নোয়াখালীতে ডোবা থেকে চাঁদপুরের যুবতীর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার

নিউজ ডেস্ক :

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় ডোবা থেকে চাঁদপুর শহরের পুরান বাজারের শাহনাজ আক্তার (১৮)নামে  এক যুবতীর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৩ বোন ১ ভাইয়ের মধ্যে শাহনাজ ছিল সবার বড়। তার পিতার নাম শাহআলম। সে চাঁদপুর শহরের প্রাণকেন্দ্র কালিবাড়ি মোড় এলাকার চাঁদপুর হোটেল এণ্ড রেস্টুরেন্টের প্রধান বাবুর্চি হিসেবে কাজ করেন।

 

শাহলম জানায়, তার মেয়ে শাহনাজ একটু মানসিক ভারসাম্যহীন। ৩ দিন আগে সে পুরান বাজারের বাড়ি থেকে আত্মিয়ের বাড়িতে বেড়াতে যায়। সেখানে গিয়ে সে নিখোঁজ হয়। সুধারাম থানা পুলিশ বুধবার শাহনাজের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে। রাতে পুলিশ শাহনাজের মোবাইল উদ্ধার করে সেই সিম থেকে আমাদের নাম্বারে কল করে শাহনাজের মৃত্যুর বিষয়ে জানায়। রাতেই আমরা সুধারাম থানায় গিয়ে শাহনাজের লাশ সনাক্ত করি।

 

সুধারাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নবীর হোসেন জানান, গত বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টায় নোয়াখালি সদর উপজেলার ৩নং নোয়ান্নই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের করমুল্যাহপুর গ্রামের একটি ডোবা থেকে পুলিশ বস্তা বন্দি অবস্হায় শারমিনের মরদেহ উদ্ধার করে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। তবে তাৎক্ষণিক ওই যুবতীর নাম ঠিকানা জানা যায়নি।

 

বৃহস্পতিবার সকালে সুধারাম থানা পুলিশ শাহনাজের লাশ তার পিতা শাহ আলমের কাছে হস্তান্তর করেছে।

ধারনা করা হচ্ছে শাহনাজ কে ধর্ষনের পর দুবৃত্তরা গলা কেটে হত্যা করে বস্তাবন্দি করে ডোবায় ফেলে দিয়েছে।  এ ব্যাপারে সুধারাম থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে।

আমরা খবরের বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাসী, চাঁদপুর রিপোর্ট গুজব প্রচার করে না

০১ অক্টোবর ২০২০ খ্রি. ১৬ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৩ সফর ১৪৪২ হিজরি, বৃহস্পতিবার

 

68 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়