chandpur report rice

চাঁদপুর সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের বাসায় সরকারি ত্রাণের ২ টন চাল

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানার চাঁদপুর শহরের নিজ বাসায় সরকারি ত্রাণের ২ টন চাল রাখা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। পরে অবশ্য উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে এসব চাল উপজেলা পরিষদে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

জানা যায়, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা মঙ্গলবার তার অনুকূলে বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের (জিআর) ২ টন (৩০ কেজি ওজনের ৬৭ বস্তা) চাল চাঁদপুর সিএসডি গোডাউন থেকে নিয়ে পালপাড়াস্থ তার নিজের বাসায় রাখেন। নিয়ম অনুযায়ী এসব চাল উপজেলা প্রশাসনের খাদ্য গুদামে থাকার কথা। বুধবার দুপুরে প্রশাসনের নির্দেশে এসব চাল উপজেলা পরিষদে ফেরত নেওয়া হয়েছে।

Night King Sex Update
নারী-পুরুষের যে কোনোা যৌ*ন সমস্যার (যৌ*ন দুর্বলতা, সন্তান না হওয়া, সহ*বাসে ব্যর্থতা, দ্রুত বীর্য*পাত, মেহ-প্রমেহ) সমাধানে ‘নাইট কিং’ ও ‘নাইট কিং গোল্ড’ কার্যকরী। বাংলাদেশের যে কোনো জেলা বা উপজেলায় কুরিয়ার সার্ভিসযোগে ‘নাইট কিং’ পেতে যোগাযোগ করুন :
হাকীম মিজানুর রহমান
ইবনে সিনা হেলথ কেয়ার, যোগাযোগ করুন : (সকাল ১০টা থেকে রাত ০৮ টা (নামাজের সময় ব্যতীত) 01762240650, 01834880825
এছাড়াও শ্বেতী রোগ, ডায়াবেটিস, অশ্ব (গেজ, পাইলস, ফিস্টুলা), ব্লকেজ, শ্বেতপ্রদর, রক্তপ্রদর ইত্যাদি রোগের চিকিৎসা দেয়া হয়।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা ঘটনাস্থলে আসা সাংবাদিকদেরকে বলেন, জিআর বরাদ্দের চাল ইউনিয়নের গরীবদের মাঝে বিতরণের কথা। ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় যেহেতু চেয়ারম্যানরা বিতরণ করেন, আমি চিন্তা করেছি ইউনিয়নে না দিয়ে আমার বাসার আশাপাশে শহরের লোকদের মাঝে দিব। সেই সুবিধার্থে বাসায় এনে রেখেছি। তিনি বলেন, এলাকায় আমার কিছু শত্রু আছে, তারা বিষয়টি ভিন্নভাবে উপস্থান করেছে। যার ফলে চালগুলো উপজেলা গোডাউনে নিয়ে যেতে বলেছে। সেই জন্য চালগুলো উপজেলা গোডাউনে নিয়ে যাওয়া হয়।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কানিজ ফাতেমা বলেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে গরীব ও অসহায় লোকজনের মাঝে বিতরণের জন্য দুই টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। চালগুলো পরিষদ থেকেই বিতরণ করা হবে। কিন্তু ভাইস চেয়ারম্যান দূর-দূরান্ত থেকে আসা লোকজনের কথা চিন্তা করে চাল তার নিজ বাসায় নিয়ে রাখেন। বুধবার তার বাসা থেকে চালগুলো নিয়ে উপজেলা পরিষদে এনে রাখা হয়।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, সংবাদ পেয়ে আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বলেছি- তার তত্ত্বাবধানে চালগুলো ওই বাসা থেকে উদ্ধার করে উপজেলার গোডাউনে রাখার জন্য। তিনি গোডাউনে আনার ব্যবস্থা করেছেন। যদি গরীবদের দিতে হয় উপজেলা থেকেই দিতে হবে।

138 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন