কচুয়ায় স্কুল ছাত্রীর খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ২

ওমর ফারুক সায়েম, কচুয়া প্রতিনিধি :

চাঁদপুর জেলার  কচুয়া উপজেলার বড় হায়াতপুর গ্রামের দক্ষিণ পূর্ব পাশের ধানি জমির বিল থেকে জান্নাতুন নাঈম মিশু(১৪) নামের এক স্কুল ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা সহ ঘাতক নুর আলম ও সজীব হোসেনকে গ্রেফতার করেছে কচুয়া থানা পুলিশ। মিশু বড় হায়াতপুর গ্রামের আরব প্রবাসী হানিফের কন্যা।

সে স্থানীয় চাঁদপুর এম এ খালেক উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে ফরিদগঞ্জ থানাধীন গাব্দেরগাঁও গ্রামের আমির হোসেনের পুত্র সজীব (১৯)। বর্তমানে সে বড় হায়াতপুর গ্রামে তার নানার বাড়িতে বসবাস করে এবং বড় হায়াতপুর গ্রামের মনির হোসেনের পুত্র নুর আলম (২৫)।

মিশুর পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (৩১ জুলাই) দুপুরে মিশু তার পালিত ছাগলের জন্য ঘাস কাটতে বাড়ির পাশে যায়। কয়েক ঘন্টা অতিবাহিত হয়ে গেলেও মিশু বাড়ি না ফেরায় তাকে খোঁজাখুজি করা হয়। কিন্তু তার কোনও খোঁজ মিলেনি।

এ অবস্থায় গত ১ আগস্ট শনিবার মিশুর নিখোঁজ বিষয়ে কচুয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। ডায়েরি নং-১২। গত রবিবার দুপুরে বড় হায়াতপুর গ্রামের দক্ষিণ-পূর্ব পাশে ধানি জমির বিলে মিশুর লাশ ভাসমান দেখতে পেয়ে থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। গত ৩ আগস্ট মিশুর মা শেফালী বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন (নং-২)। এ মামলার আসামী হিসেবে নুর আলম ও সজীবকে গ্রেফতার করা হয়।

কচুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ওয়ালী উল্লাহ এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে বলেন, গ্রেফতাকৃত সজীব ও নুর আলমকে জিজ্ঞাসাবাদে তারা মিশু হত্যার সাথে জড়িত থাকার সত্যতা স্বীকার করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাদি প্রকাশ করেছে। মামলার তদন্তের স্বার্থে ওইসব তথ্য প্রকাশ করা যাচ্ছেনা।

তিনি আরো জানান, মূলত উক্ত আসামীদ্বয় পরিকল্পিত ভাবে ভিকটিম মিশুকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে ভিকটিমের ঘাস কাটার স্থান থেকে আনুমানিক ৩০০ গজ দক্ষিণে বিলের মধ্যে খালের পানির হেলেঞ্চা ঘাসের নিচে ডুবিয়ে রাখে।

এদিকে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ কচুয়া শাখার উদ্যোগে মিশু হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তশূলক শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় কচুয়া সরকারি বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ প্রাঙ্গণে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও একই দিনে চাঁদপুর এম এ খালেক উচ্চ বিদ্যালয় সহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবকরা মানববন্ধন করে।

708 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়