হাইমচরে ২ মাসের জাটকা রক্ষা অভিযানে ১৩১ জেলে আটক

সাহেদ হোসেন দিপু, হাইমচর প্রতিনিধি :

হাইমচরের মেঘনায় দুই মাসের জাটকা রক্ষা অভিযানে ১৩১ জেলে, ৫৩ লাখ মিটার জাল এবং ৩.৬৫৮ মে.টন মাছ জব্দ করা হয়।

হাইমচর উপজেলা ট্রাস্কফোর্স কমিটির যৌথ অভিযানে ইলিশের পোনা নিধনের অপরাধে এসকল জেলেকে আটক ও জাল এবং মাছ জব্দ করা হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানাযায়, ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত জাতীয় সম্পদ ইলিশ রক্ষায় মেঘনায় সকল ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করে সরকার।

এ দুই মাসে হাইমচরের মেঘনায় জাটকা ইলিশ নিধন প্রতিরোধে হাইমচর উপজেলা প্রশাসন, মৎস অফিস, নীলকমল নৌপুলিশ ও কোষ্টগার্ড যৌথ ভাবে ১৩৮ টি অভিযান পরিচালনা করে মোট ১৩১ জন অসাধু জেলেকে আটক করতে স্বক্ষম হয়।

নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌসী বেগম ২৭টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৬৫জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করে জেল হাজতে প্রেরন করেন। ৬৬ জন জেলেকে ১লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান, জাতীয় সম্পদ ইলিশ রক্ষায় আমরা নদীতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রেখেছি।

দুই মাসের অভিযানে নীলকমল নৌপুলিশ ও কোষ্টগার্ডের সহযোগীতায় ১৩১জন জেলে সহ অসংখ্য জাল, নৌকা, মাছ আটক করতে পেরেছি।

আটককৃত জেলেদের মধ্যে ৬৫ জনকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে সাজা প্রদান করা হয়েছে। বাকি আসামীদের জরিমানা করা হয়েছে।

জব্দকৃত জাল আগুনের পুড়িয়ে ধ্বংশ করে দেয়া হয় এবং জব্দকৃত মাছগুলো বিভিন্ন এতিম খানা ও অসহায় দুঃস্থদের মাঝে বিতরণ করে হয়েছে।

নীলকমল নৌপুলিশ আইসি মো. আব্দুল জলিল জানান, দুই মাসের জাটকা রক্ষা অভিযানে আমরা নিয়মিত মেঘনায় অভিযান পরিচালনা করেছি।

আমরা অভিযান পরিচালনা করে ৯০জন জেলেকে জাটকা নিধনকালে আটক করেছি। ৩৯ লাখ ৪৪ হাজার মিটার জাল জব্দ করেছি।

আটককৃত জেলেদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা, মৎস্য আইনে ৪টি মামলা ও মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছে এবং জব্দকৃত জালগুলো আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংশ করে দেয়া হয়েছে।

আমি সকল জেলে প্রতিনিধি, জেলে এবং স্থানীয় সাংবাদিকদের জাটকা রক্ষা অভিযানে আমাদেরকে সহযোগীতা করায় সকলের প্রতি রহিল আমার কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

এসএস

134 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়