sylact 1

খাদ্য সহায়তা নিয়ে নবীগঞ্জ পৌরসভায় কর্মহীন জনসাধারণের পাশে শাহ ফয়সল

দিপু আহমেদ, নবীগঞ্জ প্রতিনিধি :

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে কার্যত ‘লকডাউন’ সারাদেশ। এর প্রভাবে খেটে খাওয়া দিনমজুররা দিশেহারা। এর প্রভাব পড়েছে নবীগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডে।

দিনমজুর খেটেখাওয়া মানুষের কাজ নেই তাই পকেটে টাকাও নেই। মজুত যা ছিল তা শেষ হয়েছে শুরুতেই, এখন ঘরে নেই খাবারও। খেয়ে না খেয়ে আছেন অনেকেই।

সংকটময় এই মূহুর্তে এসব মানুষের কথা ভুলেননি নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়সল তালুকদার ।

নবীগঞ্জ পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডে তিনি ১১০ টি কর্মহীন পরিবারের মানুষকে খাদ্য সামগ্রী তুলে দিয়েছেন, তাও আবার নিজ খরচেই।

মঙ্গলবার ৭ এপ্রিল থেকে উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে এ খাদ্য সামগ্রী তিনি সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরণ করেছেন।

http://picasion.com/
এ বিষয়ে তিনি বলছিলেন, ‘বর্তমানে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে দেশের লাখ-লাখ মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন-যাত্রা। অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবন-যাপন করছে নিম্ম আয়ের অগনিত মানুষ।

তিনি বলেন, এ ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে মানবজাতীকে রক্ষা করতে মহান আল্লাহ’র অশেষ দয়া ছাড়া আর কোন উপায় নেই। সকলকে ধর্য্য ধরে নিরাপদে ঘরে থাকার আহবান জানান তিনি।’

তিনি বলেন, ‘দু:সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর মধ্যে আলাদা তৃপ্তি আছে। যা কখনো অর্থ দিয়ে কেনা যায় না। বিশেষ করে করোনা প্রাদুর্ভাব রোধে সারাদেশ যখন লকডাউন, তখন দিনমজুর খেটেখাওয়া মানুষের কষ্টের সীমা নেই। এসব দেখে আমারও খুব কষ্ট হয়। সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এজন্য তাদের পাশে দাঁড়াতে উদ্যোগ নিয়েছি।’

তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমার নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনাও রয়েছে। তারা দলের নেতাকর্মীদের এই দুঃসময়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবানও জানিয়েছেন।

এজন্য আমি আল্লাহর নাম নিয়ে সাহস করে নিজ অর্থায়নে অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে হাজির হয়েছি,আমার নেত্রীর জন্য সবার কাছে দোয়া চাই। এই কঠিন সময়ে বিত্তবান সবাইকে গরিব-অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো উচিত বলেও উল্লেখ করেন।

খাদ্য সামগ্রী সহায়তা পেয়ে খুশি হতদরিদ্ররা। তারা বলছেন, এই দুর্যোগপূর্ণ মুহূর্তে তাদের পাশে এসে দাড়ানোর জন্য তারা তার প্রতি কৃতজ্ঞ বলেও জানান।

149 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন