mahmud jaman

মাত্র ১১-১২ বছরের মধ্যে অবকাঠামগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে : মাহমুদ জামান

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :

চাঁদপুরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেছেন, সরকার টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। তেমনি প্রাথমিক শিক্ষায় প্রায় শতভাগ লক্ষ্য অর্জন হয়েছে। অবকাঠামগত উন্নয়ন হয়েছে ব্যাপক। আমরা যখন প্রাথমিক পড়েছি, তখন বিদ্যালয়ের মেঝ ছিলো মাটি। চারপাশের বেড়াগুলো ছিলো টিনের। ভাঙা দরজা জানালা দিয়ে বাহিরের আলো চলে আসতো। মাত্র ১১-১২ বছরের মধ্যে অবকাঠামগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। দেশের এমন কোন গ্রাম নেই, যেখানে দু’টি করে প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই। এসব বিদালয়ের জন্য সরকার পর্যাপ্ত পরিমাণ শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছে। সরকার এখন বছরের প্রথম দিন বই দিচ্ছে। এ বছর সারাদেশে বিনামূল্যে ৩৬ কোটি বই বিতরণ হয়েছে। এটি পৃথিবীর আর কোন দেশে আছে বলে আমার জানা নেই।

তিনি বলেন, উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে শতভাগ। ২০২১ সাল থেকে বই এর সাথে ২ হাজার করে শিক্ষার্থীর টাকাও দেয়া হবে ড্রেস এবং জুতা ক্রয় করার জন্য। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বাজেট বৃদ্ধি করা হয়েছে। অনেক বিদ্যালয় মাল্টিমিডয়া ক্লাশ চালু হয়েছে। সরকারের এতগুলো কাজের মধ্যে চ্যালেঞ্জ রয়েছে। আর তা হচ্ছে যারা বিদ্যালয়ে ভর্তি হচ্ছে তাদেরকে ধরে রাখা।

মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় শহরে রসুইঘর পার্টি সেন্টারে দিনব্যাপী এই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আশার প্রাথমিক শিক্ষা শক্তিশালী করণ প্রকল্পে সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে জেলা প্রশাসক বলেন, আপনারা যারা কেন্দ্রগুলোর তত্ত্বাবধান ও শিক্ষার সাথে জড়িত তারা এটাকে শুধু চাকুরী হিসেবে দেখবেন না, আপনারা এই দায়িত্বকে সামাজিক দায়বদ্ধতা হিসেবে দেখবেন। আপনাদের সাঠিক দায়িত্ব পালনের কারণে প্রাথমিক শিক্ষার ভিত যদি মজবুত হয়, তাহলে এই শিক্ষার্থীদের পরবর্তী সফলতায় আপনারা তৃপ্তি পাবেন। আপনারা এসব শিক্ষার্থীদেরকে মাতৃস্নেহে দিয়ে পড়াবেন। আমি আশা করবো আশার এই কর্মসূচির মাধ্যমে প্রাইমারী এবং কোচিং এর যে দৌরাত্ম্য তা দূর হয়ে যাবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝরে পড়ারোধ ও প্রাথমিক শিক্ষাকে শক্তিশালী করণের লক্ষ্যে দিনব্যাপী ৩শ’১০জন শিক্ষা সেবিকাকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আশার প্রাথমিক শিক্ষা শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের আওতায় এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রকল্পের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফজলুল হক।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুল বাকি, চাঁদপুর জেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার শাহীনুল ইসলাম মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন।

প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আশার এডুকেশন ম্যানেজার সামিউল হক, সহকারী পরিচালক মো. সাঈদুজ্জামান, কুমিল্লা ডিভিশনাল ম্যানেজার মো. আবদুর রহমান, কুমিল্লা ডিভিশনের এডিএম একেএম সেলিম আল রেজা, চাঁদপুর রিজিওনাল ম্যানেজার বশিরুল ইসলাম বাসেদ, সিনিয়র ব্রাঞ্চ ম্যানেজার মোহাম্মদ আরশাদ আলী প্রমূখ।

চাঁদপুরে প্রাথমিক শিক্ষা শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের আওতায় ২২টি শাখার ৩২৭ কেন্দ্রের মাধ্যমে ৯হাজার ৮৬৩জন শিক্ষার্থীকে পাঠদান করা হচ্ছে।

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার :

চাঁদপুর রিপোর্ট : এমআরআর

225 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন