chandpur logo

শাহতলী ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের অসহযোগিতায় মুক্তিযোদ্ধার সম্পত্তি দখলের অভিযোগ

স্টাফ রিপোটার :

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৪ নংশাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের বড়সাহতলী গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির বাসিন্দা মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মরহুম চাঁদব্ক্স পাটওয়ারীর ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মিজানুর রহমান রতনের সম্পওি স্হানীয় ভুমি অফিসের কর্মকর্তাদের যোগসাজেশে দখলের অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা প্রতিকার চেয়ে চাঁদপুর সদর উপজেলা ভূমি অফিস বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন এবং এ অভিযোগের অনুলিপি স্হানীয় এমপি ও শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার সহ বেশ কজন জনপ্রতিনিধি ও কয়েকটি দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুর সদর উপজেলার ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের বড়সাহতলী গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির বাসিন্দা স্বাধীনতা সংগ্রামের পূর্বে তৎকালীন চাঁদপুর মহকুমা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের অন্যতম ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক চাঁদব্ক্স পাটোয়ারী তাঁর পুএদ্বয় বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মিজানুর রহমান রতন এবং জাহাঙ্গীর কবির কাঞ্চনের পৈত্রিক সম্পওি উক্ত ইউনিয়নের ভূমি অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় স্হানীয় ভূমি দস্যুরা দখল করছেন।

পূর্ব থেকে মরহুম চাঁদব্ক্স পাটোয়ারী চাঁদপুর শহরে পরিবার নিয়ে বসবাস করার কারনে পৈত্রিক বাড়িতে মাঝে মাঝে আসা যাওয়া করতেন।

তিনি ১৯৮৬সালের ২মে মৃত্যু বরন করার পর তাঁর সন্তানগনও বেচে থাকার তাগিদে শহরে বাস করার কারণে বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন কিন্তু স্হায়ী ভাবে বসবাস ছিলো না । কিন্তু ঘরবাড়ি সহ অবকাঠামো ছিলো।

gif maker

স্হানীয় একটি চক্র এ সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে কৌশলে মাঠ জরীপে বিএস খতিয়ানে চাঁদব্ক্স পাটোয়ারীর গংদের ৭৭নং সিএস ও ৫৪ নং এস এ খতিয়ানে মোট সোয়া ১৭ একর সম্পওি, যার দাগ নং ২১,২৩,২৮,২৯,৩৩,৩৬,৩৮,৩৯ ও ২৭।

এ সকল সম্পওির বিএস জরীপে অন্যদের নাম উঠিয়ে স্হানীয় ভূমি অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে খারিজ করে তা বিক্রি ও দখল করা শুরু করে।

এ বিষয়টি জানতে পেরে চাঁদব্ক্স পাটোয়ারীর ওয়ারিশগন বিএস জরীপে যাদের নাম উঠেছে তা প্রত্যাহার পূবক আদালতে সংশোধনী মামলা দায়ের করেন। শুধু তাই নয়, এ বিষয়ে স্হানীয় ভূমি অফিসকেও অবহিত করা হয়।

এমনকি চাঁদব্ক্স পাটোয়ারীর ওয়ারিশগন তাদের সম্পওি রক্ষায় এবং তাদের ন্যায্য প্রাপ্য টুকু পেতে তারা ২০০২ সালের ১৬ আগষ্ট বাড়িতে আত্মীয় স্বজনরাসহ একটি বৈঠক ও বসে।

এক পযার্য়ে স্হানীয় ভূমি অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে জনৈক রহিমা বেগম উক্ত সম্পওিতে ১৪৪ ধারা দায়েরের করলে উক্ত মামলাটিও ২০০৫ সালের শেষ দিকে খারিজ হয়ে যায়।

শুধু তাই নয়, এ সকল স্হানীয় ভূমি দস্যুদের হাত থেকে পৈত্রিক সম্পওি রক্ষায় আইনগত সহযোগিতা চেয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় ২০০২ সালের ১৮ আগষ্ট একটি সাধারণ ডায়রী করা হয়, যার নং -৭৩৫।

এরপর ও ভূমি দস্যুদের এলোপাথাড়ি হুমকি ধমকি এবং সম্পওি রক্ষায় পুনরায় ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ৯ তারিখে আরেক টি ডায়রী করা হয়, যার নং ১২০৮।

এ সকল আইনগত বিষয় গুলো শুধু মাএ কাগজে কলমে সীমাবদ্ধ রয়েছে বলে অভিযোগ করেন, ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা।

তাদের অভিযোগ উল্লেখিত বিষয়ে কয়েকবার শাহমাহমুদপুর ভূমি অফিসে গিয়ে উক্ত ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা বিষ্ণুনাথ দাসের সাথে কথা বলতে গিয়ে পরিবারের সদস্যরা অপমানিত হন। তিনি তাদের কথা না শুনে বরং স্হানীয় ভূমি দস্যুদের সহযোগিতা করছেন।

এদিকে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা বলছেন, স্বাধীন বাংলাদেশের সৃষ্টির ক্ষেত্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠায় মফস্বল শহর চাঁদপুরে প্রতিষ্ঠায় প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে মরহুম চাঁদব্ক্স পাটোয়ারীর ভূমিকা ছিলো অবিস্মরণীয়।

তিনি এ মহকুমা আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে ছিলেন স্বাধীনতা সংগ্রামের একজন সংগঠক। তাঁর দু সন্তান মরহুম মিজানুর রহমান রতন ও মোঃ জাহাঙ্গীর কবির কানচন জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বা বীর মুক্তিযোদ্ধা।

জীবন বাজি রেখে সে দিন মুক্তি যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে স্বাধীন দেশের সৃষ্টি করলেও সেই স্বাধীন দেশে মুক্তিযোদ্ধার নিজ সম্পওি থেকে তাঁর পরিবারের সদস্যরা বন্ঞিত হচ্ছে ।

এমনকি যে রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠায় তিনি ভূমিকা রেখেছেন এবং নেতৃত্ব দিয়েছেন সে দল রাষ্টীয় ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় তাঁর পরিবারের সদস্যরা ন্যায্য সম্পওি থেকে অবৈধ ভাবে বন্ঞিত করে ভূমি দস্যুদের দখলে থাকবে আর সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের অসহযোগিতা কারণে প্রাপ্য অধিকার থেকে বন্ঞিত হওয়ার জন্য কী, সে দিন চাঁদব্ক্স পাটোয়ারীরা এ দল প্রতিষ্ঠা করেছিলো?
আর আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছেও আইনী প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা না পাওয়ার জন্য কী, সেদিন মুক্তি যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে স্বাধীন বাংলাদেশের সৃষ্টি করেছিলো, এ মুক্তি যোদ্ধার পরিবার? তারা এবিষয়ে স্হানীয় এমপি ও শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন।

222 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন