চাঁদপুর সেতু এলাকায় মাদক ব্যবসা জমজমাট

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :
চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ-রায়পুর সড়কের চাঁদপুর সেতু এলাকায় মাদক ব্যবসা জমজমাট আকার ধারণ করেছে।

এক শ্রেণীর মাদক ব্যবসায়ী কেনাবেচার নিরাপদ স্থান হিসেবে চাঁদপুর সেতু ও সেতুর দু’পাড়কে বেছে নিয়েছে।

এরা প্রতিদিন সন্ধ্যার পর হতে গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন বেশে এসে মাদক বেচাকেনা করে থাকে। দেখলে মনে হবে না যে, এরা মাদক কেনাবেচা করার জন্যে অথবা তাদের ক্রেতার জন্যে অপেক্ষা করছে। চাঁদপুর সেতুর উপর এবং দু পাড়ে সন্ধ্যার পর অনেকেই ঘুরতে আসে ও উন্মুক্ত বাতাস উপভোগ করে। এদের মাঝেই অবস্থান করে থাকে মাদক ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা। ক্রেতা এসে মাদক নিয়ে চলে যাওয়ার পর বিক্রেতারা চলে যায়।

এখানে ঘুরতে আসাদের মধ্যে মাদক ক্রেতা ও বিক্রেতাদের পৃথক করা কষ্টকর হয়ে পড়ে। বিভিন্ন পেশার লোকজন এ সেতুতে ঘুরতে আসার কারণে মাদক ব্যবসায়ীদের খুঁজে বের করা কষ্টকর। চাঁদপুর সেতু সন্ধ্যার পর অন্ধকারে পরিণত হয়ে যায়। সেতুতে আলোর ব্যবস্থা করা হলে মাদক ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য কমে আসবে। পূর্বে এ সেতুতে পুলিশ অবস্থান করলেও বর্তমানে করোনার কারণে সেতুতে পুলিশের অবস্থান তেমন দেখা যায়নি। সন্ধ্যার পর হতে গভীর রাত পর্যন্ত সেতু ও সেতু এলাকায় নিয়মিত পুলিশ টহল একান্ত জরুরি। না হলে মাদক ব্যবসার পাশাপাশি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সিএনজি অটোরিকশা চালক জানান, একজন যাত্রী ফরিদগঞ্জের গাজীপুর থেকে রিজার্ভ নিয়ে চাঁদপুর সেতুতে আসে। সেতুর উপর এক পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ২জন লোকের কাছ থেকে কাগজ পেঁচানো কী জানি নিয়ে টাকা দিয়ে আমার গাড়িতে করে পুনরায় গাজীপুর বাজারের আগে ব্রিজের নিকট নেমে যায়। এমনিভাবে গাজীপুর এলাকা থেকে ২/৩ দিন ধরে লোক আসে চাঁদপুর সেতুতে। তারাও টাকা দিয়ে কী জানি নিয়ে যায়। ধারণা করছি, নেশা জাতীয় জিনিস কিনেছে। তারপর থেকে আর এসব ভাড়া নিয়ে আই না। নাম প্রকাশে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানায়, মাদক ব্যবসায়ীরা ঘোরার নাম করে সেতু ও সেতু এলাকায় মাদক বিক্রি করে যাচ্ছে। এরা খারাপ প্রকৃতির লোক।

এ ব্যাপারে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন জনসাধারণ।

সূত্র : দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠ

42 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়