প্রেশারে ডায়েটে রাখুন পটাশিয়াম সমৃদ্ধ শাক-সবজি যেমন আলু, কচু, ঢেঁরস, ঝিঙে, বিট, গাজর, মিষ্টি আলু, মটরশুঁটি, পালং শাক, বাঁধাকপি।

অ্যাসিডিটি :

অ্যাসিডিটি প্রায় কমন সমস্যা। এটা থেকে মুক্তি পেতে কলার থোড় খেতে পারেন, থোড় হজম শক্তি বাড়ায়। পুদিনা পাতা, চিচিঙ্গা, পটল, কাঁকরোল, সরষে শাক, থানকুনি পাতাও অ্যাসিডিটি কমাতে সাহায্য করে।

ডায়াবেটিস :
তেলাকুচা পাতা, করলা, মেথি শাক, কচি নিমপাতা, হেলেঞ্চা শাক ডায়াবেটিসের যম। সাদা বেগুন, কলার থোড়, মোচা, ঢেঁরস, ডুমুর, পালং শাক, কাঁচা রসুনও খুব উপকারি।

চোখের সমস্যা :
চোখের সমস্যা প্রতিরোধে ভিটামিন এ সমৃদ্ধ শাক-সবজি খাওয়া উচিত। যেমন গাজর, বাঁধাকপি, লেটুস, পালং শাক, টমেটো, মেথি শাক, লাল শাক, সজনে শাক।

সর্দি-কাশি ও ঠান্ডা লাগা :

এখন শীতকাল সর্দি-কাশি ও ঠান্ডা লাগা প্রায় ঘরে ঘরেই রয়েছে। আপনার হাতের কাছে মধু রাখুন। কারণ মধুর প্রধান কাজ সর্দি-কাশি নিরাময়।

 

ঠান্ডা লেগে গলা খুসখুস বা ঘুষঘুষে কাশি ইত্যাদি হলে মধু-লেবু মেশানো চা পান করার রীতি বহুদিন প্রচলিত এবং তা অত্যন্ত কার্যকরও বটে। মনে রাখবেন, যে কোনো গরম টক পানীয় গলার কাছে জমে থাকা কফ পাতলা করে দেয় আর মধুর প্রভাবে প্রদাহ কমে।

হার্ট ব্লকের প্রতিরোধ: হার্ট ব্লকের প্রতিরোধের জন্য যা করণীয়-

প্রতিদিন হালকা ব্যায়াম করবেন। তেল-চর্বি-মিষ্টি কম খাবেন। সুষম খাবার খাবেন। প্রচুর শাকসবজী খাবেন। পরিমিত পানি পান করবেন। ধূমপান, মদ্যপান করবেন না। হার্ট ব্লকের কোনো কারণ জানা থাকলে যথাযথ চিকিৎসা করাবেন

উত্তেজনা পরিহার করুন।। শরীরের ওজন আদর্শ মাত্রায় রাখুন। চিকিৎসকের পরমর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাবেন না।

হার্ট ব্লকের  ঘরোয়া চিকিৎসা: একটি পাত্রে এক কাপ লেবুর রস, এক কাপ আদার রস, এক কাপ রসুনের রস, এক কাপ আপেল সিডার ভিনেগার নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে হাল্কা জালে আধা ঘণ্টা ফুটাতে হবে। যেন মিশ্রণটি চার কাপ থেকে তিন কাপে পরিণত হয়। এরপর মিশ্রণটিকে ঠাণ্ডা করতে হবে। ঠাণ্ডা হয়ে গেলে একটি বোতলে ভরে রাখতে হবে। প্রতিদিন সকালে খাবারের আগে এক চামচ করে খেতে হবে। এভাবে নিয়মিত খেলে হৃদপিণ্ডের ধমনী ব্লক থেকে অনেকটা প্রতিকার পাওয়া সম্ভব।

হার্টের সমস্যা : সূর্যমুখী তেল ভিটামিন ই সমৃদ্ধ, যা শরীরের এন্টি-অক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে। এটি সরাসরি হৃদরোগ প্রতিরোধ এবং আপনার ইমিউন সিস্টেম বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এন্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন ই সমৃদ্ধ সূর্যমুখী তেল গ্রহণ করলে আপনার ত্বক সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে সুরক্ষিত হবে। হাঁপানি (অ্যাজমা), আর্থ্রাইটিস এর তীব্রতা হ্রাস করতেও সূর্যমুখী তেল বিশেষ ভূমিকা রাখে।

gif maker

এছাড়াও কিছু মাছে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩, যেমন স্যালমন, ম্যাকরেল এবং টুনামাছ। সপ্তাহে অন্তত দুইদিন মাছ রাখুন খাদ্য তালিকায়। নির্দ্বিধায় খাওয়া যাবে ছোট মাছ যেমন- মলা, কাচকি, টাকি, বেলে ইত্যাদি। এছাড়াও বেছে নেওয়া যেতে পারে পাবদা, শিং, কৈ ও মাগুরকে। ইলিশ মাছ বেশি করে খাবেন এতে উপকারী চর্বি ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড বেশি পরিমাণে থাকে। হাইব্রিড মাছগুলো খাওয়া থেকে এড়িয়ে চলুন। যে মাছগুলো বাদ দেবেন- পাঙ্গাস, হাইব্রিড তেলাপিয়া, রুই। গবেষকরা মনে করেন, সামুদ্রিক মাছ হৃৎপিন্ডের সুস্থতা রক্ষায় সহায়ক। নদীর মিঠা পানির বড় মাছের চর্বি বাদ দিয়ে শুধু মাছটুকু খাওয়া যাবে।

সয়াফুড  : সয়বিন থেকে তৈরি পণ্যকে সয়া ফুড বা সয়া প্রোডাক্ট বলে । সয়া প্রোডাক্ট যেমন- সয়া দুধ, সয়া বিন, টফু ইত্যাদি প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখুন। এই খাবারগুলো শরীরের থেকে কোলেস্টেরল এবং অস্বাস্থ্যকর ফ্যাট দূর করে থাকে। সয়া ফুড কেবল কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে তা নয়, ভাস্কুলার ফাংশন নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে। তাই খাবার মেন্যুতে পর্যাপ্ত পরিমাণে সয়াবিন রাখুন। সয়াবিন ভালো করে সেদ্ধ করে খান। কারণ হজমে সাহায্যকারী এনজাইম ট্রিপসিনের কার্যকলাপ কিছুটা ব্যাহত করে সয়াবিন। আঁশ সমৃদ্ধ সয়াবিন হার্টের জন্য খুব ভালো। প্রতি ১০০ গ্রাম সয়াবিনে পাওয়া যায় ৪৩ গ্রাম প্রোটিন।

কাঠবাদাম : কাঠবাদামের মনো স্যাচুরেটেড ফ্যাট, প্রোটিন ও পটাশিয়াম হার্ট ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কাঠবাদামের ভিটামিন ই হার্টের বিভিন্ন রকম রোগ হবার আশঙ্কা দূরে রাখে। কাঠবাদামে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করে এবং পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। যেমন অ্যালমন্ড, ছোলা এবং আখরোট ফল।

অলিভ অয়েল : ডায়াবেটিকসের ঝুঁকি কমানো ও ক্যানসার প্রতিরোধের পাশাপাশি দুর্বল হার্টের রোগীদের জন্য অলিভ অয়েল খুবই উপকারী। সম্প্রতি এক গবেষণায় বিষয়টি প্রমাণ করেছেন গবেষকরা। স্বাস্থ্য সাময়িকী সার্কুলেশনে প্রকাশিত নতুন গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, দুর্বল হার্টের জন্য জ্বালানি হিসেবে প্রয়োজনীয় চর্বির যোগান দেয় অলিভ অয়েল।

সাধারণত একটি হৃদপিণ্ড তার স্বাভাবিক সংকোচন ও প্রসারণের জন্য প্রয়োজনীয় শক্তি নেয় শরীরে জমা চর্বি থেকে। কিন্তু দুর্বল হার্ট এই চর্বি গ্রহণ করতে ব্যর্থ হয়। ফলে হার্ট শুধু ভালোভাবে কাজ করতে পারে না তা নয়, বরং গ্রহণ করতে না পারা চর্বি জমে হৃদপিন্ডের আর্টারিতে ব্লক বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। অথচ অলিভ অয়েলে আছে ওলিয়েট নামের এক ধরনের উপকারী ফ্যাট যার সহায়তায় দুর্বল হার্ট সহজেই প্রয়োজনীয় চর্বি গ্রহণ করতে পারে।

ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় এর সিনিয়র গবেষক ই ডগলাস লিওয়ানডোস্কি বলেন, ওলিয়েট হৃদপিণ্ডের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে এমনকি ওই হার্ট যদি আগে থেকেও দুর্বল থাকে তবুও স্বাচ্ছন্দ্যে হৃদপিণ্ডে প্রয়োজনীয় শক্তির যোগান দিতে পারে ওলিয়েট।

শিম : করোনারি হার্ট ডিজিস কমাতে সহায়ক হয়ে ওঠে ম্যাগনেশিয়ামপূর্ণ শিম, শস্য এবং সবুজ পাতাবহুল শাক-সবজি। এসব খাবারে স্ট্রোক এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিস এর ঝুঁকিও কমে আসে। এক গবেষণায় এসব তথ্য দেওয়া হয়। গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছিল জার্নাল বিএমসি।

আমলকি : হার্টকে ভালো রাখার জন্য আমলকি সন্দেহাতীতভাবে সবচেয়েভালো ওষুধ হিসেবে কাজ করে। প্রায় সব ধরনের কার্ডিওভাসকুলার রোগ প্রতিরোধ করার এক অদ্ভূত ক্ষমতা রয়েছে আমলকির।

হলুদ : হার্টের অসুখে হলুদও কার্যকারী ভূমিকা রাখে। এতে এমন এক অ্যান্টিঅক্সিডেন্টরয়েছে যা প্রদাহজনিত আক্রমণের বিরুদ্ধে কাজ করে।

রসুন : রসুন কার্ডিওভাস্কুলার রোগ হওয়ার ঝুঁকি কমায় এবং প্রাকৃতিকভাবেই এটা হার্টের ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এটা শুধু রক্ত চলাচলকেই স্বাভাবিক রাখে না; একইসাথে হার্টকেও সুস্থ রাখে।

আদা : আদা এমন একটি ওষুধি উদ্ভিদ যা রক্তনালীকে বিশ্রাম দেয় এবং রক্ত প্রবাহকে চালু রাখতে সাহায্য করে। হার্টের অসুখের বিরুদ্ধে অ্যান্টি ফ্ল্যামেটরি হিসেবেও যুদ্ধ করে আদা।

বিলবেরি : এটি ব্ল্যাকবেরির মতোই একটি ফল। এটিও হার্টের জন্য অত্যন্ত উপকারি। নিয়মিত এ ফল খেলে হার্টের যে কোনো সমস্যার ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকা যায়। এমনকি এ ফলটি রক্ত চলাচলকেও সচল থাকে।

হার্ট ভালো রাখে লাল মরিচ : লাল মরিচ হার্টের সঠিক ওষুধের কাজ করে। এটা হার্টের জন্য পুষ্টিকর খাবারও বটে। কারণ হার্টের জন্যএর প্রভাব কাঁচামরিচ থেকে ভালো।

সবুজ চা : বর্তমান সময়ে হার্টের জন্য সবচেয়ে বেশি ওষুধের কাজ করে সবুজ চা। এটা শুধু রক্তের শিরাকেই সচল রাখে না; শিরাকে রক্ষাও করে। বর্তমান সময়ে হার্টের জন্য সবচেয়ে বেশি ওষুধের কাজ করে সবুজ চা। এটা শুধু রক্তের শিরাকেই সচল রাখে না, শিরাকে রক্ষাও করে। গবেষকদের ধারণা, রক্তনালীর উপর গ্রিন টি’র প্রভাব রয়েছে। নিয়মিত গ্রীন টি গ্রহণ করা হলে রক্তনালী শিথিল হয় এবং রক্তচাপের পরিবর্তন হলেও তা স্বাভাবিক থাকতে পারে। এর ফলে রক্ত জমাট বেঁধে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

হার্ট ভালো রাখে পুদিনা পাতা : এটি হার্টের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। পুদিনা রক্তের শিরায় অক্সিজেন চলাচলে সাহায্য করে। এছাড়া এটি খেলে হার্টেররোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা একদমই থাকে না। উপরোক্ত খাবারগুলোর সাথে সাথে নিয়মিত কিছু কাজ করতে হবে।

এলার্জি হলে যেসব খাবার খাবেন :

নিমপাতা, কালোজিরা, হলুদ, রসুন, তুলসিপাতা, করলা ইত্যাদি।

এলার্জি হলে যেসব খাবার খাবেন  না :

গাজর, মিস্টি কুমড়া, টমেটো, দুধ, ইলিশ মাছ, চিংড়ি মাছ, গরুর মাংস।

 

ঔষধ পেতে যোগাযোগ করুন :

 হাকীম মিজানুর রহমান (ডিইউএমএস)

(শতভাগ বিশ্বস্ত ও প্রতারণামুক্ত অনলাইন স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান)

ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার

হাজীগঞ্জ, চাঁদপুর।

যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত)

+88 01762240650, +88 01834880825

+88 01777988889 (Imo-whatsApp)

শ্বেতী রোগ, যৌন রোগ, ডায়াবেটিস,অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা),

ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর , আলসার, টিউমার

ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

1,163 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন