ফরিদগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ৩ জন আহত : পরিবারের লোকজন নিরাপত্তাহীনতায়

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি :
ফরিদগঞ্জের ১৪নং দক্ষিণ ইউনিয়নের গজারিয়া এলাকার আঃ মজিদ বেপারী বাড়ির (ওরফে বুড়িয়ার পুতের বাড়ি) আলী আহাম্ম বেপারীর পরিবার পরিজন চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি একই বাড়ির শাহ আলমের নেতৃত্বে ৭/৮ জনের একটি সন্ত্রাসী চক্র আঃ মজিদ বেপারীর পরিবারের ৩ জন মহিলাকে পিটিয়ে মারাতœক জখম করেছে। আহতদের দুজন আমেনা ও রোজিনা চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। আর হাছিনা নামের অপর মহিলা স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে বলে ভূক্তভোগী পরিবারের লোকজন জানায়। হামলায় অংশ গ্রহণে ছিল শাহআলম, মাসদু (৩২) ,রাজন(২৮),কুদ্দুছ(১৮),হাজেরা (৫০),ইতি (২৪) ,পান্না (২৯) , সাথি (২৮)।
ভূক্তভোগী আমেনা , রোজিনা ও হাছিনা জানায়, আমাদের বাড়িতে পুরুষ লোকজন না থাকায় আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তির বৈধ মালিকানা থাকা সর্তেও জবর দখল করার চেষ্টায় আমাদের উপর বারবার হামলা চালানো হয়।

বর্তমানে আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। তারা আরোও জানায়, আমাদের বসত ভিটা যাহার বিএস দাগ নং ১৪৩৪, এসএ ৯৪৩ পৈত্রিক ও ক্রয় সূত্রে ১৬ শতক জমির মালিক হয়ে প্রতীপক্ষ শাহ আলমের নিকট ৪.১১ শতক জমি বিক্রি করি। নিজ ও বিক্রিত ভূমির শতক জমির মালিক হয়ে প্রতীপক্ষ শাহ আলমের নিকট ৪.১১ শতক জমি বিক্রি করি। নিজ ও বিক্রিত ভূমির আলাদা আলাদা চৌহদ্দি দেওয়া রয়েছে। শাহআলম আমাদের বসত ঘরসহ পুরো সম্পত্তি জবর দখলে নিতে বার বার সন্ত্রাসী কায়দায় মারধর করে আসছে।

আমরা আদালতে একটি নিষেধাজ্ঞা মামলা করেছি। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সম্প্রতি ১৩ অক্টোবর মঙ্গলবার আমাদের উপর এ পৈচাসিক হামলা চালিয়ে আমাদের ৩ জনকে রক্তাক্ত জখমসহ বসত ঘরের ব্যাপক ভাংচুর করে ক্ষতি সাধন করেছে। আমরা থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ আমাদের অভিযোগ প্রতীপক্ষের পরে এন্টি করে। বর্তমানে আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছি। আমাদের পুরুষ মানুষ বিদেশে থাকে তাই ওদের এহেন কর্মকান্ডে আমার ভীতসন্ত্রত হয়ে পড়েছি। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নিকট সঠিক বিচারসহ আমাদের নিরাপত্তার সুদির্ষ্টি কামরা করছি।

এ বিষয়ে এসঅই রাজাজাক আহম্মদ জানান, উভয় পক্ষ থানায় নিয়মিত মামলা করেছে। তাই ২জন করে দু‘পক্ষের ৪ জনকে আটক করে কোর্টে পাঠিয়েছি। তিনি আরোও জানন, হাছিনা বাদী হয়ে কোর্টে পূর্বেই একটির্ নিষেজ্ঞা মামলা রুজু করে। সম্প্রতি দু‘পক্ষে ৯৯৯এ ফোন করে ডাকাতি হওয়ার উপক্রম জানিয়ে ফোন করলে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পাই ডাকাতির কোন ঘটনা সঠিক নহে। উভয় পক্ষ পুলিশ সহায়তা নিজেদের প্রয়োজনে নিতে ফোন করেছে। যেহেতু পূর্ব হতেই উভয় পক্ষের কোর্টে মামলা চলমান সেহেতু কোর্টেই তাদের সুরাহা দিবে। নিরাপত্তার সার্থে আমরা যকটুকু করার দরকার ততটুকু করছি।

আমরা সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতায় বিশ্বাসী, পাঠকের আস্থাই আমাদের মূলধন

১৭ অক্টোবর ২০২০ খ্রি. ০১ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯ সফর ১৪৪২ হিজরি, শনিবার

257 জন পড়েছেন

Recommended For You

অনুমতি ব্যতীত এই সাইটের কোনো সংবাদ, ছবি অন্য কোনো মাধ্যমে প্রকাশ আইনত দণ্ডনীয়