বর্ষা মৌসুমে সিপাইকান্দি-ঠেটালীয়া এলাকা নদীভাঙ্গন রোধ না হলে হুমকির মুখে পড়বে বাঁধ

গোলাম নবী খোকন, বিশেষ প্রতিনিধি :

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ১০ নং ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়নের সিপাইকান্দি-ঠেটালীয়া নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন সাবেক ছাত্রনেতা চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাড. মোঃ নুরুল আমিন রুহুল এমপি।

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের সুপারিন্টেন্ডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার (পিডি) জহিরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার, উপ- বিভাগীয় প্রকৌশলী নকিব আল হাসান, এমপির ব্যাক্তি গত সহ কারী লিয়াকত আলী সুমন, পানি ব্যবস্হাপনা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সরকার মোঃ আলাউদ্দিন, ষ্টিমিটার জামাল উদ্দিন, এসও সালাউদ্দিন, সাংবাদিক গোলাম নবী খোকন, ইসরাফিল বাবু, আতিকুর রহমান দুলাল, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি হাজী শুকুর আলী, সাধারণ সম্পাদক কাজী সালাউদ্দিন, আওয়ামীগ নেতা মনির হোসেন, ছাত্র লীগ নেতা অভি, কাঁচপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা জিয়া রহমানসহ আওয়ামিলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এমপি নুরুল আমিন রুহুল বলেন, গত বর্ষা মৌসুমে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীমকে এনে মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের টরকী, সিপাইকান্দি, ঠেটালীয়া, চরমাছুয়া, জহিরাবাদ, একলাশপুর, মহনপুর ও ষাটনল এ কয়েকটি স্হানে নদী ভাঙ্গন এলাকাসহ মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্প বেড়ীবাঁধ রক্ষায় বড় আকারের জিও ব্যাগ বালিভর্তি বস্তা নিক্ষেপ করায় মোটামুটি মানুষের স্বস্তি ফিরে এসেছে। আরও অনেক জায়গায় বালির বস্তা নিক্ষেপ করা হয় নাই। যা অচিরেই সমস্যার সমাধান করা দরকার। তাই মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্প বেড়ীবাঁধ রক্ষা এবং উপরে উল্লেখিত স্পটগুলো রক্ষা করার দাবি পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের কাছে।

এ সময়টা খুবই ভয়াবহ, কারণ দেশের প্রায় অধিকাংশ জেলায় বন্যায় বাড়ি ঘর তলিয়ে গেছে। আমাদের এখানে বর্তমানে স্বাভাবিক বর্ষার চেয়ে পানি বেশি। তবে আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। যে সমস্ত এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে ওই সমস্ত জায়গায় বর্ষা মৌসুমে বালির বস্তা নিক্ষেপ করা হলে গ্রাম রক্ষা পাবে এব বেড়ীবাঁধের ও হুমকি থাকবে না।

সকলকে সচেতন থাকার আহবান জানান এমপি নুরুল আমিন রুহুল।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের পিডি জহিরুল ইসলাম বলেন, আমরা এ বর্ষা মৌসুমে এ সমস্যাজনিত এলাকা চিন্তিত করে এর ব্যবস্হা নিবো।

এছাড়াও পরবর্তীতে স্থায়ীভাবে বড় আকারের ব্লক নিক্ষেপ করে নদী ভাঙ্গন রোধ করা হবে বলে জানান পিডি জহিরুল ইসলাম।

73 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়