chandpur report 565

চাঁদপুরে বন্যায় বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত

চাঁদপুর রিপোর্ট ডেস্ক :
এক দিকে, তীব্র জোয়ারের চাপ। অন্যদিকে, উজানের বন্যার পানি। ফলে ফুঁসে উঠেছে চাঁদপুরে পদ্মা ও মেঘনা। এতে প্লাবিত হয়ে পড়েছে জেলার বিস্তীর্ণ নদীপাড়। প্রচণ্ড ঘূর্ণিস্রোতের কারণে চাঁদপুর শহরের তিন নদীর মোহনা এখন ঝুঁকির মুখে। সেখানে প্রচণ্ড ঝুঁকি নিয়ে বিভিন্ন নৌযান চলাচল করছে। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে টানা বৃষ্টিপাত।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) বিকেল পর্যন্ত দফায় দফায় জোয়ারের পানি নদীপাড়ের জনপদে ঢুকে পড়ায় তলিয়ে গেছে বসতবাড়ি, রাস্তাঘাট ও মাছের খামার। শতাধিক মাছের খামার থেকে চাষের মাছ ভেসে যাওয়ায় প্রচুর আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন খামারিরা। শুধু তাই নয়, বসতবাড়ি ও ফসলী জমি তলিয়ে যাওয়ায় দিশেহারা চাঁদপুর সদর, হাইমচর ও মতলব উত্তরের কয়েক হাজার পরিবার।

সবচেয়ে ক্ষতি বেশি হয়েছে হাইমচরে মেঘনাপাড়ের অনন্ত ৫ হাজার পরিবার। গত তিনদিনে কয়েক দফায় বসতবাড়ি, রাস্তাঘাট ও দোকানপাট পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় কষ্টে দিন কাটছে তাদের। অনেকেই রান্না করতে না পেরে অর্ধাাহরে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। তাছাড়া গবাদি পশু নিয়েও বেকায়দায় পড়েছেন।

চাঁদপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মঞ্জুরুল আলম ভূঁইয়া জানান, চাঁদপুর শহরের তিন নদীর মোহনার বড়স্টেশন পয়েন্টে শুক্রবার বিকেলে ৬৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে মেঘনায় পানি প্রবাহিত হয়েছে। যা অন্যদিনের চেয়ে ৬ সেন্টিমিটার বেশি। সেখানে দর্শনার্থীদের প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রিত করেছে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ।

এদিকে, গত তিনদিন ধরে চলা বৃষ্টিপাত আর প্রকৃতির এমন দুর্যোগের কারণে শুধু নদীপাড়ের মানুষজন নয়, গোটা জেলার মানুষও এক প্রকার গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে।

প্রকাশিত : ২২ আগস্ট ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ০৬ ভাদ্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ০২ মুহররম ১৪৪২ হিজরি, শনিবার

78 জন পড়েছেন
শেয়ার করুন