করোনা: চীনের বিরুদ্ধে ২০ ট্রিলিয়ন ডলারের মামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

চীনের ল্যাবে জীবাণু অস্ত্র নিয়ে গবেষণার সময় করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ ছড়িয়েছে। এজন্য চীন বিশ্বের কাছে অনেক তথ্য গোপন করছে। এমন অভিযোগ এনে দেশটির বিরুদ্ধে ২০ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ১৭০০ লাখ কোটি টাকার মামলা দায়ের করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস আদালতে মার্কিন আইনজীবী ল্যারি ক্লেইমা এ মামলা দায়ের করেছেন বলে খবর দিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।

gif maker

অভিযোগে ক্লেইমান বলেছে, চীন জৈব রাসায়নিক মারণাস্ত্র বানানোর জন্য উহানের ল্যাবে দীর্ঘদিন ধরেই এ করোনাভাইরাসের ওপর গবেষণা চালাচ্ছিল। সেখানে থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে। এজন্য চীন ইচ্ছাকৃত ভাবেই বিশ্বের কাছে বহু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লুকিয়ে যাচ্ছে।

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে প্রথম ছড়িয়ে পড়ে। যা বর্তমানে প্রায় সব দেশে ঘাতক ব্যাধীতে রূপ নিয়েছে। এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ইতোমধ্যে ৫ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ছাড়িযেছে ২৪ হাজার।

তবে ক্লেইমানের আগেও চীনের দিকে আঙ্গুল তুলেছিলেন ইসরাইলের এক সাবেক গোয়েন্দা। পরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও একই অভিযোগ করেন।

করোনাভাইরাস : হার্টের রোগীদের যেসব বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে

করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা ইতিমধ্যেই টের পেয়েছে বিশ্ববাসী। চীন থেকে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস এখন পৃথিবীর সবচেয়ে আতঙ্কের নাম। মহামারি আকার ধারণ করা এই ভাইরাস নিয়ে গবেষণা চলছে ব্যাপকভাবে।

গবেষণা অনুসারে, যেসব ব্যক্তিরা হার্টের সমস্যায় ভুগছেন তাদের অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হচ্ছে কারণ যাদের হার্টের সমস্যা নেই সেইসব মানুষের তুলনায় এই ভাইরাসটি হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বড় ক্ষতির কারণ হতে পারে।

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (CDC)-এর মতে, যাদের অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে, যেমন- ৬০ বছর বয়সের চেয়ে বেশি বয়স্ক অর্থাৎ ৮০ বছর বয়স বা তারও বেশি বয়সী ব্যক্তিদের এবং হৃদরোগ ও ফুসফুসের রোগ রয়েছে এমন ব্যক্তিদের এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। গবেষকরা উল্লেখ করেছেন, কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস বা ক্যান্সারের রোগীদেরও কোভিড-১৯ এর কারণে মৃত্যুর ঝুঁকি বেশি।

http://picasion.com/
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং গবেষকরা বলেছেন যে, কোভিড-১৯ -এর সময় হার্টের রোগীদের অতিরিক্ত যত্ন নেয়া উচিত। এই ব্যক্তিদের স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে হবে, প্রচুর ফল এবং শাকসবজি খেতে হবে, নিয়মিত শরীরচর্চা (বাড়ির ভেতরে) করা এবং ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমাতে হবে। এর ফলে আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত হবে এবং যেকোনো সংক্রমণের বিরুদ্ধে নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন।

আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলজির মতে, হাসপাতালে ভর্তি COVID-19 রোগীদের ৪০ শতাংশের মধ্যেই কার্ডিওভাসকুলার বা সেরিব্রোভাসকুলার রোগ পাওয়া গেছে। হৃদরোগীদের সংক্রমণ রোধ করার জন্য এই বিষয়গুলো মেনে চলা জরুরি-

* যারা অসুস্থ তাদের এড়িয়ে চলুন।
* চোখ, নাক এবং মুখ স্পর্শ করা এড়িয়ে চলুন।
* কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান ও পানি দিয়ে ভালো করে হাত ধোবেন।
* হাঁচি দেওয়ার সময় নাক ঢেকে রাখুন।
* কাশির সময় মুখ ঢেকে রাখুন।
* যে যে জায়গায় স্পর্শ করেন সেইসব জায়গা থেকে ভাইরাস অপসারণের জন্য জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করুন।
* হার্টের রোগীদের সমাবেশ এবং ভ্রমণ এড়িয়ে চলা উচিত। হার্টের রোগীদের টিকা বা ভ্যাকসিন নেওয়ার ক্ষেত্রে আপ টু ডেট থাকতে হবে, যেমন – নিউমোনিয়া এবং ফ্লু-এর জন্য।

 

যে তিন লক্ষণে বুঝবেন আপনি করোনায় আক্রান্ত

করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বাড়ছে এতে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যাও। পুরো বিশ্বের সঙ্গে করোনা আতঙ্কে ভুগছে আমাদের দেশও। দেশে ইতোমধ্যে এই রোগে মৃত্যু হয়েছে দুজনের। আক্রান্ত মোট ২৭ জন।

সাম্প্রতিক একটি মেডিকেল জার্নালে তিনটি লক্ষণের কথা বলা হয়েছে। যেখান থেকে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার দেহে COVID-19 এর সংক্রমণ শুরু হয়েছে কিনা!

প্রথমত, আপনার দেহে করোনা থাবা বসালে প্রথম পাঁচদিন আপনার কাশির সঙ্গে শুকনো কফ থাকবে।

দ্বিতীয়ত, হঠাৎ করেই খুব জ্বর আসবে। সেই জ্বর চট করে নামতে চাইবে না।

gif maker

তৃতীয়ত, জ্বরের সঙ্গে শুরু হবে শ্বাসকষ্ট। সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে ফুসফুসে। ফুসফুস ফুলে ওঠা থেকে নানারকম সমস্যা দেখা দেবে শরীরে। সেই সঙ্গে সারা শরীরে ব্যথা এবং সর্দি থাকবে।

কীভাবে রক্ষা করবেন

কিছুক্ষণ পরপর ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

কাশির সময় অবশ্যই রুমাল বা টিস্যু ব্যবহার করতে হবে। প্রয়োজনে মাস্ক ব্যবহার করুন।

অসুস্থ ব্যক্তি বা বয়স্ক, শিশুদের এড়িয়ে চলুন।

এই সময়ে সর্দি-কাশি হলে যা করবেন

বাইরে থেকে বাড়ি গিয়ে গোসল করাটাও কাজের কথা নয়। সারাদিন হালকা গরম পানি খান। গলায় ব্যথা বা সর্দি-কাশির সম্ভাবনা দেখা দিলে তো এই রুটিন চালু করতেই হবে। সেই সঙ্গে জোর দিন ভিটামিন সি খাওয়ার উপরেও। লেবু, আমলকী, পেয়ারায় প্রচুর ভিটামিন সি মিলবে।

আদা দিয়ে কালো চা খাওয়া বা লবঙ্গ, আদা, গোলমরিচ, তেজপাতা ফুটিয়ে নিয়ে চায়ের মতো পান করলে সর্দি-কাশিতে ভালো ফল পাবেন। তাজা শাক-সবজি, ফল, বাদাম রাখুন খাদ্যতালিকায়।

যদি সর্দি-কাশি হয়, তা হলে বাড়িতে থাকুন। বিশ্রাম নিন। যেকোনো ভাইরাসের বিরুদ্ধেই শরীর প্রতিরোধ গড়ে তুলবে দ্রুতই, ততদিন অপেক্ষা করতে হবে।

হাঁচি-কাশির সময় মুখ-নাক ঢেকে রাখুন যাতে ভাইরাস না ছড়ায়। সেই সঙ্গে বারবার হাতে স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন। মুখে বা নাকে হাত দেওয়ার অভ্যাস থাকলে সেটা ছাড়তে হবে।

বাড়ির সবার থেকে কয়েক দিন একটু দূরে থাকতে পারলে সবচেয়ে ভালো হয়। যারা অসুস্থ রোগীর সেবার কাজ করছেন, তারাও একটু দূরত্ব বজায় রেখে চলবেন।

761 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়