হাইমচরের জেলে ট্রলারে ডাকাতি আহত ২

হাইমচর প্রতিনিধি :

হাইমচর উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের শেষ বর্ডারে আলতাফ মাস্টার ঘাটের সামনে মেঘনা নদীতে গত ৮ আগস্ট শনিবার রাত ৮টায় জেলেদের ট্রলারে হামলা চালিয়ে দুর্ধর্ষ ডাকাত দল টাকা লুট করে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শাহাবুদ্দীনের ট্রলারের দুই জেলে জখম হয়েছেন। জখম অবস্থায় স্থানীয় আলতাফ মাস্টার চিৎকার শুনতে পেয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে হাইমচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েভর্তি করেন।

আহত দুইজন হলেন ট্রলারের মাঝি বাদশা মোল্লা (৫৫) পিতা মরহুম মুহাম্মাদ মোল্লা এবং কামাল বেপারী (৪৬) পিতা রাজাক বেপারী। তাদের বাড়ি শরীয়তপুর উপজেলার গরীবেরচর ইউনিয়নে।

চাঁদপুর জেলা মৎস্যজীবী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মানিক দেওয়ান জানান, গত অনেক দিন হাইমচর মেঘনা নদীতে ইলিশ মাছের প্রাচুর্য বেশি হওয়ায় জেলেরা মাছ ধরার উদেশ্যে নদীতে জাল ফেলে। ওইদিন হঠাৎ করে রাতের অাঁধারে ৩-৪টি ট্রলার রায়পুর-লক্ষ্মীপুর এবং বরিশাল থেকে আসে, যাতে একদল জলদস্যু হাইমচর উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নে এসে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ট্রলারে হানা দেয়। জলাদস্যুরা মাঝিদের ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে এবং ট্রলারে থাকা লাইট, মোবাইল, এমনকি ট্রলারের ইঞ্জিন লুট করে পালিয়ে যায়।

তিনি আরো জানান, আমরা বার বার প্রশাসনকে জানানোর পরেও প্রশাসন এই বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এই বিষয়ে ৪নং নীলকমল ইউনিয়ন নৌ-ফাঁডির ইনচার্জ আবদুল জলিল বলেন, এই ঘটনাটি শুনেছি। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। জলদস্যুদের বিরুদ্ধে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নিবো।

আহত দুই জেলে বাদশা মোল্লা ও কামাল বেপারী জানান, এই বিষয়ে হাইমচর থানায় মালার প্রস্তুতি চলছে।

69 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়