ঢাকা থেকে গ্রাম, আবার ঢাকায় ফিরে জানলেন করোনা পজিটিভ

0
18

নিউজ ডেস্ক :
পারভেজ। একজন সরকারি চাকরিজীবী। থাকেন রাজধানীর আগারগাঁও এলাকায় সরকারি কোয়ার্টারে। আর মাস্টার্স করছেন ঢাকা কলেজে। নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে সোমবার (১ জুন) জানতে পারেন তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তবে তার ধারণা, এর অনেক আগেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।

পারভেজ জানান, আগারগাঁওয়ের বাসা থেকে গত ২০ মে বেড়াতে আসেন কামরাঙ্গীর চরে বোনের বাসায় ৷ বাসায় এসে দেখেন বোন, ভগ্নিপতি,দুই ভাগ্নিসহ পরিবারের মোট চার সদস্যের শরীরে ঠান্ডা ও হালকা জ্বর রয়েছে ৷ তবে সবার উপসর্গ ছিল মৃদু। বোনের বাসায় একদিন থানার পরদিন ২১ মে চলে যান গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরে। গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পরের দিন হালকা জ্বরসহ শারীরিক অসুস্থতা দেখা দেয়ায় ওইদিনই ঢাকায় ফিরে আসেন। আবারও ওঠেন কামরাঙ্গীর চরের বোনের বাসায়। তবে এবার সম্পূর্ণ আলাদা কক্ষে থাকা শুরু করেন তিনি।

http://picasion.com/

নিজেই প্যারাসিটামল ও অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের সিদ্ধান্ত নেন। ওষুধ সেবনের দুইদিনেই শারীরিকভাবে সুস্থতা বোধ করেন তিনি। বাকি আরও পাঁচদিন একই ওষুধ চালিয়ে যান। এরই মধ্যে গত ২৭ মে স্থানীয় সরকারি হাসপাতালে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা জমা দেন। সোমবার (১ জুন) আবার তার করোনা ধরা পড়ে।

তবে পারভেজের ধারণা, নমুনা পরীক্ষা না করলেও বোনের পরিবারের সবাই করোনা আক্রান্ত ছিল। আর বোনের বাসাতে গিয়েই করোনা আক্রান্ত হন তিনি।

পারভেজ বলেন, বোনের বাসা থেকে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পরেই সামান্য অসুস্থ বোধ করি। তবে স্বাভাবিকভাবেই ঢাকা থেকে গ্রামে যাওয়ার কারণে সবার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা থাকি। পরের দিন ঢাকায় চলে আসি। আর বোনের বাসায় সবার শরীরে জ্বর দেখা দেয়ার পর তারা সবাই বাসার বাইরে বের হওয়া বন্ধ করে দেন। এখনও সবাই সম্পূর্ণভাবে বাসার মধ্যেই অবস্থান করছেন। তবে এখন সবাই সম্পূর্ন সুস্থ রয়েছেন।

পারভেজ আরও জানান, আমার ধারণা, বোনের বাসার সবাই করোনা আক্রান্ত হয়ে বাসায় থেকেই সুস্থ হয়েছেন। বর্তমানে তিনি নিজেও শারীরিকভাবে সুস্থ রয়েছেন বলে জানান।

ফেসবুকে মন্তব্য করুন
107 জন পড়েছেন
http://picasion.com/