চলে গেলেন সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান

0
25

নিউজ ডেস্ক :
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রথম মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের মরদেহ সিলেটের পথে রয়েছে। নগরের মানিকপীর টিলায় সিটি করপোরেশনের মালিকানাধীন গোরস্থানে মা-বাবার কবরের পাশে তাকে দাফন করা হবে। তবে সিলেটে লাশ আসার পর তার জানাজার নামাজের সময় নির্ধারণ করা হবে।

সোমবার (১৫ জুন) সকাল ৭টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) থেকে একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে কামরানের মরদেহ নিয়ে সিলেটের পথে রওনা হয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা। লাশের সঙ্গে রয়েছেন নিহতের ছোট ভাই এনাম উদ্দিন আহমদ ও বড় ছেলে ডা. আরমান আহমদ শিপলু।

http://picasion.com/

কামরানের ব্যক্তিগত সহকারী বদরুল ইসলাম জানান, অ্যাম্বুলেন্সযোগে বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের মরদেহ প্রথমে নগরের ছড়ারপারের বাসায় আনা হবে। সিলেটে লাশ নিয়ে আসার পর তার জানাজার নামাজের সময় নির্ধারণ করা হবে।

এদিকে সোমবার সকালে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের ছড়ারপারের বাসায় যান সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। সেখানে তিনি সাবেক এ মেয়রের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদেরকে সান্ত্বনা দেন।

এর আগে রোববার দিবাগত রাত পৌনে তিনটার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বদরউদ্দিন আহমদ কামরান ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

সিলেট পৌরসভার তিনবারের কমিশনার, একবারের চেয়ারম্যান ও সিলেট সিটি করপোরেশনের টানা দুইবারের সাবেক মেয়র, মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বদরউদ্দিন আহমদ কামরান গত ৫ জুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। পরদিন তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন সেন্টারে ভর্তি করা হয়। এরপর তার শরীর আরও খারাপ হলে ৭ জুন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বিমানবাহিনীর একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ৮ জুন কামরানের শরীরে প্লাজমা থেরাপিও দেয়া হয়। ধীরে ধীরে স্বাস্থ্যের উন্নতিও হচ্ছিল তার। কিন্তু চিকিৎসকদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে রোববার রাত ১১টার দিকে কামরানের মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয় এবং রাত পৌনে তিনটার দিকে ইন্তেকাল করেন সিলেটের জনপ্রিয় এই রাজনীতিবিদ।

কামরানের আগে তার স্ত্রী সিলেট মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসমা কামরান গত ২৭ মে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তিনি নিজ বাসায় আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ রয়েছেন এবং তার শরীরে এখন আর করোনার উপসর্গ নেই।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
93 জন পড়েছেন
http://picasion.com/